এখন পড়ছেন
হোম > খেলা > বিশ্বকাপ সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নিল ভারত, স্বপ্নভঙ্গ দেশবাসীর

বিশ্বকাপ সেমিফাইনাল থেকে বিদায় নিল ভারত, স্বপ্নভঙ্গ দেশবাসীর

অপ্রত‍্যাশিত ভাবে বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে নিউজিল‍্যান্ডের কাছে হেরে গেল ভারত। মাত্র ২৪০ রান তাড়া করতে গিয়ে তাসের ঘরের মত ভেঙে পড়ল বিশ্বখ‍্যাত টপ অর্ডার। শেষ বেলায় রবীন্দ্র জাদেজার লড়াকু ইনিংস দেশবাসীর হৃদয় জয় করে নিলেও তা ম‍্যাচ জেতার জন‍্য যথেষ্ট হলনা। স্কোরবোর্ডে অল্প রানের পুঁজি নিয়েও কেন উইলিয়ামসনের চতুর অধিনায়কত্ব আর দলগতভাবে নিয়ন্ত্রিত বোলিং, ফিল্ডিংয়ের জোরে ভারতকে রুখে টানা দুবার বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ফাইনালে পৌঁছে গেল নিউজিল্যান্ড। আর ২০১৫ এর পর এইবছরও ফের সেমিফাইনালে থেমে গেল ভারতের বিশ্বকাপ দৌড়। ১৮ রানে পরাজিত হল ভারতীয় দল। ম্যাচের সেরা হয়েছেন নিউজিল‍্যান্ডের মিডিয়াম পেসার ম্যাট হেনরি।

বৃষ্টিবিঘ্নিত ম‍্যাচে গতকালের ২১১ রান থেকে শুরু করে আজ ৫০ ওভারে ২৩৯ রানে শেষ হয়ে যায় নিউজ়িল্যান্ডের ইনিংস। ফাইনালে যেতে ভারতকে তুলতে হত ২৪০ রান। এই অবস্থায় ভারতের দরকার ছিল শুরুর ১০ ওভারে কোনও উইকেট না হারানো। কিন্তু ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় ভারত। মাত্র এক রানে আউট হয়ে যান টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রানশিকারী রোহিত শর্মা। স্বপ্নের ডেলিভারিতে তাঁকে ফেরান ম্যাট হেনরি। গুডলেন্থের অফস্টাম্প লাইনে পরে ছোট্ট আউটস‍্যুইং রোহিতের ব্যাটের বাইরের কানা ছুঁয়ে উইকেটকিপার টম ল্যাথামের গ্লাভসে জমা পড়ে।

এরপর ব‍্যাট করতে আসেন বিরাট কোহলি । কিন্তু ট্রেন্ট বোল্টের বলে লেগ বিফোর উইকেট হন তিনি। রিভিউ নিয়েছিলেন বিরাট। রিভিউয়ে দেখা যায়, মিডল স্টাম্পের একদম উপরে লেগেছে বল। অন-ফিল্ড আম্পায়ার আউট দেওয়ায় সিদ্ধান্ত বজায় থাকে। বিরাটকে আউট করার ক্ষেত্রে উইলামসন এবং বোল্টের ধুরন্ধর যুগলবন্দী লক্ষ করা যায়। ক্রমশ অফস্টাম্পের বাইরে বিরাটকে খেলিয়ে খেলিয়ে হঠাৎ একটা ভেতরে ঢোকানো বলে উইকেটের সামনে কোহলির পা পেয়ে যায় বোল্ট। প্রসঙ্গত, গত বছর চ‍্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে এভাবেই বিরাটকে আউট করেছিলেন পাকিস্তানের পেসার মহম্মদ আমীর।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

