এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > সবংয়ে শাসকপ্রার্থীর বিরুদ্ধে ‘মারাত্মক অস্ত্র’ হাতে, দাবি বিজেপির

সবংয়ে শাসকপ্রার্থীর বিরুদ্ধে ‘মারাত্মক অস্ত্র’ হাতে, দাবি বিজেপির

যত এগিয়ে আসছে সবং উপনির্বাচনের দিন তত বাড়ছে রাজনৈতিক উত্তাপ। এমনিতেই বর্তমান তৃণমূল প্রার্থী গীতারানি ভূঁইয়ার স্বামী ও সবংয়ের সাতবারের বিধায়ক মানস ভূঁইয়া মেনে নিচ্ছেন, লড়াইটা কঠিন। কারণ সিপিএম ও কংগ্রেস প্রচারে হাওয়া তুলেছে মানসবাবুর ‘গদ্দারি’ নিয়ে, দুই দলেরই প্রচারের মুখ্য বিষয়, শুধুমাত্র নিজের স্বার্থসিদ্ধি করতে মানস ভূঁইয়া তৃণমূলে গেছেন। অন্যদিকে স্থানীয় মহলে কান পাতলে শোনা যাচ্ছে প্রার্থী নিয়ে ক্ষোভ, আদি-নব্য কোনো শিবিরই নাকি প্রার্থী হিসাবে গীতারানি দেবীকে মেনে নিতে পারছে না। আর সেই ক্ষোভের আঁচ পেয়ে পোড়খাওয়া রাজনীতিবিদ মুকুল রায় তো বলেই দিয়েছেন, তৃণমূল সেজে বুথে গিয়ে পদ্মফুলে ভোট দিন। সব মিলিয়ে সবং লড়াই জমজমাট।
এর মধ্যেই বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের দাবি নির্বাচনের আগে শাসকদলের প্রার্থীকে নিয়ে তাঁদের হাতে এসেছে নতুন ‘অস্ত্র’ যা নিয়ে তাঁরা নির্বাচন কমিশনে নালিশ জানাতে চলেছেন। দিলীপবাবুর বক্তব্য, গত বিধানসভা ভোটে মানস ভুঁইয়ার মনোনয়নে গীতাদেবীর আয় দেখানো হয়েছিল ৮৪ হাজার টাকা। এবার গীতাদেবীর মনোনয়নে আয় দেখানে হয়েছে ৩ লক্ষ ৩৮হাজার। একজন গৃহবধূর আয় কীভাবে এক বছরে চারগুণ বেড়ে যায়? আমরা নির্বাচন কমিশনে জানাচ্ছি। স্থানীয় সূত্রেও জানা যাচ্ছে বিজেপি কর্মীরা এই তথ্য তুলে ধরে কিভাবে ভূঁইয়া পরিবারের ‘পকেটের উন্নয়ন’ হয়েছে বাড়ি বাড়ি ঘুরে সেই প্রচারে ঝাঁপাচ্ছে। অন্যদিকে বিরোধীরা প্রচারে আরো দুটি ‘অস্ত্র’ ব্যবহার করছেন বলে জানা যাচ্ছে, এক – কিছুদিন আগে পর্যন্ত মানস বাবু মুখ্যমন্ত্রী সম্পর্কে যেসব ‘সুমধুর’ বাণী শোনাতেন তা সিডিতে করে পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে মানুষের কাছে। আর দুই – বিধানসভা ভোটের সময় কিভাবে সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্য্যকান্ত মিশ্রাকে বুকে চেপে ধরে ‘আমার মুখ্যমন্ত্রী’ বলে ‘নাটক’ করেছিলেন তার ফলাও বর্ণনা। সব মিলিয়ে সবং নির্বাচনে মানসবাবুর উপর চাপ ধেয়ে আসছে চতুর্দিক থেকে। এখন দেখার সব চাপ কেটে তিনি শেষপর্যন্ত শাসকদলের বিজয়কেতন ওড়াতে পারেন কিনা সবংয়ের মাটিতে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!