এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > BIG BREAKING — রায়দান নিয়ে সামনে এলো নয়া তথ্য – জেনে নিন

BIG BREAKING — রায়দান নিয়ে সামনে এলো নয়া তথ্য – জেনে নিন


রায়দান হচ্ছে সর্বসম্মত ভিত্তিতে। ৫ জন বিচারপতিই রায়ের ব্যাপারে সহমত হয়েছেন।
সমগ্র রায় পড়তে আধ ঘন্টা লাগবে।
নির্মোহী আখরার আবেদন খারিজ হয়ে গেল। নির্মোহী আখরা দাবি করেছিল অযোধ্যাতে ‘সেবা’ করতে চায় তারা।
রামলালার দাবি মেনে নিল সুপ্রিম কোর্ট।
এএসআই এখানে খনন করে যে সব গুরুত্বপূর্ণ জিনিস পেয়েছে তাকে মামলার দলিল মানা হবে।
সুন্নি ওয়াকফ বোর্ডের দাবি খারিজ।
খনন করে যা পাওয়া গেছে, তা ‘ইসলামিক’ নয়।
খনন করে দ্বাদশ শতকের মন্দিরের নমুনা পাওয়া গেছে – মান্যতা দিল সুপ্রিম কোর্ট।
বিতর্কিত জমিতে মন্দিরের নমুনা পাওয়া গেছে।
তবে মন্দির ভেঙে মসজিদ হয়েছে – প্রমাণিত নয়।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

হিন্দুপক্ষের দাবি ছিল – মসজিদের জায়গাতেই রামের জন্ম নিয়ে কেউ বিরোধিতা করে নি।
অযোধ্যাতে রামের পূজা হিন্দুরা করে এসেছে – হিন্দুদের আবেগ স্বাভাবিক ঘটনা।
বিভিন্ন ঐতিহাসিক গ্রন্থের যে উল্লেখ শুনানিতে হয়েছিল – তার মান্যতা দিল সুপ্রিম কোর্ট।
বাল্মীকির রামায়ন এই মামলায় গুরুত্বপূর্ণ দলিল হিসাবে স্বীকৃত।
জমি কার নামে তা শুধুমাত্র ‘আস্থার’ উপর নির্ভর করে সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব নয়।
জমি কার নামে – তা নিয়ে সিদ্ধান্ত ঘোষণা এবার হবে।
বিভিন্ন পক্ষের দলিল ও আবেদন নিয়ে রায় পড়া শেষ।
খননের ফলে মেলা হিন্দু নিশানের জন্যই শুধু হিন্দুদের দাবি মানা যায় না।
১৮৫৭ সালের আগে মুসলিমদের এখানে নামাজ পড়ার কোনো প্রমান নেই।
হিন্দুদের অধিকার ব্রিটিশ সরকার প্রতিষ্ঠা দিয়েছিল।
মুসলিমদের নামাজ বন্ধের কোনো প্রমান নেই।
ব্রিটিশ সরকার রেলিং দিয়ে হিন্দু-মুসলিমদের জন্য আলাদা জমি করে দিয়েছিল।
১৮৫৬ সালের আগে বিতর্কিত জমির ভেতরে পূজা করত – প্রমাণিত।
হিন্দুদের ‘আটকে’ দেওয়াতেই বাইরে পূজা করতে বাধ্য হয় হিন্দুরা।
মূল রায় এবার ঘোষণা হবে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!