এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বাঁকুড়ার খরা রুখতে মানবিক মুখ্যমন্ত্রী, 369 প্রকল্পে বরাদ্দ 150 কোটি

বাঁকুড়ার খরা রুখতে মানবিক মুখ্যমন্ত্রী, 369 প্রকল্পে বরাদ্দ 150 কোটি

ফের মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়নের জোয়ারে ভাসতে চলেছে বাঁকুড়া জেলা। এবার খড়াপ্রবন বাঁকুড়ায় সেচ ব্যবস্থার উন্নতির জন্য দেড়শ কোটি টাকা বরাদ্দ করছে রাজ্য সরকার। জানা গেছে, রাজ্যের বরাদ্দকৃত এই টাকায় জেলায় মোট 369 টি প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সেচ, কৃষি-সেচ, জেলাপরিষদ প্রভৃতি বিভাগের মাধ্যমে সেচ ব্যবস্থার উন্নতির জন্য বিভিন্ন প্রকল্প রূপায়ণে সাধারণ বাস্তুকার ও আধিকারিকরা নিজেদের মধ্যেই ঠান্ডা ঘরে বসে বৈঠক করেন। ফলে বেশিরভাগ সময়েই বাস্তবের সঙ্গে তাদের আলোচনায় অনেকটাই তফাৎ থেকে যায়। আর এর ফলে এই প্রকল্প রূপায়িত হওয়ার পরে সেখানকার গ্রাহক বা উপভোক্তারা নানা রকম অভিযোগ তুলতে শুরু করেন। ফলে কৃষকরা তাদের ন্যায্য দাবি দাওয়া থেকে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই বঞ্চিত হয়।

এদিকে অভ্যন্তরীণ এই সমস্যাটিকে উপলব্ধি করে গত 30 অগাস্ট বাঁকুড়ার রবীন্দ্রভবনে জেলাশাসক উমাশংকর এসের নেতৃত্বে একটি “কৃষক দরবারের” নামে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। যেখানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী আশিস বন্দোপাধ্যায়, মুখ্যমন্ত্রীর কৃষি উপদেষ্টা প্রদীপ মজুমদার ও জেলা প্রশাসনের অন্যান্য আধিকারিকেরা।

জানা যায়, এই বৈঠকেই জেলা প্রশাসনের আধিকারিকেরা চাষীদের সমস্ত সমস্যার কথা লিপিবদ্ধ করে তা খতিয়ে দেখার আশ্বাস দেন, এবং কৃষিমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রীর কৃষি উপদেষ্টাও সেই সভায় প্রকল্প রূপায়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে যান। আর এরই মাঝে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে বাঁকুড়ায় ক্ষুদ্র সেচ প্রকল্পের জন্য জেলা প্রশাসনের কাছে রাজ্য থেকে অর্থ মঞ্জুরের খবর আসে।

আর সাথে সাথেই দ্রুত এই প্রকল্পের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে তড়িঘড়ি কাজ শুরু করার নির্দেশ দেন বাঁকুড়ার জেলাশাসক। জেলা প্রশাসন সূত্রের খবর, এই বাঁকুড়ার সেচের পরিকাঠামো অত্যন্ত দুর্বল। শালতোড়া, ছাতনা, ইন্দপুর, হীড়বাঁধ, গঙ্গাজলঘাটি, বাঁকুড়া 1 ও 2 সহ বিভিন্ন ব্লকে প্রভূত খড়ার জেরে ধান জমি শুকিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি চাষিরা চরম সংকটে পড়েছেন। আর তাই সেই ক্ষতিগ্রস্ত মৌজাগুলিকে খরা হিসেবে ঘোষণার দাবিও জানাচ্ছেন তারা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিকে রাজ্যের পক্ষ থেকে এই সেচ প্রকল্পে অর্থ পেয়ে এদিন এই প্রসঙ্গে বাঁকুড়া জেলাশাসক উমাশঙ্কর এস বলেন, “2017-18 আর্থিক বছরে জেলায় ক্ষুদ্রসেচের জন্য 138 টি প্রকল্প রূপায়িত হলে সেখানে এই জেলা মোটে 40 কোটি টাকা পেয়েছিল।

কিন্তু এবার আমরা চাষীদের মুখ থেকে তাদের দাবিদাওয়া শুনে এইখানে 500 টি প্রকল্প চূড়ান্ত করি। যার মধ্যে 369 টিতে অনুমোদন দিয়ে 150 কোটি টাকা মঞ্জুর করেছে। আগামী দিনে জেলার বাকি প্রকল্পগুলোরও অনুমোদন হবে বলে আমরা আশা রাখছি।” সব মিলিয়ে বাঁকুড়ার খরা রুখতে রাজ্যের এহেন উদ্যোগে প্রশংসায় পঞ্চমুখ সকলেই।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!