এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > গ্রেপ্তার হবেন অর্জুন সিং? ভাটপাড়ায় তৃণমূলের পরিষদীয় দলের দাবি ঘিরে তীব্র জল্পনা রাজ্যজুড়ে

গ্রেপ্তার হবেন অর্জুন সিং? ভাটপাড়ায় তৃণমূলের পরিষদীয় দলের দাবি ঘিরে তীব্র জল্পনা রাজ্যজুড়ে

লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকেই খবরের শিরোনামে ভাটপাড়া তথা ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চল। সাংসদ হওয়ার মনোস্কামনা নিয়ে ভাটপাড়ার বিধায়ক অর্জুন সিং তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে গেলে তিনি তাঁকে নিরাশ করেন। আর এরপরেই অর্জুনবাবু বিজেপিতে যোগ দিয়ে গেরুয়া শিবিরের টিকিটে লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সিদ্ধান্ত নেন।

ব্যারাকপুরের হেভিওয়েট তৃণমূল সাংসদ দীনেশ ত্রিবেদীকে পরাভূত করে সাংসদ হন অর্জুন সিং। শুধু নিজে সাংসদ হওয়াই নয়, লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য তাঁকে ভাটপাড়ার তৃণমূল বিধায়ক হিসাবে পদত্যাগ করতে হয়। সেখানে উপনির্বাচনে নিজের ছেলে পবন সিংকেও তিনি তৃণমূলের হেভিওয়েট প্রার্থী মদন মিত্রের বিরুদ্ধে বিজেপির টিকিটে জিতিয়ে আনেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

কিন্তু, ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চল জুড়ে এই রাজনৈতিক পালাবদলের আবহ ক্রমশ উত্তপ্ত হয়ে উঠতে থাকে বোমা আর বারুদের গন্ধে। আর তা নিয়ে বিজেপি ও তৃণমূল উভয় পক্ষই একে অপরকে দোষারোপ করতে থাকে। কিন্তু তাতে হিংসার আবহ একটুও কমে না। আর এইসবের পরিপ্রেক্ষিতে আজ ভাটপাড়ায় ফিরহাদ হাকিম, জ‍্যোতিপ্রিয় মল্লিক, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, সুজিত বসু প্রমুখ হেভিওয়েট নেতা সহযোগে তৃণমূলের এক পরিষদীয় দল পৌঁছায়।

কিন্তু, ভাটপাড়ায় গিয়েই তৃণমূলের এই পরিষদীয় দলকে বিক্ষোভের মুখে পড়তে হয়। যা নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পরিস্থিতি। পরে এই পরিষদীয় দলের তরফে ফিরহাদ হাকিম সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ভাটপাড়া কাণ্ডের জন‍্য অর্জুন সিংহকে দায়ী করেন। অর্জুনবাবুকে একজন ক্রিমিনাল আখ্যা দিয়ে তিনি তাঁর গ্রেপ্তারির দাবি করেন। যে দাবির পরিপ্রেক্ষিতে রাজনৈতিক মহলে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। কিন্তু অর্জুনবাবু এর পাল্টা প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছেন, জগদ্দল থানায় বসে ফিরহাদ হাকিম পঞ্চাশটা বক্তৃতা দিতে পারছেন। উনি ভোটের আগে বলেছিলেন আমি হারব। এরপর মেটিয়াবুরুজে ওনাকে হারতে হবে।

Top
error: Content is protected !!