এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > ফিরছে বিপ্লব, তৃণমূলের ঘর ভাঙতে মরিয়া বিজেপি, তৈরি অর্পিতা, যুদ্ধের অপেক্ষায় বালুরঘাটবাসী

ফিরছে বিপ্লব, তৃণমূলের ঘর ভাঙতে মরিয়া বিজেপি, তৈরি অর্পিতা, যুদ্ধের অপেক্ষায় বালুরঘাটবাসী


অনেকে বলতেন, সারা রাজ্যের সিএম অর্থাৎ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শেষ কথা হলেও দক্ষিণ দিনাজপুরের শেষ কথা বিএম অর্থাৎ বিপ্লব মিত্র। আর এবার সেই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূলের প্রাক্তন সভাপতি বিপ্লব মিত্র গত সোমবার দিল্লিতে বিজেপির সদর দপ্তরের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদের সভাধিপতি সহ 10 জন সদস্যকে নিয়ে গেরুয়া শিবিরে যোগদান করার পরই জেলা রাজনীতিতে আলোরন পড়ে যায়।

যেখানে পদ্মের পতাকা গলায় নিয়ে বিপ্লব মিত্র দাবি করেন, তার হাত ধরে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার সিংহভাগ পঞ্চায়েত, পঞ্চায়েত সমিতি, পৌরসভা সকলই বিজেপির দখলে আসবে। কিন্তু কি হবে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার মানচিত্র! এখন তা নিয়ে চিন্তায় রয়েছে সকলেই।

কেননা আগামী সোমবারই অবশেষে দিল্লি থেকে বাগডোগরায় নামছেন সদ্য তৃণমূল ত্যাগী তথা বর্তমান বিজেপি নেতা বিপ্লব মিত্র। প্রায় 30 টার বেশি গাড়ি নিয়ে তাকে স্বাগত জানাতে যাবেন বিপ্লব মিত্র ঘনিষ্ঠ অনুগামীরা। আর জেলায় প্রথম পা রেখেই এখন তৃণমূলের ঘর ভাঙতে বিপ্লব মিত্র আদৌ কতটা সফল হন সেদিকেই নজর রয়েছে সকলের।

জানা গেছে, জেলার বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে নিজের নিরাপত্তা ব্যবস্থা বেশ আঁটোসাঁটো করে নিয়েই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় পা রাখছেন বিপ্লব মিত্র। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক সূত্রের খবর, তিনি ওয়াই প্লাস ক্যাটাগরি পাচ্ছেন। অন্যদিকে জেলা পরিষদের সভাধিপতিকে ওয়াই ক্যাটাগরির নিরাপত্তা দেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে।

ফলে সোমবার আঁটোসাঁটো নিরাপত্তা নিয়ে বিপ্লব মিত্র এবং জেলা পরিষদের বিজেপিতে যোগ দেওয়ার সিংহভাগ সদস্যরা জেলায় ফেরার পরই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় তৃণমূলের ভাঙন ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তবে ইতিমধ্যেই নানা নেতৃত্বদের সঙ্গে যোগাযোগ করা শুরু করেছেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী অর্পিতা ঘোষ। পঞ্চায়েত থেকে পৌরসভা – বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিরা যাতে দলবদল না করে তার জন্য ইতিমধ্যেই নানা প্রস্তুতিও নিচ্ছে ঘাসফুল শিবির। তবে এর ফলে কি বিপ্লব মিত্রর গ্রাস থেকে রক্ষা করা যাবে তৃণমূলের এই জনপ্রতিনিধিদের!

এদিন এই প্রসঙ্গে জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী অর্পিতা ঘোষ বলেন, “যে 10 জন জেলা পরিষদ সদস্য বিজেপিতে গিয়েছে, তারা জেলায় ফিরলেই আবার তৃনমূলে ফিরে আসবে। সকলেই আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন।” অন্যদিকে অর্পিতা ঘোষের এই দাবিকে উড়িয়ে দিয়ে পাল্টা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিপ্লব মিত্র ঘনিষ্ঠ এক নেতা বলেন, “সোমবারই মেজদা জেলায় ফিরবেন। তাকে আনতে প্রচুর কর্মী সমর্থকরা বাগডোগরা যাব। তারপরেই এই জেলায় তৃণমূলের ভাঙ্গন শুরু হবে।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় এতদিন তৃণমূলের দায়িত্বে থাকা বিপ্লব মিত্র বুথ লেভেলের কর্মীদের চেনেন। ফলে তিনি বিজেপিতে যোগ দেওয়ায় তার সাথে তলায় তলায় যে অনেক কর্মী-সমর্থকরাও যোগাযোগ রেখেছেন তা আঁচ করতে পেরেছেন জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী অর্পিতা ঘোষ।

আর তাইতো বিপ্লব মিত্রের গ্রাস থেকে যাতে তৃণমূলের জনপ্রতিনিধিদের রক্ষা করা যায়, তার জন্য এখন দলের সকলের সাথে যোগাযোগ রাখতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন তিনি। কিন্তু এতসব সত্ত্বেও জেলায় বিপ্লব মিত্র পা রাখার পর তৃণমূল বলে কোনো চিহ্ন দক্ষিণ দিনাজপুরে থাকে কিনা, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!