এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিশ্ব বাংলা লোগো কান্ডে বড়সড়ো স্বস্তি মিললেও আদালতে নতুন চাপে রাজ্যসরকার

বিশ্ব বাংলা লোগো কান্ডে বড়সড়ো স্বস্তি মিললেও আদালতে নতুন চাপে রাজ্যসরকার

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাধের ‘বিশ্ববাংলা’ আইনি জটিলতায় ভুগছে। ২০১৩ থেকে ২০১৮ সাল অব্দি জনগনের টাকায় গোটা পৃথিবী ব্যাপি রমরমিয়ে বিশ্ববাংলার লোগোর ব্রান্ডিং করেছে রাজ্যসরকার। তবে সেই ব্রান্ডিং-এ কতোটা মুনাফা হল তা আঁধারেই রয়ে গেছে বহু যাবৎ ধরে। উল্লেখ্য, রাজ্যসরকার বিশ্ববাংলা লোগোর মালিকানা ২০১৮ সালে পেলেও ২০১৩ সাল থেকেই এর ব্রান্ডিং করে আসছে। এবার এই ব্রান্ডিং -এর মুনাফার হিসাব নিকাশ বুঝতেই হাইকোর্টে দুটি জনস্বার্থ মামলা করা হয়। মামলাকারী দুজন হলেন শমিক দাশগুপ্ত এবং সিদ্ধার্থ দাস।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিন প্রধান বিচারপতি জ্যোতির্ময় ভট্টাচার্য এবং বিচারপতি অরিজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডিভিশন বেঞ্চে মামলাকারীদের আইনজীবী মীনাক্ষী অরোরা বলেন যে, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২০১৩ সালে বিশ্ববাংলা লোগোর নকশা তৈরি করে আসছেন। এরপরে মুখ্যমন্ত্রী তা রাজ্য সরকারকে দেন। এদিকে বিশ্বব্যাপী ওই লোগো নিয়ে সরকার ব্র্যান্ডিং চালিয়ে গেলেও তা রেজিস্ট্রি করানো নিয়ে কোনও পদক্ষেপ নেয়নি,এটা আশ্চর্যের! অথচ,ট্রেড মার্ক অথরিটির কাছে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ২০১৩-র নভেম্বরে ‘বিশ্ববাংলা’ লোগোর জন্য আবেদন জানিয়েছিলেন। এর পরেও বিষয়টি নিয়ে রাজ্য সরকারকে নীরব থাকতে দেখা গেছে। অথচ জনগনের বিপুল পরিমান অর্থকে কাজে লাগিয়ে রাজ্যসরকার ব্র্যান্ডের প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। ওই লোগোর স্বত্বাধিকারী কে, তা নিয়ে বিতর্ক দানা বাঁধে এক ব্যক্তির (মুকুল রায়) অভিযোগের ভিত্তিতে। এরপরেই রাজ্যসরকারের কর্মতৎপরতা বেড়ে যায় লোগোর রেজিস্ট্রেশনের জন্য। তারপর বিশ্ববাংলার মুখ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে তাঁর আবেদন প্রত্যাহার করতে দেখা যায়। এর সঙ্গে জুড়ে মীনাক্ষী অরোরা আরও বলেন যে,এই বছরই কেন্দ্রীয় সরকারের ট্রেড মার্ক অথরিটি রাজ্য সরকারকে জানিয়ে দেয় ‘বিশ্ববাংলা’ লোগোর অধিকারী কেন্দ্রীয় সরকারের। এ প্রসঙ্গেও একটা প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে, মালিকানা না পাওয়া অব্দি অর্থাৎ ২০১৩-‘১৮ সাল অব্দি লোগো নিয়ে সরকার যে ব্র্যান্ডিং করে গেল, সেই টাকার মুনাফার অংশের হদিশ কোথায়? এটা পরিস্কার ভাবে জানতেই আমরা কোর্টের কাছে হস্তক্ষেপ করার আর্জি জানানো হয়েছে।

এর পাল্টা জবাব পাওয়া গেলো রাজ্যের আডভোকেট জেনারেল কিশোর দত্তের কাছ থেকে। তিনি জানান, কেন্দ্রীয়য় সরকারই নাকি ‘বিশ্ববাংলা’-র স্বত্ত রাজ্যসরকারকে দিয়েছে। ফলে এই মামলা মোটেও ‘মেনটেনেবল’ নয়। এদিকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের আইনজীবীও বলেছেন, এই লোগোর অধিকারী রাজ্য সরকারই। তাঁর মক্কেল নিজের আবেদন পরে প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন। উল্লেখ্য, কোর্ট আগামী পাঁচ সপ্তাহের মধ্যে রাজ্য সরকারকে হলফনামা পেশ করার নির্দেশ দিয়েছেন। মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য হয়েছে আট সপ্তাহ পরে। এমনটাই জানা যাচ্ছে।

Top
error: Content is protected !!