এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > চাইলেও বিজেপি বাংলার পুজো দখল করতে পারবে না, গেরুয়া শিবিরের উদ্দেশ্যে চ্যালেঞ্জ বর্ষিয়ান মন্ত্রীর

চাইলেও বিজেপি বাংলার পুজো দখল করতে পারবে না, গেরুয়া শিবিরের উদ্দেশ্যে চ্যালেঞ্জ বর্ষিয়ান মন্ত্রীর

লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির বাংলায় প্রভাব বাড়ার সাথে সাথেই ক্রীড়া ময়দান, টলি জগতে প্রভাব বাড়াতে শুরু করে গেরুয়া শিবির। যার ফলে সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে গেরুয়া শিবিরের দাপাদাপিতে কিছুটা হলেও আতঙ্কিত হয়ে পড়ে রাজ্যের শাসক দল। সম্প্রতি বিভিন্ন পুজো হওয়া ক্লাবগুলিতেও গেরুয়া শিবিরের দাপট বাড়তে পারে বলে জল্পনা ছড়ায়। তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাড়ার ক্লাব সংঘশ্রীর পুজো বিজেপির দখলে আসছে বলে দাবি করেন একাংশ।

কিন্তু বাংলার পুজো দখল করা যে অতটা সহজ নয়, তা নিজের ক্লাব একডালিয়া এভারগ্রীনের খুঁটিপুজোয় অংশ নিয়ে জানিয়ে দিলেন রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। সূত্রের খবর, রবিবার একডালিয়া এভারগ্রীনের খুঁটিপুজোয় অংশ নেন রাজ্যের মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়, শোভন দেব চট্টোপাধ্যায় এবং চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য। আর সেখানেই বিজেপির এই পশ্চিমবাংলার একাধিক ক্লাব দখলের জল্পনাকে উড়িয়ে দেন রাজ্যের বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ তথা প্রবীণ মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়।

তিনি বলেন, “বিজেপি চাইলেও পশ্চিমবাংলার পুজোকে দখল করতে পারবে না। আগে এই বছরটা ওরা আমাদের কাছে ট্রেনিং নিক। পঞ্চায়েত, এমএলএ যে স্টাইলে ওরা দখল করেছে, সেই স্টাইলে পূজা দখল করতে চাইছে। এভাবে এসব হয় না।” শুধু তাই নয়, এদিন এই খুঁটিপুজোর সূচনাতে বিজেপির সংকীর্ণ রাজনীতি নিয়েও গেরুয়া শিবিরের উদ্দেশ্যে খোঁচা দেন রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী। অন্যদিকে বিজেপির পুজো দখলের রাজনীতি নিয়ে এদিন কটাক্ষের সুর শোনা যায় রাজ্যে বিদ্যুৎমন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের গলাতেও।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

এদিন তিনি বলেন, “এই রাজ্যের পুজো ওভাবে কব্জা করা যায় না। পুজো যদি কব্জা করতে হয়, তাহলে বিজেপিকে মুখ থুবরে পড়তে হবে।” বিশেষজ্ঞদের মতে, লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই তৃণমূলের অনেক জনপ্রতিনিধিকে বিজেপি নিজেদের দিকে টানতে শুরু করেছে। আর এবার বাংলার সংস্কৃতি অনুযায়ী প্রধান উৎসব দুর্গাপুজোতে যাতে আরও বেশি করে সাধারণের সঙ্গে মেশা যায়, তার জন্য দলের নেতৃত্বকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

আর তাইতো বিভিন্ন ক্লাবের পূজোকে নিজেদের বাগে আনতে তৎপর হয়েছিল গেরুয়া শিবির। কিন্তু এবার সেই ইস্যুতেও বিজেপিকে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিতে দেখা গেল রাজ্যের শাসকদলের নেতা মন্ত্রীদের। ফলে এবার শারদোৎসব নিয়েও প্রকাশ্যে চলে এল শাসক-বিরোধী রাজনৈতিক তরজা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!