এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > দাঙ্গা লাগাচ্ছে বিজেপি, আছে পুলিশের দায়, তবুও বাংলা “ভালো আছে”! জানালেন মুখ্যমন্ত্রী

দাঙ্গা লাগাচ্ছে বিজেপি, আছে পুলিশের দায়, তবুও বাংলা “ভালো আছে”! জানালেন মুখ্যমন্ত্রী

লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পর থেকেই রাজ্যে তার দলের ভরাডুবি ঠিকমতো মেনে নিতে পারেননি তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর আশ্চর্যজনকভাবে 2009 সালের লোকসভা নির্বাচনে যখন তৎকালীন বাম সরকারের ফলাফল খারাপ হয়েছিল এবং তৃণমূলের উত্থান ঘটেছিল, ঠিক তখন যেমন রাজ্যে রাজনৈতিক হিংসার ঘটনা ঘটছিল, ঠিক একইভাবে বর্তমানে তৃণমূলের ভরাডুবি এবং প্রবল ভাবে বিজেপির উত্থানে সেই ঘটনারই পুনরাবৃত্তি হতে শুরু করল।

সম্প্রতি বসিরহাটের সন্দেশখালির ন্যাজাটে ভাঙ্গিপাড়া গ্রামে রাজনৈতিক হিংসার বলির মত ঘটনা ঘটেছে। আর রাজ্যের এই উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে অনেকেই প্রশাসনিক প্রধান হিসেবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিবৃতির দিকেই তাকিয়ে ছিল। তিনি এলেন, বিবৃতিও দিলেন। কিন্তু যে কথা বললেন, তা প্রশাসনিক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অপেক্ষা বিজেপি বিরোধী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই যেন স্পষ্ট করে ফুটিয়ে তুলল।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, আজ নবান্নে রিভিউ মিটিংয়ের পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এই প্রসঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “বিজেপি উস্কানি দিয়ে দাঙ্গা বাধানোর চেষ্টা করছে। বাংলা ভালো আছে। রাজ্যের কোথাও কোথাও পুলিশ ঠিকমতো দায়িত্ব পালন করছে না। সেসব খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

অনেকে বলছেন, 2011 সালের পর থেকে এই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই দেখা গেছে। যিনি একসময় সিঙ্গুর, নন্দীগ্রামের মতো জায়গায় সাধারণ মানুষের অধিকার এবং দাবি নিয়ে তৎকালীন বাম সরকারের বিরুদ্ধে সরব হতেল, সেই তিনিই ক্ষমতায় আসার পর পার্কস্ট্রিট গণধর্ষণ কাণ্ড হোক, কিংবা কামদুনি – প্রতিটি ঘটনায় সিপিএম জড়িত এবং সাজানো এবং ছোট্ট ঘটনা বলে দায় এড়িয়ে যেতেন। আর বর্তমানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক পাঠশালা থেকে সেই সিপিএম নামক ভূত সরে যাওয়ায় এবার সব ব্যাপারেই বিজেপি ভূত দেখতে শুরু করেছেন তিনি।

সমালোচকদের মতে, মমতা বন্দোপাধ্যায়ের কোনো পরিবর্তন হয়নি। পরিবর্তন হয়েছে তার মানসিকতার। সাদা শাড়ি, পায়ে হাওয়াই চপ্পল এবং তার আচার-আচরণ ঠিক থাকলেও বিরোধী থেকে শাসক হয়ে যাওয়া মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখন সব কিছুতেই বিরোধীদের চক্রান্ত দেখতে পাচ্ছেন। আর তাইতো সন্দেশখালির এই নৃশংস ঘটনার পর যে সমস্ত মানুষেরা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিবৃতির দিকে তাকিয়ে ছিলেন, তারা এখন বিজেপি বিরোধী তথা রাজনৈতিক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিবৃতি দেখে মাথা কুটছেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!