এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিজেপিকে বাংলায় রাজনীতিই করতে দিচ্ছে না রাজ্য প্রশাসন, দিল্লীতে বড়সড় পদক্ষেপে ঝড় গেরুয়া শিবিরের

বিজেপিকে বাংলায় রাজনীতিই করতে দিচ্ছে না রাজ্য প্রশাসন, দিল্লীতে বড়সড় পদক্ষেপে ঝড় গেরুয়া শিবিরের

রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস বনাম কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপির মধ্যে রাজনৈতিক সংঘাত ইতিমধ্যেই চরমে উঠেছে। সম্প্রতি কোলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে সিবিআই হানা নিয়ে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে দেশের গণতন্ত্র ও সংবিধান প্রতিষ্ঠার জন্য মেট্রো চ্যানেলে ধর্নায় বসেছেন তৃনমূল সুপ্রিমো তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আর এই ঘটনা নিয়ে যখন কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সরব হয়ে রাজ্যে ময়দান কাঁপাচ্ছে তৃনমূল কংগ্রেস, ঠিক তখনই বঙ্গে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বদের সভা করতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ তুলে রাজ্যের ওপর পাল্টা চাপ সৃষ্টি করতে আসরে নামল বিজেপি। সূত্রের খবর, বাংলায় গনতন্ত্র ধুলুন্ঠিত এই অভিযোগ করে কেন্দ্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী নির্মলা সীতারামনের নেতৃত্বে বিজেপির আট সদস্যের এক প্রতিনিধি দল নির্বাচন কমিশনের সাথে দেখা করে।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে, বিজেপির প্রতিনিধি দলের পক্ষ থেকে নির্বাচন কমিশনের কাছে আসন্ন লোকসভা নির্বাচন যাতে রাজ্যে সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করা যায় এবং রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের সন্ত্রাসের কথাও তুলে ধরা হয়। এদিন এই নির্বাচন কমিশনের সাথে দেখা করে বাইরে বেরিয়ে বিজেপির কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী নির্মলা সীতারামন বলেন, “বাংলায় বিজেপির বাড়বাড়ন্তে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভয় পেয়েছেন। তাই আমাদের কেন্দ্রীয় নেতা বা উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী সভা করতে গেলেও তাঁর হেলিকপ্টার নামানোর অনুমতি দিচ্ছে না রাজ্য প্রশাসন। রাজ্যের পুলিশ- প্রশাসনকে দলদাসে পরিণত করে তৃনমূল ভয়ের পরিবেশ তৈরি করছে।”

অন্যদিকে এদিন বিজেপির এই প্রতিনিধি দলে থাকা কেন্দ্রের বিজেপি নেতা মুক্তার আব্বাস নাকভি এবং কৈলাশ বিজয়বর্গীয় বলেন, “বাংলায় ভয়ঙ্কর অবস্থা সৃষ্টি করছে তৃনমূল। লোকসভা নির্বাচনের আগে দ্রুত এই ভয়ের পরিবেশকে কাটিয়ে তুলতে হবে।”

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, লোকসভা নির্বাচনের আগে বাংলার 42 টি আসনের মধ্যে 22 টি আসন নিজেদের দখলে রাখার টার্গেট নিয়েছেন বিজেপির মোদী-শাহ জুটি। তাই এবার সেই লোকসভায় বঙ্গে পদ্ম ফোটাতে আগেভাগেই বাংলার সুষ্ঠ গনতন্ত্রের দাবিতে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ কেন্দ্রের বিজেপির প্রতিনিধি দল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!