এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > বিজেপি কাউন্সিলর হয়ে তৃণমূলকে সমর্থন, কড়া পদক্ষেপের পথে গেরুয়া শিবির

বিজেপি কাউন্সিলর হয়ে তৃণমূলকে সমর্থন, কড়া পদক্ষেপের পথে গেরুয়া শিবির

এ যেন প্রবল সংকটে গেরুয়া শিবির। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় টালমাটাল রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে এবার ফের আরেক নতুন জটিলতা সামনে এল। বস্তুত, লোকসভা নির্বাচনের সময় তৎকালীন তৃণমূলের জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্রের বিরুদ্ধে বিষোদগার করে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন গঙ্গারামপুর পৌরসভার কাউন্সিলর অশোক বর্ধন।

তবে নির্বাচন পরবর্তী পরিস্থিতিতে সেই বিপ্লব মিত্র বিজেপিতে যোগদানের পরই পরিস্থিতি অন্য আকার নিতে শুরু করে।বিপ্লববাবুর বিজেপিতে যোগদানের পরই তার ভাই তথা গঙ্গারামপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান প্রশান্ত মিত্র বিজেপিতে যোগ না দিলেও তাকে চেয়ারম্যান পদ থেকে সরানোর জন্য তার বিরুদ্ধে অনাস্থা আনতে উদ্যোগী হয় তৃণমূল।

আর তৃনমূলের পক্ষ থেকে এই ব্যাপারে প্রশান্ত মিত্রের বিরুদ্ধে অনাস্থা আনলে সেই তৃণমূলের পক্ষ নিতে দেখা যায় গঙ্গারামপুর পৌরসভার বিজেপি কাউন্সিলর অশোক বর্ধনকে। যে ঘটনায় তীব্র আলোড়ন সৃষ্টি হয় দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা জুড়ে। আর এই ঘটনাতেই এবার বিজেপি কাউন্সিলার অশোক বর্ধনের উপর কড়া সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে গেরুয়া শিবির।

এদিন এই প্রসঙ্গে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা বিজেপির সভাপতি শুভেন্দু সরকার বলেন, “গঙ্গারামপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান মানুষের জন্য উন্নয়নের কাজ করেছে। তাই তিনিই চেয়ারম্যান থাকুক, সেটাই আমরা পেয়েছিলাম। সমস্ত ঘটনা আমাদের কাউন্সিলের অশোকবাবুকে জানানো হয়। তিনি দলের নির্দেশ মানবেন বলেও জানান।

কিন্তু আমরা দেখলাম তিনি প্রশান্তবাবুর বিরুদ্ধে অনাস্থা মিটিংয়ে যোগ দিলেন। তিনি দল বিরোধী কাজ করেছেন। তাই জেলা বিজেপির পক্ষ থেকে ওই কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে আমরা রাজ্যে রিপোর্ট পাঠিয়েছি। তা গৃহীত হলেই তার বিরুদ্ধে কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে। যারা দলীয় শৃঙ্খলা মানবেন না, তাদের দলে কোনো জায়গা নেই।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

কিন্তু যেখানে দল তাকে নির্দেশ দিয়েছিল, সেখানে কেন তৃণমূলের হয়ে পৌরসভার চেয়ারম্যান প্রশান্ত মিত্রের বিরুদ্ধে ভোট দিলেন তিনি! এদিন এই প্রসঙ্গে গঙ্গারামপুর পৌরসভার বিজেপি কাউন্সিলর অশোক বর্ধন বলেন, “আমি বরাবরই দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে এসেছি। গঙ্গারামপুরে বিপ্লব মিত্র এবং তার সাঙ্গ-পাঙ্গদের বাড়বাড়ন্তের বিরুদ্ধে আমি লোকসভা নির্বাচনের সময় বিজেপিতে যোগ দিয়েছি। এখনও আমি বিজেপিতেই রয়েছি। দুর্নীতির বিরুদ্ধে অবস্থান নিতেই অনাস্থা সভায় অংশ নিয়ে আমি নিজের মত প্রকাশ করেছি। দলের বিরুদ্ধে আমি কোথাও কিছু বলিনি বা কোনো কাজ করিনি। তাই দল আমার বিরুদ্ধে কি ভাবছে, তা আমার জানা নেই।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, মূলত বিপ্লব মিত্রর বিরুদ্ধেই মূল লড়াই এই অশোক বর্ধনের। আর তাইতো তিনি লোকসভা নির্বাচনের সময় তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। আর এবার বিপ্লববাবু সেই বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় তার ভাইকে গঙ্গারামপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান পদ থেকে সরানোর জন্য তৃণমূল অনাস্থা ভোটে সেইখানে বিপ্লববাবুর ভাইয়ের বিরুদ্ধে তৃণমূলের পক্ষে থেকে ভোট দিতে দেখা যায় বিজেপি কাউন্সিলরকে।

যা নিয়ে সরগরম হয়ে ওঠে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা। এই পরিস্থিতিতে শৃঙ্খলা যাতে না ভাঙ্গে, তার জন্য সেই বিজেপি কাউন্সিলর অশোক বর্ধনের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নেয়ার হুঁশিয়ারি দিলেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা বিজেপি নেতৃত্ব। কিন্তু শেষ পর্যন্ত সেই কাজ বিজেপির জেলা নেতৃত্ব ঠিক কতটা কঠোরভাবে করতে পারে, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

Top
error: Content is protected !!