এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ভাঙ্গড়ের পচা নেতা বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে প্রকাশ্য সভা থেকে জল্পনা বাড়ালেন কাইজার

ভাঙ্গড়ের পচা নেতা বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে প্রকাশ্য সভা থেকে জল্পনা বাড়ালেন কাইজার

Priyo Bandhu Media


ভাঙ্গড়ে তৃণমূলের কাইজার বনাম আরাবুলের দ্বন্দ্ব নতুন কিছু নয়। লোকসভা নির্বাচন উপলক্ষে নেত্রীর হুশিয়ারবাণীতে সেই দ্বন্দ্ব কিছুটা কমলেও এবার নির্বাচন পর্ব সম্পন্ন হতে না হতেই ফের একে অপরের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মন্তব্য করতে শুরু করলেন শাসকদলের এই দুই হেভিওয়েট নেতা।

প্রসঙ্গত, এবারের লোকসভা নির্বাচনে সারা রাজ্যে তৃনমূল খুব একটা ভালো ফল না করলেও যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থী মিমি চক্রবর্তী বেশ ভালো ভোটেই জয়লাভ করেছে। যেখানে এই যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত ভাঙ্গর বিধানসভা থেকে বিপুল লিড পেয়েছেন তৃণমূল প্রার্থী। আর সেই ব্যাপারে এদিন ভাঙ্গড় থানার সামনে ভাঙড় 1 ব্লকের তৃণমূল সভাপতি কাইজার আহমেদের পক্ষ থেকে যাদবপুরের তৃণমূল প্রার্থী মিমি চক্রবর্তীকে সংবর্ধিত করবার জন্য একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল।

আর সেই মঞ্চ থেকেই ভাঙ্গড়ের তৃণমূল নেতা আরাবুল ইসলামকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন তৃণমূলের কাইজার আহমেদ। অন্যদিকে আরাবুল ইসলামকে পচা নেতা বলেও অভিহিত করেন কাইজার আহমেদ।  এদিন দাবি করেন যে,  ভাঙ্গড় 2 পঞ্চায়েত সমিতির তৃণমূলের সহ-সভাপতি আরাবুল ইসলামের সঙ্গে বিজেপি যোগের অভিযোগ তুলে কাইজার আহমেদ বলেন, “আরাবুল অনুগামী প্রাক্তন জেলা পরিষদ সদস্য মীর তাহের আলী সহ আরাবুলের অন্যান্য অনুগামীরা বিজেপির পতাকা নিয়ে এলাকায় এলাকায় গুন্ডামী শুরু করেছে। পোলেরহাটের মানুষের উপর অত্যাচার করা হচ্ছে। আর এর ফলে আমাদের দলের বদনাম হচ্ছে।”


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিকে কাইজারের এহেন মন্তব্যের পাল্টা মুখ খুলেছেন আরাবুল ইসলাম। তিনি বলেন, “কাইজারের নিজের ঠিক নেই। ওর বাবা সিপিএম করত, এখন তৃণমূল করছে। কাইজারকে আমি হাত ধরে দলে নিয়ে এসেছিলাম। এখন কাইজার আর ওর ভাই মিলেই তলে তলে বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে। যে কোনদিনও বিজেপিতে চলে যেতে পারে‌। ও একটা চরিত্রহীন। আমাকে কি বলল, তাতে কিছু আসে যায় না।”

রাজনৈতিক মহলের অনেকেই বলছেন, এবারের নির্বাচনে রাজ্যে তৃণমূলের ভরাডুবি নিয়ে দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব অনেকটাই দায়ী। আর তৃণমূলের 42 এ 42 এর স্বপ্ন ভেস্তে যাওয়ার পর যেভাবে ভাঙ্গরে কাইজার বনাম আরাবুলের দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে এল তাতে দলের ভরাডুবির পরও কেন নেতারা এখনও পর্যন্ত নিজেদের আচরণকে শুধরে নিচ্ছেন না, তা নিয়ে একটা প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!