এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ভাটপাড়ায় মুকুল-অর্জুনের ঘুম ওড়াতে আরও বড় ধাক্কার পরিকল্পনায় ঘাসফুল শিবির

ভাটপাড়ায় মুকুল-অর্জুনের ঘুম ওড়াতে আরও বড় ধাক্কার পরিকল্পনায় ঘাসফুল শিবির


 

লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি ফলাফল করার পরেই উত্তর 24 পরগনা জেলায় তৃণমূলের ভাঙ্গন ধরতে শুরু করে। ভাটপাড়া থেকে শুরু করে হালিশহর, নৈহাটি থেকে শুরু করে কাঁচরাপাড়া, একাধিক পৌরসভা বিজেপি নিজেদের দখলে আনতে শুরু করে। তবে বিজেপি এই সমস্ত পৌরসভার তৃণমূল কাউন্সিলরদের নিজেদের দখলে আনলেও কিছুদিন পরেই অবস্থার পরিবর্তন হতে শুরু করে।

সম্প্রতি বিভিন্ন পৌরসভায় তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যাওয়া কাউন্সিলররা ফের তৃণমূলে ফিরে আসতে শুরু করেছেন। তবে নৈহাটি, কাঁচরাপাড়া, হালিশহর বিভিন্ন পৌরসভা তৃণমূল করলে, বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংহের গড় ভাটপাড়া পৌরসভায় কি হবে তা নিয়ে জল্পনা চলছিল। তবে ইতিমধ্যেই কলকাতায় এখানকার 12 জন কাউন্সিলর বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগদান করেছেন। য নিঃসন্দেহে বিজেপির কাছে অস্বস্তির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

প্রসঙ্গত, 35 আসন বিশিষ্ট এই ভাটপাড়া পৌরসভায় একজন সিপিএমের কাউন্সিলর থাকলেও বাকি সব তৃণমূলের কাউন্সিলর ছিলেন। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূলের 31 জন কাউন্সিলরের মধ্যে একজন বাদে বাকি সকলেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। কিন্তু ইতিমধ্যেই বিজেপি থেকে 12 জন কাউন্সিলর ফের তৃণমূলে যোগদান করেন। তবে শুধু 12 জন কাউন্সিলর নয়, ইতিমধ্যেই আরও পাঁচজন কাউন্সিলর তৃণমূলে যোগ দেবেন বলে দাবি করতে শুরু করল ঘাসফুল শিবির।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু যদি 5 জন নাও আসে, তাহলেও তৃণমূলের হাতে 17 জন কাউন্সিলর রয়েছে। তাই ভাটপাড়ায় বোর্ড গঠন করা এখন শুধু তৃণমূলের সময়ের অপেক্ষা বলে মনে করছেন একাংশ। আর এখানেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে, তাহলে কি দোর্দন্ডপ্রতাপ বিজেপি নেতা অর্জুন সিং তার নিজের গড়ে ক্ষমতা হারাতে চলেছেন!

এক্ষেত্রে বিজেপিতে তৃণমূলের যে সমস্ত কাউন্সিলররা এসেছিল, তারা আবার তৃণমূলে ফিরে যাচ্ছেন। তাই তারা কাউকেই আটকাবেন না। তবে পুরসভা তাদের হাতে থেকেও লাভের লাভ কিছুই হচ্ছে না। কারণ রাজ্য সরকার প্রতিহিংসাবশত উন্নয়নের জন্য কোনো টাকা দিচ্ছে না এই পৌরসভাকে। তবে গেরুয়া শিবিরের পক্ষ থেকে এই কথা বলা হলেও শুধুমাত্র ড্যামেজ কন্ট্রোল করতেই যে তা বলা হচ্ছে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত সমালোচক মহলের একাংশ।

এদিন এই প্রসঙ্গে বিধানসভার তৃণমূলের আহ্বায়ক সোমনাথ শ্যাম বলেন, “খুব শীঘ্রই আরও পাঁচ কাউন্সিলার আমাদের দলে যোগ দেবেন। আগামী 6 ডিসেম্বর অনাস্থা প্রস্তাব আনা হবে। তা নিয়ে আইনি পরামর্শ চলছে।” তবে এই ব্যাপারে বিজেপির অর্জুন সিংহকে ফোন করলেও তিনি তার ফোন ধরেননি। সব মিলিয়ে যেভাবে একের পর এক বিজেপির থেকে তৃণমূলের তৃণমূলের নেতাদের ব্যারাকপুর সহ ভাটপাড়ায় বিজেপির ভার আলগা হচ্ছে বলেই দাবি রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!