এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বাংলায় লগ্নি আনতে দিল্লিতে 30 রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলেছেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র

বাংলায় লগ্নি আনতে দিল্লিতে 30 রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলেছেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র

 

বাংলায় শিল্প নেই, কর্মসংস্থান নেই বলে মাঝেমধ্যেই অভিযোগ করতে দেখা যায় বিরোধীদের। তবে এবার বিরোধীদের সেই অভিযোগ মিথ্যে করে বাংলায় বিদেশি বিনিয়োগ টানার লক্ষ্যে আগামী 21 নভেম্বর দিল্লিতে 30 টি রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলেছে রাজ্য সরকার। জানা গেছে, দিল্লির সেই বৈঠকে ফিকির প্রাক্তন সভাপতি ওয়াই কে মোদী বাংলায় বিনিয়োগের জন্য সমস্ত রাষ্ট্রদূতদের মনে উৎসাহ যোগাবেন।

পাশাপাশি অন্য রাজ্যের তুলনায় বাংলায় বিনিয়োগ কেন বেশি উপযুক্ত! তা সকলের সামনে তুলে ধরবেন অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। বস্তুত, আগামী 11 এবং 12 ই ডিসেম্বর দীঘার কনভেনশন সেন্টারের বিজনেস কনক্লেভ অনুষ্ঠিত হবে। আর তার আগে বৃহস্পতিবার দিল্লিতে এক হোটেলে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে অর্থমন্ত্রীর এই বৈঠক অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মত রাজনৈতিক মহলের।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, দিল্লির এই বৈঠকে আমেরিকা, ব্রিটেন, ফ্রান্স জাপান এবং ভুটানের মত 37 টি দেশের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবে। আর এই বৈঠকের পর বাংলায় বিনিয়োগের পথ আরও খুলে যাবে বলে মনে করছে রাজ্য সরকার। বিশেষজ্ঞদের একাংশ বলছেন, যখন রাজ্যে শিল্পের অভাবকে দায়ী করে রাজ্য সরকারকে বিধছে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো, ঠিক তখনই রাজ্যের এহেন উদ্যোগ বিরোধীদের সেই অভিযোগে ঝামা ঘষে দিতে পারে। অন্যদিকে জিএসটি সংগ্রহ কমে যাওয়ায় কেন্দ্রকে এবার কড়া ভাষায় আক্রমণ করলেন রাজ্যের অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র।

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই তিনি কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমানকে একটি চিঠিও দিয়েছেন। যেখানে তিনি প্রশ্ন করেছেন, যে, “সরকার বলছে গত দু’বছরে 44 হাজার 466 টাকার জিএসটি জালিয়াতি হয়েছে। এরপরেও তাতে কোনো উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না কেন!” সুতরাং একদিকে জিএসটি ইস্যুতে কেন্দ্রকে কটাক্ষ, আর অন্যদিকে বাংলায় লগ্নি টানতে দিল্লিতে 30 রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে অমিত মিত্রের বৈঠক। সব মিলিয়ে বাংলায় বিনিয়োগে সেই রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে আলোচনা করে রাজ্য কোনো সাফল্য পায় কিনা, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!