এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিজেপির মুখোশ খুলে গেছে, আমাদের আমলে শ্রমিকরা সুবিধা পাচ্ছে – আসানসোলে ঝড় তুললেন দুই মন্ত্রী

বিজেপির মুখোশ খুলে গেছে, আমাদের আমলে শ্রমিকরা সুবিধা পাচ্ছে – আসানসোলে ঝড় তুললেন দুই মন্ত্রী


গতকাল শিল্পশহর মুখরিত হল মোদী বিরোধী ভাষণে। আসানসোলে পোলো গ্রাউন্ডে একটি শ্রমিকমেলার ফিতে কাটতে এসে বিজেপির বিরুদ্ধে বিষোদগার করলেন শ্রমদপ্তরের দুই মন্ত্রী। একজন খোদ শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক এবং অন্যজন রাষ্ট্রমন্ত্রী নির্মল মাঝি। মঞ্চে উঠে বক্তব্য রাখতে গিয়ে বিজেপি বিরোধীতায় সরব হলেন শ্রমমন্ত্রী।

একইসুর শোনা গেল নির্মল মাঝির গলাতেও। দুদিনের এই মেলায় বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এই মেলা থেকে ১ হাজার ৭৮ জনকে ১ কোটি ৩৭ লক্ষ ২৭৮ টাকা দিয়ে সহায়তা করা হবে বলেই জানা গিয়েছে।

এদিন বক্তব্য রাখতে উঠে প্রথম থেকে মলয়বাবুকে বিজেপির বিরুদ্ধে আক্রমণাত্মক মেজাজে দেখা যায়। বলেন,শুধুমাত্র কেন্দ্রের ক্ষমতায় আসার জন্যে দেশবাসীকে নানান মিথ্যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন মোদী। এই পোলো গ্রাউন্ডে এসেই মোদী বলেছিলেন,প্রত্যেক নাগরিকের অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ করে টাকা দেবে কেন্দ্রীয় সরকার। ১৫ লক্ষ টাকা তো দূরের কথা,এতোদিনে ১৫ টাকাও কারোর অ্যাকাউন্টে জমা পড়েনি।

উল্টে বিজেপি ক্ষমতায় এসে হিন্দুস্থান কেবলস,বার্ন স্ট্যান্ডার্ডের মতো কারখানা বন্ধ করেছে। গত পাঁচ বছরে বিজেপির প্রকৃত স্বরূপ সামনে এসেছে। এখন আর বিজেপি মানুষকে ধোকা দিতে পারবে না। এরপর উত্তরপ্রদেশের গোরক্ষপুরের গোহত্যার ঘটনাকে কেন্দ্র করে বিজেপিকে কটাক্ষ করেন তিনি। বলেন,”আগে মানুষ বাঘ, সিংহকে ভয় পেত। কিন্তু, এখন গোরুকে দেখেও ভয় লাগছে। বিজেপি একে অপরের সঙ্গে লড়াই লাগাতে চাইছে। সব জায়গাতেই তারা এই কাজ করে ফায়দা তোলার চেষ্টা করছে।”

 

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

বিজেপির পাশাপাশি বামফ্রন্টকে একহাত দিয়ে দেন তিনি। বলেন, ২০০০-২০০১ সাল পর্যন্ত শ্রমিকরা মাত্র ৯ কোটি টাকা অনুদান পেয়েছিল কিন্তু তৃণমূল রাজ্যের ক্ষমতায় আসার পর গত সাত বছরে শ্রমিকদের বছরে ১ হাজার ৩০০ কোটি টাকা অনুদান দিয়েছে। রাজ্যের মানুষ বুঝেছে তৃণমূলের সঙ্গে বামেদের পার্থক্যটা কোথায়!

এর পাশাপাশি বামেদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে বলেন,বামফ্রন্ট জামানায় আসানসোলে গ্লাস ফ্যাক্টরি,সাইকেল কারখানা,ব্লু-ফ্যাক্টরি সহ একাধিক কারখানা বন্ধ হয়েছিল। শ্রমিকদের চরম ভোগান্তির শিকার হতে হয় সেসময়। সেই সিপিএমের পদাঙ্ক অনুসরণ করে বিজেপিও একইভাবে এখানে কারখানা বন্ধ করেছে। এই শিল্পশহরে ২০ টি কয়লাখনি বন্ধ করেছে বিজেপি, এমনটাই দাবী করেন রাজ্যের শ্রমমন্ত্রী।

একইরকমভাবে বিজেপিকে আক্রমণ শানিয়ে নির্মলবাবু বলেন,মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আমলেই রাজ্যের শ্রমিকরা সবথেকে বেশি সুবিধা পাচ্ছেন। ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে দিল্লির চাবি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতে থাকবে বলেই দাবী করেন তিনি। পাশাপাশি জনস্বাস্থ্য কারিগরি দপ্তরের মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরাও রাজ্যসরকারের বিভিন্ন প্রকল্পের সুবিধাগুলো বক্তব্যে তুলে ধরেন। জেলাপরিষদের সভাধিপতি শ্রমিকদের উদ্দেশ্য করে বলেন,”আমরা যখন ভোট চাইতে যাব, তখন আপনারাও নিশ্চিত সহযোগিতা করবেন।”

উল্লেখ্য,এদিন আসানসোল মহাকুমার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে হাজারে হাজারে শ্রমিক এসেছিলেন পোলো গ্রাউন্ডে। তাই আসন্ন লোকসভা ভোটকে টার্গেট করেই এই শ্রমিক ভোটব্যাঙ্কগুলো দখলে রাখতে ভাষণে বিজেপিবিরোধী শ্লোগানকে প্রখর করে তুললেন রাজ্যের মন্ত্রীরা। এমনটাই অভিমত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের। এদিন মেলার উদ্বোধনে ওই দুই মন্ত্রী ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন জনস্বাস্থ্য ও কারিগরি দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা, এডিডিএ-র চেয়ারম্যান তাপস বন্দ্যোপাধ্যায়, জেলা পরিষদের সভাধিপতি সুভদ্রা বাউরি সহ শ্রম দপ্তরের আধিকারিকরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!