এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > পুরসভায় নিয়োগ ঘিরে গাফিলতির অভিযোগ তৃণমূলের , জেনে নিন

পুরসভায় নিয়োগ ঘিরে গাফিলতির অভিযোগ তৃণমূলের , জেনে নিন

আর কিছুদিনের মধ্যেই রাজ্যে হতে চলেছে পুরসভার নির্বাচন। এই পুরসভার নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এতদিন পর্যন্ত শাসকদলের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলে বিরোধীরা বলতো, পুরসভার নির্বাচনের প্রাক্কালে জনমোহিনী সিদ্ধান্ত নিয়ে তাঁরা চাকরির সুযোগ করে দিচ্ছে বেকার যুবক-যুবতীদের। যাতে ভোটের সময় তাঁদের কথা মানুষ মনে রাখে। কিন্তু এবার সম্পূর্ণ উল্টো ছবি দেখল শিলিগুড়ি পুরসভা। সম্প্রতি শিলিগুড়ি পুরসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে প্রায় 55 জন কর্মী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। আর এই নিয়েই এবার বিরোধী মন্তব্য করছে রাজ্যের শাসক দল। উল্লেখ্য, শিলিগুড়ি পৌরসভাটি বাম বোর্ড দ্বারা পরিচালিত।

যদিও সূত্রের খবর, রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় পুরসভায় কর্মী নিয়োগ শুরু হয়েছে পৌরসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে। একইভাবে শিলিগুড়ি পুরসভাতেও বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে প্রায় 55 জন কর্মী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। তবে গোল বেধেছে অন্যত্র। শিলিগুড়ি পুরসভার ওয়েবসাইটটিতে এই নিয়োগের সম্পূর্ণ বিবরণ দেওয়া ছিল। কিন্তু গত 3-4 দিন ধরে এই ওয়েবসাইটটি খুলছেনা। যার ফলে আবেদন করতে আগ্রহী চাকরিপ্রার্থীরা পড়েছেন বিপাকে।

অন্যদিকে শিলিগুড়ি পুরসভার আইটি সেল জানিয়েছে, এত প্রচুর পরিমানে ভিজিটর এর কারনে ওয়েবসাইটটি বসে গেছে। যার ফলে এ ধরনের সমস্যা তৈরি হয়েছে। তাই এই মুহূর্তে ওয়েবসাইটটি ঠিক করার জন্য কাজ চলছে। অন্যদিকে পুরসভার বিরোধী দল তৃণমূল কংগ্রেস দাবি করেছে, পরিকল্পিতভাবেই শিলিগুড়ি পুরসভায় এ ধরনের কাজ করা হচ্ছে। অর্থাৎ লোককে বোকা বানানো চলছে। এ প্রসঙ্গে তৃণমূলের দলনেতা রঞ্জন সরকার জানিয়েছেন, পুরসভার কর্মী নিয়োগে অবশ্যই স্বচ্ছতা থাকা দরকার।

কিন্তু বাম পরিচালিত শিলিগুড়ি পুরবোর্ড সেই স্বচ্ছতা বজায় রাখবে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ আছে। তিনি আরো দাবি করেছেন, শিলিগুড়ি পুরকর্তৃপক্ষ তাঁদের ওয়েবসাইটে কোন অডিট রিপোর্ট রাখেননি। যা নিয়ে যথেষ্ট জলঘোলা চলছে শিলিগুড়ির রাজনৈতিক মহলে। অন্যদিকে, এই অভিযোগের ভিত্তিতে শিলিগুড়ি পৌরসভার সচিব সপ্তর্ষি নাগ জানিয়েছেন, ‘টেকনিক্যাল কিছু সমস্যার কারণে ওয়েবসাইটে সমস্যা দেখা দিয়েছে। আমরা দ্রুত সচল করার চেষ্টা করছি।’ সূত্রের খবর, এই মাসের অর্থাৎ ফেব্রুয়ারীর 18 তারিখে শিলিগুড়ি পৌরসভার কর্মী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী সুইপার পদে 36 জন, লেবার পদে 11 জন, মজদুর ও গার্ড পদে একজন করে মোট দুজন এবং পিয়ন পদে 6 জনকে নিয়োগ করা হবে। নিয়োগের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, শুধুমাত্র 18 থেকে 40 বছরের মধ্যে যাঁরা তারাই আবেদন করতে পারবেন। উল্লেখিত প্রতিটি পদের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা হতে হবে অষ্টম শ্রেণী উত্তীর্ণ। আবেদন করার শেষ তারিখ শিলিগুড়ি পুরসভার পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল বিশে মার্চ। কিন্তু বেশ কিছুদিন ধরে শিলিগুড়ি পুরসভার ওয়েবসাইটটিতে গন্ডগোল থাকার দরুণ আবেদন করতে ইচ্ছুক প্রার্থীরা সাইটটি খুলতে পারছেননা।

