এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > বিজেপি টাকা ছড়াচ্ছে: তৃণমূল, রাজ্য তৃণমূলের সন্ত্রাসে কাঁপছে: বিজেপি

বিজেপি টাকা ছড়াচ্ছে: তৃণমূল, রাজ্য তৃণমূলের সন্ত্রাসে কাঁপছে: বিজেপি

পঞ্চায়েত ভোটের প্রচার শেষ অথচ ছোট-বড় রাজনৈতিক হিংসা থামছে না মোটেই। সন্ত্রাস রাজনীতির জেরে এখনো থমথমে পঞ্চায়েত এলাকাগুলো। জানা গেছে হরিহরপাড়ায় এক বিজেপি কর্মীকে গুলিতে জখম করেছে তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। একই রকম অভিযোগ এসেছে পুরুলিয়া, ও বীরভূমের গেরুয়া শিবির থেকে। সব ক্ষেত্রেই অভিযোগের তীর শাসকদলের দিকে। আবার উল্টো খবরও এসেছে অনেক জায়গা থেকে। যেমন উওর দিনাজপুরে ফরওয়ার্ড ব্লক – তৃণমূল সংঘর্ষে আহত হয়েছেন এক তৃণমূলকর্মী। একইরকম খবরের নজির পাওয়া গেছে ক্যানিং এর ঘাসফুল দল থেকেই।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এরকম পরিস্থিতির মাঝেই শাসকদল ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচনে নিজেদের জয়ের ব্যাপারে আশ্বাস প্রদান করলেন। আগামীকালই ভোট। তবে তার আগেই তৃণমূল কংগ্রেস মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় নির্বাচন কমিশনকে অভিযোগে জানালেন, বিজেপি নেতারা নাকি ভোটের আগেই ভোটারদের প্রভাবিত করতে নগধ টাকা দিচ্ছেন। ইতিমধ্যে আলিপুরদুয়ার ও জলপাইগুড়িতে দুই বিজেপি নেতা টাকার ব্যাগ হাতে গ্রেফতার হয়েছেন। তবে এ তথ্য ভিত্তিহীন দাবী করে রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানান যে ওটা নাকি দলের টাকা। নির্বাচন কমিশনকে দলই নাকি হিসাব দেবে।
রাজনৈতিক সূত্রের খবর থেকে জানা যাচ্ছে বামফ্রন্ট ভোটারের ঐক্যবদ্ধ হয়ে ভোট দিতে যাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছে। রাজ্য বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু বলেছেন, ”ভোট দিতে গেলেই ওরা (তৃণমূল কংগ্রেস) মারবে। রক্তপাত হবে। কিন্তু নিজের গণতান্ত্রিক অধিকার ছেড়ে দিলে চলবে না। তাই একসঙ্গে ভোট দিতে যাওয়ার কথা বলছি।” তবে এরই সঙ্গে তিনি এটাও জানান যে অনেক জায়গায় নাকি তৃণমূল কংগ্রেসই বিজেপিকো মনোনয়ন জমা দিতে সাহায্য করছে। তাই অনেক জায়গায় বিজেপি জিতলেও তৃণমূল কংগ্রেসই ভালো ফল ভোগ করবে। অন্যদিকে কংগ্রেসও আত্মবিশ্বাস দেখাতে পারছে না মুর্শিদাবাদ ও মালদহের আসন নিয়ে। রাজ্য কংগ্রেস দলনেতা আবদুল মান্নানের বক্তব্য, ”মালদহে কিছু জায়গায় তাও মনোনয়ন জমা দেওয়া গিয়েছে, কিন্তু মুর্শিদাবাদে ওরা (তৃণমূল কংগ্রেস) দিতেই দেয়নি।”প্রশ্ন ওঠে কংগ্রেস ও সিপিএমের অঘোষিত জোট ইতিবাচক ফলাফল দেবে কিনা! সে প্রসঙ্গে আবদুল মান্নান জানান যে তাঁরা নাকি মিলিতভাবে ফ্যাসিবাদী শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করছেন। অন্যদিকে,পদ্মশিবির বলেই দিয়েছে শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের আশা করাটাই ‘অন্যায়’ হবে। বিজেপির জাতীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা জানান, ”দুই থেকে তিন হাজার প্রার্থী এলাকা ছাড়া। কমিশনকে বলে লাভ নেই। ২০ হাজার আসনে মনোনয়ন দিতে পারা যায়নি। সারা রাজ্য তৃণমূলের সন্ত্রাসে কাঁপছে।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!