এরপর ম‍্যাট হেনরির অফ স্টাম্পের বাইরের একটি নির্বিষ বলে খোঁচা দিয়ে আউট হন অপর ভারতীয় ওপেনার কেএল রাহুল। সেমিফাইনালে শুরুতেই রোহিত এবং বিরাটকে হারিয়ে দল যখন চাপে, সেই সময় তাঁর শট বাছাই নিয়ে প্রশ্ন ওঠার যথেষ্ট অবকাশ রয়েছে। রাহুল আউটের পর ভারতের স্কোর হয়ে যায় ৩.১ ওভারে ৫/৩। সেইসময় দরকার ছিল একটা পার্টনারশিপের। ক্রিজ়ে দাঁড়িয়ে পার্টনারশিপ তৈরির চেষ্টা শুরু করেন ঋষভ পন্থ ও দীনেশ কার্তিক।কিন্তু, ফের উইকেট পড়ে ভারতের। শর্ট পয়েন্টে দুরন্ত ক্যাচ নিয়ে কার্তিককে প্যাভিলিয়নে পাঠান নিশম। বোলার সেই হেনরি। তখন ভারতের স্কোর দাঁড়ায় ২৪/৪।

৬ নম্বর ব‍্যাটসম‍্যান হিসেবে ক্রিজ়ে আসেন হার্দিক পান্ডিয়া। দুজনেই আক্রমণাত্মক স্বভাবের ব‍্যাটসম‍্যান হলেও পরিস্থিতি বিচার করে এই দুই তরুণ তুর্কি ধরে খেলতে থাকেন। যখন দুজনের পার্টনারশিপ ভারতীয়দের আশা দেখাতে শুরু করছিল, তখনই স্যান্টনারকে মারতে গিয়ে আউট হন পন্থ। এক্ষেত্রেও শট নির্বাচন একেবারেই পরিস্থিতির সঙ্গে মানানসই ছিলনা। ঋষভের আউট দেখে কমেন্ট্রিবক্সে ক্ষোভে ফেটে পরেন কেভিন পিটারসনের মত প্রাক্তন ক্রিকেটার। প্রশ্ন তোলেন পন্থের পরিণতিবোধ নিয়ে। পন্থ আউট হওয়ার পর অনেকটা একই ভঙ্গিতে আউট হয়ে যান পান্ডিয়া। তখন ভারতের স্কোর পৌঁছয় ৯২/৬।

সেখান থেকে ভারতের হয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই শুরু করেন রবীন্দ্র জাদেজা ও মহেন্দ্র সিং ধোনি। ধোনির স্ট্রাইক রেট কিছু কম থাকলেও জাদেজার পাল্টা মারে ছত্রভঙ্গ হতে শুরু করে এতক্ষণ ভারতের ওপর জাঁকিয়ে বসা নিউজিল্যান্ড বোলিং। তিনি স্টেপ আউট করে স্যান্টনার, নিশম সবাইকে মাঠের বাইরে ফেলেন। ৯০ মাইল বেগে বল করা ফার্গুসনও রেহাই পাননি জাদেজার মার থেকে। ধোনি-জাদেজা জুটিই ফের ম্যাচ জেতার দৌড়ে ফেরায় ভারতকে। ইতিমধ্যে নিজের অর্ধশতরান সম্পূর্ণ করেন জাদেজা। একটা সময় ভারতের জেতার জন্য ৩০ বলে ভারতের দরকার ছিল ৫২ রান। আইপিএল-র যুগে যা অতি সহজেই চেজ হয়ে থাকে। তার ওপর তখন অবলীলায় ব‍্যাট করছেন জাদেজা। সঙ্গে কিছুটা স্লো খেললেও সাথ দিয়ে যাচ্ছেন বিশ্বক্রিকেটের সেরা ফিনিশার ধোনি।এইসময় ফের ফাইনালে ওঠার স্বপ্ন দেখতে শুরু করে বিশ্বজুড়ে থাকা ভারতীয় সমর্থকরা।

