এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বাবুল হেনস্থাকারীকে মারধরের দায়ে গ্রেপ্তার ৯, দেবাঞ্জনকে বিশেষ পুলিশি পাহারা!

বাবুল হেনস্থাকারীকে মারধরের দায়ে গ্রেপ্তার ৯, দেবাঞ্জনকে বিশেষ পুলিশি পাহারা!

বিজেপি সাংসদ বাবুল সুপ্রিয়কে হেনস্থার ঘটনায় বেশ কিছুদিন আগে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়। আর যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের এই ঘটনার আঁচ এসে পড়েছিল রাজ্য রাজনীতিতে। কিন্তু যত দিন যাচ্ছে, সেই ঘটনা ততই বাঁক নিতে শুরু করেছে। জানা যায়, বাবুল সুপ্রিয়কে হেনস্তার ঘটনায় যে দেবাঞ্জন বল্লভের নাম জড়িয়েছিল, এবার সেই দেবাঞ্জন বল্লভকে মারধরের ঘটনায় প্রায় 9 জনকে গ্রেপ্তার করল বর্ধমান থানার পুলিশ।

জানা গেছে, কলকাতা সংস্কৃত কলেজের ভাষা বিজ্ঞানের ছাত্র দেবাঞ্জন বল্লভের পরিবার কালিবাজার এলাকায় থাকে। মায়ের শরীর খারাপের খবর শুনেই গত মঙ্গলবার রাতে দেবাঞ্জন বল্লব তার বাড়ি চলে আসেন। আর এরপরই বুধবার বিকেলে তিনি কলকাতায় যাওয়ার জন্য আলিশা বাসস্ট্যান্ডে গেলে তাকে 6-7 জন মিলে আটকে ধরে। অভিযোগ, তাকে কিল, চড়, ঘুষিও মারা হয়। আর সেই সময়ে দেবাঞ্জনের সাথে ছিল তার এক বান্ধবী। এখানেই সেই অভিযুক্তরা থেমে থাকেনি।

বাস থেকে নামিয়ে সেই দেবাঞ্জন বল্লভকে আরও এক দফায় ব্যাপক মারধর করা হয়। পাশাপাশি তাকে দেখে নেওয়া হবে বলেও হুমকি দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। আর এরপরই এই ঘটনায় পুলিশের দ্বারস্থ হন সেই দেবাঞ্জন বল্লভ। জানা যায়, ঘটনার ব্যাপারে পুলিশের কাছে বয়ান দেন ঘটনাস্থলে উপস্থিত দেবাঞ্জনের সেই বান্ধবী। আর এরপরই সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে সংস্কৃত ভাষা কলেজের ছাত্র দেবাঞ্জন বল্লভকে মারধরের ঘটনায় প্রথমে তিনজনকে ধরলে পরে বাকিদের গ্রেফতার করে পুলিশ। কিন্তু কে বা কারা দেবাঞ্জন বল্লভকে এভাবে মারধর করল!

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে সেই দেবাঞ্জন বল্লভ বলেন, “বিজেপির লোকেরাই আমার ওপর হামলা চালিয়েছে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী যে ক্ষমা করার টুইট করেছিলেন, তার যে কোনো মূল্য নেই, তা আমার ওপর হামলার ঘটনায় প্রমাণিত হল।” তবে এই ব্যাপারে দেবাঞ্জনের এই সমস্ত অভিযোগকে অস্বীকার করেছেন জেলা বিজেপির সভাপতি সন্দীপ নন্দী।

এদিন তিনি বলেন, “কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে মারধরে জড়িতদের বিরুদ্ধে পুলিশ কোনো ব্যবস্থা নেয় না। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে মারধরে জড়িত বামপন্থী পড়ুয়াকে পুলিশ পাহারায় কলকাতায় পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। তারপর মিথ্যা অভিযোগে আমাদের লোকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমরা এসপির কাছে একটি প্রতিনিধিদল এই বিষয় নিয়ে যাব।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!