এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > একের পর এক বিজেপি কর্মীর মৃত্যুতে তীব্র ক্ষোভ বাবুল থেকে অমিতের,সিবিআইয়ের দাবি

একের পর এক বিজেপি কর্মীর মৃত্যুতে তীব্র ক্ষোভ বাবুল থেকে অমিতের,সিবিআইয়ের দাবি

পঞ্চায়েত নির্বাচন পর্ব থেকেই একের পর এক বিজেপি নেতা খুনের অভিযোগ উঠেছে। এবং এখনো সেই অভিযোগ অব্যাহত রয়েছে। সম্প্রতি বিজেপি কর্মী ত্রিলোচন মাহাতোর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করেছিলো পুলিশ। এর দিন তিনেক পর বলরামপুরের ডাভা গ্রামে দুলাল কুমার নামের বিজেপি কর্মীর দেহ একইভাবে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। এই ঘটনা সামনে এলে তীব্র বিক্ষোভ ছড়ায় এলাকাবাসীর ভিতর। অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি সামলাতে পুলিশ লাঠি চার্জও করে। ব্যাপক সংঘর্ষ হয় স্থানীয়দের সাথে পুলিশের। জানা যায়, প্রায় সাড়ে তিন ঘন্টা ধস্তাধস্তির পর দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরপর দুই একই ঘটনার পুনরাবৃত্তিতে যথেষ্ট নড়াচড়া দেখা গেছে রাজ্য বিজেপিমহল থেকে কেন্দ্রীয় স্তরে। স্বাভাবিকভাবে অভিযোগের অভিমুখ ঘুরেছে শাসকদলের দিকে। অভিযোগে সরব হয়ে বিজেপি পার্টি জানিয়েছে যে পরিকল্পনা করে উদ্দেশ্য নিয়েই তাঁদের কর্মীকে খুন করেছে তৃণমূল।

এই ঘটনার প্রতিবাদে চড়া সুরে আওয়াজ তুলেছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি জানান, রীতিমতো ছক কষে খুন করা হয়েছে ওই বিজেপি কর্মীকে।সিবিআই তদন্ত না হলে সত্য সামনে আসবে না। তবে তাঁর দাবী সিবিআই তদন্তটাই ঠিকঠাক হতে দেবে না শাসকদল। এই ঘটনার তীব্র নিন্দা এবং শোক প্রকাশ করেছেন বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়ও। ওদিকে বিজেপির মুখপাত্র অমিত শাহও একই দিকে তাল দিয়ে এদিন ট্যুইটারে জানান যে পশ্চিমবঙ্গে আরো এক বিজেপি নেতা খুনে তিনি মর্মাহত। সন্ত্রাস ও খুনের এই ঘটনা অত্যন্ত লজ্জার এবং অমানবিকতার। রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা রক্ষার্থে মমতা ব্যানার্জী একেবারেই ব্যর্থ বলে তিনি দাবী জানিয়েছেন। জানা যাচ্ছে, পদ্মশিবির এদিন বলরামপুরে পর পর তাঁদের দুই কর্মীর মৃত্যুর প্রতিবাদ জানাতে কোলকাতায় মিছিল করেন। অন্যদিকে,তাঁরা সিবিআই তদন্তের দাবী তুলে রবিবার ১২ ঘন্টা বন্ধের ডাকও দিয়েছে পুরুলিয়ায়।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

তবে ঘাস শিবিরের গলায় বাজছে অন্য সুর। তাঁরা স্পষ্টভাবে জানাচ্ছে যে এই দুটি ঘটনার সাথে তাঁরা কোনোভাবেই জড়িত নন। বহিরাগত দুষ্কৃতিরাই এটা ঘটিয়েছে। স্থানীয় তৃনমূল বিধায়ক,শান্তিরাম মাহাতো বলেন, ময়নাতদন্ত করলেই সত্যিটা জানা যাবে যে এটা আত্নহত্যা না খুন। তবে এর সঙ্গে যে রাজনীতির কোনো যোগা্যোগ নেই তা ও তিনি সাফ কথায় জানা যায়। তৃণমূলের রাজ্যসভা সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েন উক্ত ঘটনায় আবার বজরং দল, বিজেপির দিকেই আঙুল তুলছেন। তিনি এই হত্যার তীব্র নিন্দা করে জানান কারা এই কাজ করেছে তাঁদেরকে খুঁজে বের করে কঠোর শাস্তি দেওয়া হোক অবিলম্বে। এই ঘটনায় মাওবাদী,বজরং দল,বিজেপি বা ঝাড়খন্ড সীমানার দুষ্কৃতিরা যুক্ত কিনা সেটাও খতিয়ে দেখতে হবে।

রাজনৈতিক সূত্রের খবর থেকে আরো জানা যায়, দুলাল বাবুর দেহ উদ্ধারের ঘটনায় সাংবাদিকদের সামনে পুলিশ সুপার জয় বিশ্বাস জানান মৃতদেহ প্রাথমিকভাবে পরীক্ষা করে নাকি তাঁর আত্মহত্যা বলেই মনে হয়েছে।  এটা বলায় কয়েক ঘন্টা পরই নবান্নের নির্দেশে সরিয়ে দেওয়া হল তাকে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, ময়নাতদন্ত না করে কীভাবে পুলিশ সুপার এ দাবী করলেন? তাঁর এই মন্তব্যের জেরে তীব্র জল্পনা শুরু হয়েছে রাজ্য রাজনৈতিকমহলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!