এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > বালুরঘাটে ক্রমশ জমজমাট ভোটের প্রচার ও দলবদল – জমি ছাড়তে রাজি নয় তৃণমূল-বিজেপি কেউই

বালুরঘাটে ক্রমশ জমজমাট ভোটের প্রচার ও দলবদল – জমি ছাড়তে রাজি নয় তৃণমূল-বিজেপি কেউই

Priyo Bandhu Media

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের শাসক বনাম বিরোধী রাজনৈতিক লড়াই জমজমাট হয়ে উঠেছে। একদিকে যেমন সকাল থেকে দিনভর প্রচার করে বিভিন্ন এলাকা মাত করে তুলছেন বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষ, ঠিক তেমনই অর্পিতাকে পাল্টা চাপে ফেলে দিয়ে গোটা বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্র চষে বেড়াচ্ছেন বিজেপি প্রার্থী সুকান্ত মজুমদারও।

সূত্রের খবর, সোমবার সকাল থেকে বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সুকান্ত মজুমদার দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা বিজেপির সভাপতি শুভেন্দু সরকারকে সাথে নিয়ে গঙ্গারামপুর ব্লকের নাড়ই, সুকদেবপুর, কালদিঘি ও পুরাতন গঙ্গারামপুর এলাকায় রোড শো করে বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট প্রার্থনা করেন।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

পাশাপাশি কেশবপুর ও সুকদেবপুর এলাকাতেও দুটি নির্বাচনী জনসভা করেন বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী। মূলত তৃণমূলের জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্রর গড়ে বিজেপির বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী সুকান্ত মজুমদারের এহেন জনসভার পেছনে অনেক রাজনৈতিক গুরুত্ব রয়েছে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহলের একাংশ।

কেননা তৃণমূল এই বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী হিসেবে এবারও ফের অর্পিতা ঘোষের নাম ঘোষণা করার সাথে সাথেই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল সভাপতি বিপ্লব মিত্র প্রকাশ্যে অর্পিতা দেবীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করতে থাকে। যার ফলে আড়াআড়িভাবে দ্বিধাবিভক্ত হয়ে যায় শাসক শিবির। আর লোকসভা নির্বাচনের আগে সেই দক্ষিণ দিনাজপুরের দাপুটে নেতা হিসেবে পরিচিত বিপ্লব মিত্রের গড়ে কিভাবে বিজেপি বড় বড় জনসভা করার সুযোগ পাচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন তৃণমূলেরই একাংশ।

তাহলে কি প্রকাশ্যে দলীয় প্রার্থীর অনুকূলে বিপ্লববাবু সভা করলেও তলায় তলায় তার অনুগামীরা আদতে বিজেপিকেই সুবিধা করে দিচ্ছেন! জল্পনা তুঙ্গে রাজনৈতিক মহলে। আর বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সুকান্ত মজুমদার যখন বিভিন্ন জায়গায় প্রচার করছেন, ঠিক তখনই সোমবার সকাল থেকে বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষের সমর্থনে কুসমন্ডির চন্ডিপুর এবং কন্দহ এলাকায় বাড়ি বাড়ি গিয়ে কেন্দ্রের মোদি সরকারের বিভিন্ন জনবিরোধী প্রকল্পের কথা তুলে ধরে রাজ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার কি কি কাজ করেছেন তা সাধারণ মানুষের কাছে তুলে ধরেন রাজ্য তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভাপতি ত্রিনাঙ্কুর ভট্টাচার্য।

অন্যদিকে এদিনই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার গঙ্গারামপুর ব্লকের পুরাতন গঙ্গারামপুরের নাড়ই এলাকায় নির্বাচনী সভায় উপস্থিত হন বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষ। যেখানে উপস্থিত ছিলেন গঙ্গারামপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান প্রশান্ত মিত্র সহ অন্যান্যরা।

জানা যায়, এখানেই বিজেপি এবং সিপিএমের প্রায় কয়েকশো কর্মী তৃণমূল কংগ্রেসে যোগদান করেন। আর অন্য দল থেকে আসা কর্মীদের হাতে তৃণমূলের পতাকা তুলে দিয়ে গঙ্গারামপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান প্রশান্ত মিত্র বলেন, “গঙ্গারামপুরের নাড়ই এলাকার নির্বাচনী জনসভায় অনেক শুভবুদ্ধিসম্পন্ন ভাই-বোনেরা তৃণমূলে যোগদান করেছেন। আর লোকসভা ভোটের আগে এই যোগদান আমাদের দলের শক্তি আরও বৃদ্ধি করল। আশা করি আগামী লোকসভা নির্বাচনের ফলাফলে আমাদের প্রার্থী বিপুল ভোটে জয়লাভ করবেন।”

অন্যদিকে বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্র দখলের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী বিজেপি প্রার্থী সুকান্ত মজুমদার। এদিন তিনি বলেন, “নির্বাচনের আর বেশি দিন বাকি নেই। আমরা সকলের কাছেই সমর্থন চাইছি। এবারে বালুরঘাটের মানুষ বিজেপির সাথেই হয়েছে।” সব মিলিয়ে এখন শাসক-বিরোধী তরজা এবং প্রচারে শেষ পর্যন্ত এই বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রে কে শেষ হাসি হাসে তা দেখবার জন্য অপেক্ষা করতেই হবে আগামী 23 মে পর্যন্ত।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!