এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী মুখ হওয়ার ‘শর্তেই’ বোর্ড প্রেসিডেন্ট সৌরভ? ক্রমশ তীব্র হচ্ছে জল্পনা

বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী মুখ হওয়ার ‘শর্তেই’ বোর্ড প্রেসিডেন্ট সৌরভ? ক্রমশ তীব্র হচ্ছে জল্পনা

পৃথিবীর সবথেকে ধনী ক্রিকেট বোর্ড বিসিসিআইয়ের সর্বোচ্চ পদে বসেছেন বাংলার গর্ব সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। জগমোহন ডালমিয়ার পর আরেক বাঙালি প্রশাসক হিসাবে ভারতীয় ক্রিকেটের সর্বোচ্চ পদে। কিন্তু, এই দুর্দান্ত আনন্দের অবহেও প্রবলভাবে ভেসে উঠছে রাজনীতি। সৌরভ গাঙ্গুলি বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট হতেই জল্পনা চলছে যে – বাংলার পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী মুখ হিসাবে বিজেপিকে সবুজ সঙ্কেত দিতেই – তিনি নাকি এই পদে বসতে পেরেছেন।

সৌরভ গাঙ্গুলির সঙ্গে বিজেপি যোগের জল্পনা নতুন নয়। ২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদী যখন প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার জন্য সলতে পাকাচ্ছিলেন, তখনই নাকি গেরুয়া শিবিরের তরফে সৌরভ গাঙ্গুলিকে ‘অফার’ দেওয়া হয়, বিজেপির টিকিটে বাংলার কোনো এক আসন থেকে লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে। আর জিতলেই কেন্দ্রে মন্ত্রীত্ব নাকি বাঁধা। কিন্তু, সেই ‘অফার’ পত্রপাঠ ‘মাঠের বাইরে’ পাঠিয়ে দেন সৌরভ গাঙ্গুলি। তখন নাকি, স্বয়ং নরেন্দ্র মোদী সৌরভ গাঙ্গুলিকে গুজরাটের কোনো ‘সুরক্ষিত’ আসন থেকে জিতিয়ে এনে কেন্দ্রে ক্রীড়ামন্ত্রকের দায়িত্ব দিতে চান।

কিন্তু, সেই প্রস্তাবেও রাজি হন নি বাংলার ‘মহারাজ’। এরপর বাংলার ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগেও জল্পনা ছড়ায় যে সৌরভ গাঙ্গুলি বিজেপিতে যোগদান করছেন। আর এবার ফের! বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হতে থাকে যে, মুম্বইতে বিসিসিআইয়ের সভার আগে, দিল্লিতে সৌরভ গাঙ্গুলির সঙ্গে একপ্রস্থ আলোচনা সারেন খোদ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। সেখানে তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে সভাপতি পদে মনোনয়ন পেলে, তবেই এগোবেন – নচেৎ নয়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

অমিত শাহের সেই আশ্বাস নিয়েই গতকাল বৈঠকে ঢোকেন ‘দাদা’। কিন্তু, বৈঠক যত এগোতে থাকে, ততই দেখা যায় পিছনে চলে যাচ্ছে সৌরভ গাঙ্গুলির নাম। কর্ণাটকের ব্রিজেশ পটেলের নাম প্রায় চূড়ান্ত। এই সময়েই, খেলা ধরেন সৌরভ গাঙ্গুলির বন্ধু বলে পরিচিত অনুরাগ ঠাকুর। তিনি সরাসরি ফোন করেন অমিত শাহকে – আর অমিত শাহ এরপরে দেন এক শর্ত! সেই শর্তে রাজি হতেই নাকি শেষমেশ সৌরভ গাঙ্গুলির নামে সিলমোহর পরে।

কিন্তু, কি সেই শর্ত? বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, অমিত শাহ নাকি সরাসরি বাংলায় বিজেপির মুখ্যমন্ত্রী মুখ হওয়ার জন্য সৌরভ গাঙ্গুলিকে বলেন। আর তাতে রাজি হতেই, নাকি মিলেছে বোর্ড প্রেসিডেন্টের তখত। এই নিয়ে বিজেপি প্রভাবিত বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়ার গ্রূপেও পোস্টের ঝড় উঠে যায়। আর তারফলেই ক্রমশ তীব্র হতে থাকে ‘মহারাজের’ বিজেপি যোগের জল্পনা। জল্পনা এমন পর্যায়ে পৌঁছায় যে, শেষমেশ সাংবাদিকরা সরাসরি এই ব্যাপারে প্রশ্নই করে ফেলেন সৌরভ গাঙ্গুলিকে।

কিন্তু, ‘দাদা’ আবারো মাহারাজসিক ভঙ্গিতে তাঁর রাজনীতি যোগের সমস্ত জল্পনাকে মাঠের বাইরে ফেলে দিয়েছেন। তিনি এদিন জানিয়েছেন, বোর্ডের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই এই সময়ে প্রেসিডেন্ট হতে পারায় খুশি। কিছু করার জন্য দারুণ সুযোগ পেয়েছি। বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় হোক বা অন্য ভাবেই হোক, এটা মস্ত বড় দায়িত্ব। কারণ, বিসিসিআই বিশ্ব ক্রিকেটের সবচেয়ে বড় সংস্থা। ভারত হল ক্রিকেটের পাওয়ারহাউস। এই দায়িত্ব তাই রীতিমতো চ্যালেঞ্জিং।

কিন্তু, বিজেপিতে যোগ দেওয়া বা বিজেপির মুখ হওয়া? সেই ব্যাপারে সোজাসাপ্টা জবাব তাঁর, একেবারেই এমন কিছু নয়। কেউই এই ব্যাপারে আমাকে কিছু বলেনি। এদিকে এই ব্যাপারে বিজেপির অন্দরমহলে ঢুঁ মারলে, সেখানেও এই নিয়ে কিছু নেই! বিজেপির এক প্রভাবশালী নেতা স্পষ্ট বলে দিলেন, সৌরভ গাঙ্গুলির ক্রিকেটীয় জ্ঞানকে গোটা ভারত শ্রদ্ধা করে – সেই হিসাবেই তাঁকে ভারতীয় ক্রিকেটের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এর সঙ্গে দয়া করে রাজনীতি জড়াবেন না।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!