এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > রাজ্যের হাতে থাকা মাঠের অনুমতি মিলছে না কিছুতেই, বাংলাজুড়ে রথযাত্রা সফল করতে বিজেপির ভরসা রেল

রাজ্যের হাতে থাকা মাঠের অনুমতি মিলছে না কিছুতেই, বাংলাজুড়ে রথযাত্রা সফল করতে বিজেপির ভরসা রেল

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে এই রাজ্যে পদ্ম ফোটাতে এবার “গণতন্ত্র বাঁচাও” নামে এক রথযাত্রার কর্মসূচি নিয়েছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। সূত্রের খবর, আগামী 27 ডিসেম্বর বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহর উপস্থিতিতে উত্তরবঙ্গের কোচবিহার থেকে শুরু হবে তাদের প্রথম দফার এই রথযাত্রা। এমনকি রথযাত্রার সূচনায় লগ্নে কোচবিহারে একটি সভা করারও কথা রয়েছে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতির। কিন্তু এবার সেই সভার জায়গা নির্বাচন করতেই কার্যত হাঁসফাঁস অবস্থা গেরুয়া শিবিরের।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বর্তমানে প্রায় রাজ্যের বিভিন্ন জেলার মাঠগুলো রাজ্য সরকারের উদ্যোগে খেলা এবং বিভিন্ন মেলার কারণে বুক হয়ে রয়েছে। কোচবিহার জেলাও তার ব্যতিক্রম নয়। ফলে রথযাত্রার সূচনালগ্নে ঠিক কোন মাঠে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি সভা করবেন তা নিয়ে দুশ্চিন্তা শুরু হয়েছে কোচবিহার জেলা বিজেপির অন্দরে।

জানা গেছে, অন্য কোন মাঠ না থাকায় ইতিমধ্যেই কোচবিহারে সভা করার জন্য রেল ও আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার মাঠকেই পাখির চোখ করেছে বিজেপি। সম্প্রতি কোচবিহার রাজবাড়ির উল্টো দিকে অবস্থিত এই মাঠটি পরিদর্শন করে বিজেপির একটি প্রতিনিধি দল। পাশাপাশি নিউ কোচবিহার রেলের মাঠটিকেও পরিদর্শন করেন বিজেপি নেতারা। কিন্তু সভার 7 দিন আগে পর্যন্ত ঠিক কোথায় বিজেপির এই সভা হবে তা নিয়ে কোনো সদুত্তর মেলেনি। আর যার ফলে জেলা নেতৃত্বের তরফে ফ্লেক্স, হোর্ডিং, ব্যানার কিছুই লাগানো হয়নি।

অনেকে বলছেন, আজ এবং কাল রাজ্যের সরকারি দপ্তর বন্ধ থাকবে। ফলে সোমবার যদি সেই মাঠের ব্যাপারে বিজেপির কাছে কোনোরূপ অনুমতি আসে তাহলে মোটে হাতে তিন দিন সময় পাবে তারা। ফলে সেই তিন দিনের মধ্যে তারা ঠিক কতটা হোর্ডিং, ব্যানার নিয়ে প্রচারে নামতে পারবে তা নিয়ে একটা ধন্দ থেকেই যাচ্ছে।

এদিকে এই মাঠ দেওয়ার ব্যাপারে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ার কলকাতা সার্কেলের সুপারিনটেনডেন্ট জি মাহেশ্বরী বলেন, “কেন্দ্রীয় সরকারের আইন অনুযায়ী আমরা কাউকেই এই মাঠ ব্যবহারের অনুমতি দিতে পারি না। এই ব্যাপারে ডিজির কাছে আবেদন করার জন্য আমি আবেদনকারীদের জানিয়েছি।”

অন্যদিকে রেলের মাঠ বিজেপির সভার জন্য দেওয়ার ব্যাপারে উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক প্রনবজ্যোতি শর্মাকে ফোন করলেও তিনি এই ব্যাপারে কোনো প্রতিক্রিয়া দেননি। কিন্তু সামনেই রথযাত্রা কর্মসূচি। ফলে এখনো পর্যন্ত সভাস্থল চিহ্নিত না হওয়ায় প্রবল ফাপড়ে পড়েছে জেলা বিজেপি নেতৃত্ব।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিন এই প্রসঙ্গে কোচবিহার জেলা বিজেপির সভানেত্রী মালতি রাভা বলেন, “অমিত শাহের সভার জন্য দুটি মাঠ দেখা হলেও এখন পর্যন্ত মাঠ পাওয়ার কোনো ছাড়পত্র আসেনি। আমরা রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশের অপেক্ষায় আছি। মাঠের ছাড়পত্র এলেই জেলা প্রশাসনের কাছে সভার জন্য আবেদন করব।” সব মিলিয়ে কোচবিহার জেলায় রথযাত্রা কর্মসূচি উপলক্ষে জেলার ঠিক কোন জায়গায় সভার অনুমতি পায় বিজেপি এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!