এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > আবার কি চিকিৎসা- সংকটে বাংলা? এবার নার্সদের বৃহত্তর আন্দোলনে ঘুম উড়তে পারে সরকারের

আবার কি চিকিৎসা- সংকটে বাংলা? এবার নার্সদের বৃহত্তর আন্দোলনে ঘুম উড়তে পারে সরকারের

 

যে কোনো রাজ্যে স্বাস্থ্য, শিক্ষা এবং আইন-শৃঙ্খলা যদি ঠিকমত না চলে, তাহলে তা রাজ্যের মেরুদণ্ডকে অনেকটাই পঙ্গু করে দেয়। তাই সদাসর্বদা সরকারপক্ষ সচেষ্ট থাকে, যাতে এই তিন ক্ষেত্রে কোনরূপ অচলাবস্থা তৈরি না হয়। কিন্তু মানুষের দাবির কোনো শেষ নেই। আর তাই তো নিজেদের ন্যায্য দাবিতে আন্দোলন চালানোয় বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গে শিক্ষা এবং স্বাস্থ্যে ব্যাপক অচলাবস্থা তৈরি হয়েছে বলে দাবি বিরোধীদের।

পার্শ্ব শিক্ষকদের অবস্থান, বিক্ষোভ অনশন, আন্দোলনে এমনিতেই জর্জরিত রাজ্যের শিক্ষাব্যবস্থা। আর এবার নিজেদের দাবিতে রাত জাগার অভিনব অবস্থান-বিক্ষোভে নামতে দেখা গেল এসইউসিআইপন্থী নার্সিং সংগঠন নার্সেস ইউনিটিকে।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, এদিন সকাল দশটা থেকে পিজির নার্সিং সুপারের অফিসের সামনে নার্সদের এই বিক্ষোভ অবস্থান অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের বহু সরকারি হাসপাতাল থেকে নার্সরা এসে তাদের বিক্ষোভ জানাতে শুরু করেন। তাদের দাবি, প্রথমত, অবিলম্বে এই নার্সদের বেতনক্রম সংশোধন করতে হবে।

‘দ্বিতীয়ত, ইন্ডিয়ান নার্সিং কাউন্সিল সম্প্রতি দেশজুড়ে জিএনএম নার্সিং স্কুলগুলি বন্ধ করার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা অবিলম্বে প্রত্যাহার করার দাবি জানিয়েছেন তারা। শুধু তাই নয়, যতক্ষণ না তাদের এই দাবি মিটছে, ততক্ষণ তারা কোনোভাবেই অবস্থান-বিক্ষোভ, আন্দোলন থেকে সরবে না বলেও হুশিয়ারি দিয়েছে এই নার্সিং সংগঠন। ‘

এদিন এই প্রসঙ্গে সংগঠনের নেত্রী পার্বতী পাল বলেন, “1970 সালে শেষবার আমাদের বেতনক্রম পাল্টেছে। তারপর থেকে আর পে-স্কেলের পরিবর্তন হয়নি। আমরা অনেক ধৈর্য্য ধরেছি, আর নয়। দাবি না মানা পর্যন্ত অবস্থান চলবে। কোনো হাসপাতালে 250 জন নার্সের মধ্যে যদি 10-15 জন এখানে আসে, তাতে ভোগান্তি হয়! আমরা রোগী পরিষেবায় আঁচ ফেলতে দেব না।” তবে পার্বতী দেবী যে কথাই বলুন না কেন, তারা যদি নিজেদের দাবি থেকে সরে না আসেন, তাহলে যে রাজ্যের স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় ব্যাপক অশনিসংকেত দেখা দেবে, সেই ব্যাপারে আশঙ্কা প্রকাশ করতে শুরু করেছে একাংশ।

সমালোচক মহলেরও অনেকে বলছেন, সরকার পার্শ্ব শিক্ষকদের আন্দোলন, বিক্ষোভে কোনভাবেই মাথা নত করেনি। এক্ষেত্রেও যদি নার্সদের দাবিতে সরকা মাথা নত না করে, তাহলে রাজ্যের স্বাস্থ্যক্ষেত্রও কার্যত মেরুদণ্ডহীন হয়ে যাবে বলে দাবি বিরোধীদের। এখন কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় গোটা পরিস্থিতি, সেদিকেই নজর থাকবে বিশেষজ্ঞদের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!