এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > বাংলাদেশ থেকে সুপারি কিলার এনে তাঁকে খুনের চেষ্টার দায়ে বিজেপি প্রার্থী ও নেতাদের নামে অভিযোগ দায়ের তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতার

বাংলাদেশ থেকে সুপারি কিলার এনে তাঁকে খুনের চেষ্টার দায়ে বিজেপি প্রার্থী ও নেতাদের নামে অভিযোগ দায়ের তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতার

এবার বিস্ফোরক অভিযোগ এনে বিজেপি প্রার্থী সমেত বিজেপি নেতাদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করলেন জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। জানা যাচ্ছে এদিন তিনি দাবি করে যে, বাংলাদেশ থেকে সুপারি কিলার নিয়ে এসে তাঁকে খুনের চেষ্টা করছে বিজেপি নেতারা। যার জেরে তিনি এইদিন গোবরডাঙা থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। সেই অভিযোগ পাত্রে দাবি করা হয়েছে যে ,বনগাঁ লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী শান্তনু ঠাকুর। তাঁর বাবা তথা ঠাকুর পরিবারের ছোট ছেলে মঞ্জুলকৃষ্ণ ঠাকুর, বনগাঁর স্থানীয় নেতা দেবদাস মণ্ডল এবং বাংলার কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষককৈলাশ বিজয়বর্গী নাকি বাংলাদেশ থেকে সুপারি কিলার নিয়ে এসে তাঁকে খুন করার চেষ্টা করছে।

তিনি এদিন জানান যে, জ্যোতিপ্রিয়বাবুর এক সহকর্মী মনোজ রায়ের মোবাইল ফোনে এক দুষ্কৃতী ফোন করে জানায় যে সে একজন বাংলাদেশি। তৃণমূল কংগ্রেসের উত্তর ২৪ পরগনা জেলা সভাপতিকে খুনের জন্য তাকে 30 লাখ টাকার সুপারি দিয়েছেন শান্তনু ঠাকুর, মঞ্জুলকৃষ্ণ ঠাকুর, কৈলাস বিজয়বর্গীয় এবং দেবদাস মণ্ডল। আর এর জন্য তাঁকে অগ্রিম পাঁচ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছে। আর তাঁকে খুন তার উদ্দেশ্য নিয়ে দুষ্কৃতীরা বনগাঁয় ঢুকে পড়েছিল কিন্তু জখনি তারা জানতে পারে যে তিনি রাজ্যের মন্ত্রী তখন তারা নিরস্ত হয় ও বিষয়টি জ্যোতিপ্রিয়বাবুর ঘনিষ্ঠকে জানিয়ে দেয়।

জ্যোতিপ্রিয়বাবু দাবি করেন যে , “তিনি আছেন তাই বনগাঁয় সুবিধা করতে পারবে না জেনে বিজেপি নেতার আমাকে খুনের চক্রান্ত করেছে । আমরা পুরো কল রেকর্ডস আদালতের হাতে তুলে দেব । বিজেপি-র কাছে আমি মাথাব্যথার কারণ হয়ে গেছি । তাই আমাকে সরাতে হবে । তাহলেই নাকি সব আসন পেয়ে যাবে । কিন্তু বিজেপি জানে না, আমি মরলেও ওরা একটা আসনও পাবে না । জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক থাকুক বা না থাকুক, এখানে (উত্তর 24 পরগনা জেলায় পাঁচটি লোকসভা কেন্দ্র) পাঁচে পাঁচ হবে । কারও আটকানোর ক্ষমতা নেই । আমি চাই খুনের ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়া হোক। ”

এদিকে এই বিষয়টিকে শান্তনু ঠাকুর পুরোপুরি ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন। এই নিয়ে এদিন তিনি বলেন যে, “এখানে দুটি বিষয় হতে পারে । এক, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক পাগল হয়ে গেছেন । না হলে জ্যোতিপ্রিয় ঠাকুরবাড়িকে ধ্বংস করতে চাইছেন । হারের ভূত দেখছেন । সেজন্য জ্যোতিপ্রিয়র চিকিৎসার প্রয়োজন । ”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

সাথেই এদিন শান্তনুবাবু দাবি করেন যে, তৃণমূলের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার সভাপতি তাঁকে খুনের চেষ্টা করছেন । আগেও একবার করেছেন ।কিন্তু তিনি পারেননি যদি ধরা পরে যান তাই সেই ভয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ করছেন।

এদিকে জ্যোতিপ্রিয়বাবুয়ার এ হেনো অভিযোগ নিয়ে বিজেপি ইতিমধ্যেই কয়েকটি প্রশ্ন তুলছে তাদের প্রশ্ন -প্রথমত, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বিধাননগর কমিশনারেটের আওতায় পড়া সল্টলেকের বাসিন্দা কিন্তু তাঁর অভিযোগ থাকলে নিজের থানায় না জানিয়ে বাড়ি থেকে প্রায় 55 কিলোমিটার দূরে গোবরডাঙা থানায় অভিযোগ দায়ের করলেন কেন ?

দ্বিতীয়ত, অভিযোগপত্রে জ্যোতিপ্রিয় লিখেছেন, সুপারি কিলার টাকা নিয়েছেন আর যদি তাই হয় কাকে খুন করতে যাচ্ছে তার সম্পর্কে পুরো তথ্য না নিয়ে টাকা নিয়ে খুন করতে লোক পাঠালো আবার মন্ত্রী জেনে টাকা নিয়েও পিছিয়ে গেলো।এখানেই খটকা আছে বলে মনে করছে বিজেপির এক অংশ। আর এই নিয়ে প্রশ্ন তুলছে রাজনৈতিকমহলও। যদিও এই নিয়ে মুখ অখলেননি জ্যোতিপ্রিয়বাবু। বিষয়টি নিয়ে তদন্ত চলছে বলে দাবি পুলিশের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!