এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > পঞ্চায়েত মামলার শুনানির শুরুতেই বড়সড় ধাক্কা শাসকদল ও নির্বাচন কমিশনের

পঞ্চায়েত মামলার শুনানির শুরুতেই বড়সড় ধাক্কা শাসকদল ও নির্বাচন কমিশনের

Priyo Bandhu Media

আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচন নিয়ে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের করা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের মামলায় শুনানি শুরু হতেই শাসকদল ও রাজ্য নির্বাচন কমিশনের মধ্যে অনৈক্যের ছবি স্পষ্ট। বিচারপতির প্রশ্নের উত্তরে রীতিমত থতমত অবস্থা কমিশনের সচিবের। এদিনের শুনানির প্রথম থেকেই আক্রমনাত্মক মেজাজে ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের আইনজীবী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি প্রথমেই সিঙ্গল বেঞ্চের স্থগিতাদেশ দেয়ার এক্তিয়ার নিয়েই প্রশ্ন তুলে দেন। তিনি বলেন, সিঙ্গল বেঞ্চের কোনও এক্তিয়ার নেই নির্বাচনী প্রক্রিয়া স্তব্ধ করে দেওয়ার। সিঙ্গল বেঞ্চ তৃণমূলের আপিল নিয়ে কোনও অর্ডারই দেয়নি। তৃণমূল ১২ এপ্রিলের স্থগিতাদেশ প্রত্যাহারের জন্য আপিল করেছিল। কিন্তু সিঙ্গল বেঞ্চ সেটা নিয়ে কোনও মন্তব্যই করেনি। ফলে সিঙ্গল বেঞ্চ কখনও এ ভাবে নির্বাচন প্রক্রিয়া বন্ধ করতে পারে না। আমার প্রশ্ন হল, পিটিশন মেনটেনবল কিনা সেটা তো আগে বলুক সিঙ্গল বেঞ্চ। আগেই কেন নির্বাচনী প্রক্রিয়া স্তব্ধ করল?

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

কল্যানবাবুর এহেন সওয়াল শুনে বিচারপতি বিশ্বনাথ সমাদ্দার নির্বাচন কমিশনের সচিবকে পাল্টা প্রশ্ন করেন যে তিনিও কল্যানবাবুর সঙ্গে সহমত কিনা। জবাবে নির্বাচন কমিশনের সচিব জানান, না, সমর্থন করছি না। তবে আমি আইন বিশেষজ্ঞ নই। আর সচিবের এহেন জবাব শুনেই রীতিমত ক্ষিপ্ত হন বিচারপতি। তিনি বলেন, আপনি পঞ্চায়েত আইনটাই জানেন না? সংবিধানের এই বিষয়টি আপনার তো বেশি ভাল করে জানা উচিত। আপনিই তো হলেন প্রিন্সিপাল অব দি ল। তাহলে আপনি কী ভাবে বলেন, আপনি বিশারদ নন? বিচারপতির এহেন বক্তব্য শুনে রীতিমত থতমত অবস্থা হয় নির্বাচন কমিশনের সচিবের। তিনি কোনোরকমে বলেন, আমরা ২০ এবং ১২ এপ্রিলের অর্ডারকে চ্যালেঞ্জ করে আপিল করেছি। বিচারপতি পাল্টা প্রশ্ন ছোড়েন, সুপ্রিম কোর্টে তো আপনারা মেনটেনবিলিটি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তাহলে হাইকোর্টে সেটা নিয়ে আপিল করেননি কেন? জবাবে সচিব জানান, আমরা মৌখিক ভাবে জানিয়েছিলাম। আমরা চাই ১০, ১২ তারিখের অর্ডার প্রত্যাহার করাতে। আর নির্বাচন প্রক্রিয়া ফের চালু করাতে। এরপর বিচাপতি জানতে চান, পঞ্চায়েতের পুরনো বোর্ডের মেয়াদ কবে শেষ হচ্ছে? জবাবে সচিব জানিয়ে দেন আগামী অগস্ট মাসে তা শেষ হতে চলেছে। এদিনের বিরোধীদের তরফে বিজেপির আইনজীবীরা ছাড়াও উপস্থিত আছেন বামফ্রন্টের প্রবীণ নেতা রবীন দেব ও অন্যান্য শীর্ষনেতারা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!