তাই পুরসভার নির্দেশ সম্বলিত আরও একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। শিলিগুড়ি পুরভবন থেকে বলা হয়েছে, সরাসরি পুরভবনে এসে এবার আবেদনপত্র জমা করতে পারবেন। প্রার্থীরা ওয়েবসাইট খুলছে না বলে পুরসভার ফোন নাম্বারে ফোন করলেও সেখানেও বিপত্তি। বেশিরভাগ সময় লাইন ব্যস্ত থাকছে। তাই এবার চাকরিতে আবেদনকারী প্রার্থীদের মাথায় হাত। কারণ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পুরসভায় আবেদনপত্র পৌঁছাবে কিনা, তা নিয়ে যথেষ্ট দুশ্চিন্তাগ্রস্ত তাঁরা বলে জানা গেছে।

ওয়েবসাইট বসে যাওয়া প্রসঙ্গে পুরসভার আইটি সেল জানিয়েছে, শিলিগুড়ি পুরসভার ওয়েবসাইটটির ধারণক্ষমতা প্রতিমাসে 30 জিবি। কিন্তু চাকরিতে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির পরে ওই ওয়েবসাইটে ভিজিটর সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকে। ফলে ওয়েবসাইটের ধারণক্ষমতা আরও 10 জিবি বাড়িয়ে 40 জিবি করার পরেও কোন কাজ হয়নি। আপাতত ওয়েবসাইটটি বন্ধ হয়ে গেছে। এ প্রসঙ্গে আইটি সেলের টেকনিক্যাল কর্তারা জানিয়েছেন, যেখানে পুরসভার ওয়েবসাইটে আগে প্রতিদিন গড়ে 400 জন ভিজিট করত, সেখানে চাকরির বিজ্ঞপ্তি আসার পর ভিজিটরের সংখ্যা প্রায় 25 গুণ বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে।

যার ফলে পুরসভার সার্ভারের গতি ক্রমশ হ্রাস পায়। এই মুহূর্তে পুরসভার ওয়েবসাইটটিকে আবার বাঁচিয়ে তোলার চেষ্টা চলছে, তবে তা সময়সাপেক্ষ ব্যাপার বলেই জানা গেছে। ইতিমধ্যে অবশ্য শিলিগুড়ি পুরসভার এই নিয়োগ নিয়ে জোর সমালোচনা শুরু হয়েছে। এ প্রসঙ্গে বিরোধীরা দাবি করছে, পুরভোটের হাওয়া নিজেদের পালে টানার জন্যই শিলিগুড়ি পুরসভার বাম অধিকর্তারা এতদিন পর ঠিক পুরসভা ভোটের মুখেই কর্মী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন। তবে এই মুহূর্তে শিলিগুড়ি পুরসভার নির্বাচনের আগে বামেরা জল মেপে নেওয়ার চেষ্টা করছে বলে দাবি রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের। আপাতত পুরো ব্যাপারটির ওপর নজর রাখবে ওয়াকিবহাল মহল।

 

আপনার মতামত জানান -
ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!