তবে আইপিএলের সঙ্গে বিশ্বকাপ সেমিফাইনালে রান তাড়া করার চাপ অনেক বেশি তা আরেকবার প্রমাণ হল। ৪৬ তম ওভার করতে আসেন ট্রেন্ট বোল্ট।ঐ ওভারে ১০ রান তোলে ভারত। সমীকরণ দাঁড়ায় এমন যে ৪ ওভারে ৪২ রান তুলতে হবে। কিন্তু, পরের ওভারে মাত্র ৫ রান দেন ম্যাট হেনরি। জেতার জন্য তখন ৩ ওভারে দরকার ছিল ৩৭ রান। ঐ ওভারেই বোল্টের স্লোয়ার ধরতে না পেরে ক‍্যাচ তুলে আউট হয়ে যান জাদেজা। ভারত সেমিফাইনালে হারলেও জাদেজার প্রবল চাপের মুখে দাঁড়িয়ে ৫৯ বলে করা ৭৭ রানের লড়াই স্মরণীয় হয়ে থাকবে। জাদেজা আউট হওয়ার পর যাবতীয় আশা ছিল ‘ফিনিশার’ ধোনিকে নিয়ে। তখন ২ ওভারে ৩১ রান দরকার। প্রথম বলেই স্কোয়ার কাট করে অসাধারণ ছয় মারেন ধোনি। আশায় বুক বাঁধছিলেন ভারতীয় সমর্থকরা । কিন্তু, ঐ ওভারের তৃতীয় বলে স্কোয়ার লেগে বল ঠেলে দুরান নিতে গিয়ে রান আউট হয়ে যান ধোনি । দুর্ধর্ষ ডিরেক্ট থ্রো’তে ধোনিকে আউট করে ভারতকে সেমিফাইনাল থেকে ছিটকে দেন মার্টিন গাপ্টিল। তৃতীয় আম্পায়ার আউট ঘোষণা করলে দৃশ‍্যতই হতাশ ধোনি ফেরেন প‍্যাভিলিয়নে। বর্ণময় কেরিয়ারে এটাই ছিল তাঁর বিশ্বকাপের শেষ ইনিংস। রানআউট হয়ে প‍্যাভিলিয়নে ফেরার সময় আবেগতাড়িত হয়ে পরতে দেখা যায় টিম ইন্ডিয়ার বেশ কিছু সদস‍্যকে। গ‍্যালারিতেও অনেক ভারতীয় সমর্থক কান্নায় ভেঙে পরেন।

ধোনির আউট হওয়ার পর বাকিটুকু ছিল নিয়মরক্ষার। শেষপর্যন্ত নিউজিল‍্যান্ডের ২৩৯ রানের জবাবে ১৮ রান দুরে থেমে যায় ভারত।সেমিফাইনালের ম‍্যান অফ দ‍্য ম‍্যাচ ম‍্যাট হেনরি ১০ ওভারে ৩৭ রান দিয়ে তিন উইকেট নেন। বোল্ট ও স্যান্টনার দুটি করে উইকেট পান। লকি ফার্গুসন আর নিশম একটি করে উইকেট পেয়েছেন।

ম‍্যাচের পর প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক সৌরভ গাঙ্গুলি সহ অনেকেই এই মত প্রকাশ করেন যে রান তাড়া করতে নেমে ব‍্যাটিং বিপর্যয়ের কবলে পরার পর ধোনির ৫ নম্বরে ব‍্যাট করতে আসা উচিত ছিল। দিনেশ কার্তিক আর হার্দিক পান্ড‍্যের ওপরে ধোনি ব‍্যাট করতে এলে পরিস্থিতি হয়তো ভারতের অনুকূলে আসত এমনটাই মনে করছেন প্রাক্তনরা। পাশাপাশি সৌরভ নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি বলেন যে এই প্রজন্মের অন‍্যতম সেরা অধিনায়ক হলেন কেন।

Top
error: Content is protected !!