এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বাংলায় সাংগঠনিক খোলনলচে বদলাতে বড় সিদ্ধান্ত বিজেপির, রিপোর্ট অমিত শাহকে

বাংলায় সাংগঠনিক খোলনলচে বদলাতে বড় সিদ্ধান্ত বিজেপির, রিপোর্ট অমিত শাহকে

কিছুদিন আগেই বঙ্গ সফরে এসেছিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। আর এসেই বাংলার সংগঠনকে আরো মজবুত করার লক্ষ্যে রাজ্য নেতাদের নির্দেশ দেন তিনি।আর সর্বভারতীয় সভাপতির সেই নির্দেশকে বাস্তবায়িত করতে এবার বাংলায় দলের সাংগঠনিক পরিস্থিতি নিয়ে জরুরি ভিত্তিতে এক বৈঠকে বসছে গেরুয়া শিবিরের নেতারা। সূত্রের খবর, সংগঠনের দায়িত্বে থাকা দলের কেন্দ্রীয় নেতারাই পশ্চিমবাংলার দলীয় পরিস্থিতি নিয়ে একটি বৈঠক করবেন। আর সাংগঠনিক বৈঠকের এই রিপোর্ট পাঠিয়ে দেওয়া হবে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতির কাছে। জানা গেছে,আগামী 2019 সালের লোকসভা নির্বাচনের লক্ষ্যে রাজ্যের তৃণমূল স্তরে কোনো সাংগঠনিক রদবদল আদৌ প্রয়োজন কিনা তাও খতিয়ে দেখতে পারে বিজেপির এই দলীয় কমিটি।জানা গেছে, দলীয় নেতৃত্বের এই বৈঠকের পরেই সেই রিপোর্ট দেখে বাংলা নিয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

রাজনৈতিক মহল মনে করছেন, 2019 এর লোকসভা নির্বাচন যতই এগিয়ে আসছে ততই সাংগঠনিক পরিস্থিতি নিয়ে ও লোকসভা নির্বাচনকে ঘিরে তৃণমূলের বিরুদ্ধে সুর চরাতে তৎপর বিজেপির রাজ্য নেতারা। বিজেপি সূত্রের খবর, বিজেপির সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক রামলাল, কেন্দ্রীয় যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক শিবপ্রকাশ, অন্যতম সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক তথা পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির ভারপ্রাপ্ত নেতা কৈলাশ বিজয়বর্গী উপস্থিতিতেই হবে এই বৈঠক। কিন্তু এই বৈঠকে বাংলার বিজেপি নেতাদের থাকার কোনোও সম্ভাবনা নেই। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই রাজ্য বিজেপির একটি চিঠিকে কেন্দ্র করে জল্পনা তৈরি হয়েছিল রাজনৈতিক মহলে। বিজেপি নেতা অরোন সিংহের স্বাক্ষর করা এই চিঠিতে বলা হয়েছিল যে, পশ্চিমবঙ্গ বিজেপির পরবর্তী সভাপতি হচ্ছেন শমীক ভট্টাচার্য। আর এরপরই বিজেপির পক্ষ থেকে রীতিমতো প্রেস বিজ্ঞপ্তি জারি করে বলা হয় যে এই চিঠিটি ভুয়ো। এমনকী অরুন সিংহর মুখেও শোনা যায় একই কথা। বাংলার আরেকে পর্যবেক্ষক সুরেশ পূজারি বলেন, এসব নিচুতলার কর্মীদেরকে বিভ্রান্ত করবার চেষ্টা হচ্ছে। সূত্রের খবর, পশ্চিমবঙ্গের সাম্প্রতিক পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে আগামী বৈঠকে আলোচনা হতে পারে। এমনকি কিছু কিছু জায়গায় যেভাবে বিজেপির দলীয় কোন্দল লেগেই আছে সেটা কিভাবে পাশ কাটানো যায় সে নিযেও পর্যালোচনা করবেন এই কেন্দ্রীয় নেতারা। এছাড়াও লোকসভা নির্বাচনের আগে জাতীয় রাজনীতিতে তৃনমূলের বিরুদ্ধে কি করে আর জাতীয় রাজনীতিতে আরও নিজেদের অস্ত্রে শান দেওয়া যায় সে ব্যাপারেও আলোচনা হবে বৈঠকে। পাশাপাশি সর্বভারতীয় সভাপতির নির্দেশানুযায়ী পশ্চিমবঙ্গে 100% বুথ কমিটি তৈরি কাজ সম্পন্ন হয়েছে কি না সে নিয়েও একটি বৈঠক করে দলের সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহকে রিপোর্ট তুলে দেবেন তাঁরা। আর এই সবকিছু বিচার করে আগামী লোকসভা নির্বাচনের দিকে তাকিয়ে দলের তৃণমূল স্তরের সাংগঠনিক পরিবর্তন আদৌ করা দরকার কিনা তা নিশ্চিত হয়েই আগামী লোকসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে তৃণমূলের বিরুদ্ধে এ রাজ্যে নিজেদের রাজনৈতিক জমির পরিমাণ বাড়াতে তৎপর গেরুয়া শিবিরের নেতারা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!