এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিজেপি প্রার্থী অনিশ্চয়তার মুখে, জেনে নিন বিস্তারিত

বিজেপি প্রার্থী অনিশ্চয়তার মুখে, জেনে নিন বিস্তারিত

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বাংলা বিজেপির মূল টার্গেট হলেও এরাজ্যে বিজেপির প্রার্থী তালিকা ঘোষণায় দেরি হওয়া নিয়ে নানা মহলে তৈরি হয়েছিল নানা জল্পনা। আর এবার প্রার্থী ঘোষণা হয়ে গেলেও রানাঘাটের বিজেপি প্রার্থী মুকুটমণি অধিকারীকে নিয়ে তৈরি হল প্রবল অনিশ্চয়তা।

সূত্রের খবর, পেশায় সরকারি চিকিৎসক এই মুকুটমণি অধিকারী রাজ্য সরকারের কাছে গচ্ছিত রাখা 5 বছরের বন্ড ছাড়া নিয়েই এখন তীব্র জটিলতা তৈরি হয়েছে। জানা গেছে, প্রায় এক মাস আগেই স্বাস্থ্য ভবনে তিনি তার পদত্যাগপত্র পাঠালেও এখনও পর্যন্ত তার পদত্যাগপত্র গৃহীত হয়নি।

ফলে আগামী 9 এপ্রিল এই রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন হলেও ঠিক কবে রাজ্য সরকার তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করবে এবং কবেই বা রাজ্যের পক্ষ থেকে তিনি প্রার্থী হওয়ার ব্যাপারে সবুজ সংকেত পাবেন তা নিয়ে প্রবল অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। অনেকে বলছেন, যদি রাজ্য সরকার তার পদত্যাগপত্র গ্রহণ না করে, তাহলে এই রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রে বিজেপি প্রার্থী মুকুটমণি অধিকারী অনেকটাই বিপাকে পড়তে পারেন। হয়তো বা প্রার্থী হিসেবে তাকে সরেও যেতে দেখাতে পারে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে সেই মুকুটমণি অধিকারী বলেন, “একমাস আগে আমি স্বাস্থ্য ভবনে পদত্যাগপত্র পাঠিয়েছি। বিরোধীদলের হয়ে ভোটের ময়দানে নেমেছি বলেই ইচ্ছাকৃতভাবে আমার পদত্যাগপত্র গ্রহণ করা হচ্ছে না। কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব গোটা বিষয়টি দেখভাল করছে। আশা করি দুই একদিনের মধ্যেই জটিলতা কেটে যাবে।”

এদিকে সার্ভিস রুল অনুযায়ী সরকারি চাকরিতে যোগদানের পাঁচ বছরের মধ্যে পদত্যাগ করা যায় না বলে জানিয়ে দিয়েছেন রাজ্যে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিকর্তা অজয় রায়। এদিকে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে যদি রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী মুকুটমণি অধিকারীর পদত্যাগপত্র গ্রহণ না করা হয় তাহলে তিনি যদি প্রার্থী হিসেবে দাঁড়াতে না পারে তাহলে কি বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব কোনো রকম আইনি পদক্ষেপ নেবে! এই ব্যাপারেও তৈরি হয়েছে নানা জল্পনা। সব মিলিয়ে এখন রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী মুকুটমণি অধিকারীর ভবিষ্যত ঠিক কি হয় এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!