এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > জরিমানা নিয়ে ব্যাংকের ঘরে ঢুকলো বিপুল অর্থ ,জেনে নিন কত?

জরিমানা নিয়ে ব্যাংকের ঘরে ঢুকলো বিপুল অর্থ ,জেনে নিন কত?

গত বছর এপ্রিল মাসে ব্যাঙ্ক ব্যবস্থায় একটি নতুন নিয়মের সুচনা হয়। সেই নিয়ম মোতাবেক গ্রাহকের ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে নূন্যতম ব্যালেন্স না থাকলে তাঁকে আর্থিক জরিমানা করা হবে বলে ঘোষণা করা হয়। প্রসঙ্গত ব্যাঙ্কের এই পদক্ষেপ নেওয়ার পিছনে প্রকৃত উদ্দেশ্য ছিলো রাষ্ট্রায়ত্ব ব্যাঙ্কগুলির লোকসানের পরিমাণ হ্রাস করা।

ব্যাঙ্কগুলির এই পদক্সকেপ নেওয়ার ফলস্বরূপ ব্যাঙ্কিং সংক্রান্ত তথ্য মোতাবেক জানা যাচ্ছে ২০১৭-১৮ অর্থবর্ষে ২৪ টি ব্যাঙ্ক মিলিয়ে গ্রাহকদের অ্যাকাউন্টে নূন্যতম ব্যালন্স রাখতে না পারার কারণে মোট ৫ হাজার কোটি টাকা আদায় হয়েছে। এরমধ্যে ভারতীয় স্টেট ব্যাঙ্কই একক উদ্যোগে আদায় করেছে প্রায় ২ হাজার ৪৩৩ কোটি টাকা। জরিমানা আদায়ের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে এইচডিএফসি ব্যাঙ্ক। এই ব্যাঙ্কের জরিমানাকৃত অর্থের পরিমাণ ৫৯০ কোটি টাকা। যা সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কের পূর্ববর্তী অর্থবর্ষ ২০১৬-১৭ থেকে সামাণ্য কম।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

কারণ বিগত অর্থবর্ষেই জরিমানাকৃত অর্থ আদায়ের পরিমাণ ছিলো প্রায় ৬১৯ কোটি টাকা। জরিমানাকৃত অর্থ আদায়ের পরিমানের নিরিখে অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক রয়েছে তৃতীয় স্থানে। এই ব্যাঙ্ক নিজের গ্রাহকদের কাছ থেকে প্রায় ৫৩০ কোটি টাকা জরিমানা আদায় করেছে। ৩১৭ কোটি টাকা জরিমানা আদায় করে তালিকার চতুর্থ স্থানে রয়েছে আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক। উল্লখ্য গত বছর এপ্রিল মাসে দীর্ঘ ৫ বছর পরে ন্যূনতম ব্যালেন্স না থাকলে জরিমানা করার নিয়ম চালু করে ভারতীয় স্টেট ব্যাঙ্ক।

এই সিদ্ধান্তের ফলে দেশজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি হয়। বিরোধী দলগুলি এই সময়ে সরকারের সমালোচনায় সোচ্চার হয়ে ওঠে। তারা দাবি করে সাধারণ মানুষজনের পক্ষে মাসের শেষ তারিখে ব্যাঙ্কের নূন্যতম ব্যালেন্স রাখার শর্ত পূরণ করা সম্ভব নয়। এরপর যদি জরিমানার বোঝা এসে মানুষের ঘাড়ে চাপে তাহলে কঠিন সমস্যায় পড়তে হবে গরিব মানুষকে। ব্যাপক প্রতিবাদ এবংসমালোচনার জেরে শেষ অবধি গত বছর অক্টোবর মাসে ন্যূনতম ব্যালেন্স না থাকলে জরিমানার পরিমাণে কিছুটা স্থিতিলতা আনা হয়। কিন্তু এতেও পরিস্থিতির সেইরকম কোনো পরিবর্তন হয়নি। নূন্যতম ব্যালেন্স না থাকার দরুন গ্রাহকের কাছ থেকে জরিমানা বাবদ আদায়ীকৃত অর্থের সৌজন্যে অনায়াসেই ব্যাঙ্কের অর্থ ভাণ্ডার পরিপূর্ণ হচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!