এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বাগরি মার্কেটে আগুন – শুধু ১০০ কোটি টাকার ওষুধই নষ্ট, বড়সড় বিপর্যয়ের আশঙ্কা রাজ্যজুড়ে

বাগরি মার্কেটে আগুন – শুধু ১০০ কোটি টাকার ওষুধই নষ্ট, বড়সড় বিপর্যয়ের আশঙ্কা রাজ্যজুড়ে

বিপদ বলে কয়ে আসে না। আর তাইতো সেই  বিপদের ঝলকানিতে বিপর্যস্ত হয়ে যেতে বসেছে বাগরি মার্কেটের ওষুধের দোকানগুলি। যেই ব্যাবসা থেকে তাঁদের মৌল আয়, এবার সেই ব্যাবসার সমস্ত সরঞ্জাম আগুনের গ্রাসের মুখে পড়ে নষ্ট হয়ে যেতে বসেছে। কি করবেন, কিভাবে পরিবারকে নেয়ে ঘোরে দাড়াবেন তা বুঝতে পারছেন না কেউই।

সূত্রের  খবর, এদিন দুপুরে যখন বিসিডিএর অফিসে বসে প্রতিবেদকদের সাথে আলোচনা করছিলেন ব্যাবসায়ী বিনয়কুমার আভানী ঠিক তখনই বাগরির পাঁচতলায় তাঁর ওষুধের দোকান চলে যাচ্ছিল অগ্নির গহ্বরে। এদিকে রবিবার সকাল আটটা নাগাদ দোকানে আগুন লাগার খবর পেয়ে দৌড়ে ছুটে গেলেও তখন অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে। চোখের সামনে নিজের দোকান পুড়তে দেখলেন ভবানীপুরের বাসিন্দা বিনয়জী। ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করলেন ঠিকই কিন্তু আগুনের গ্রাস তাঁকে বাধা দিয়েই ছাড়ল।

সূত্রের খবর, এখনও পর্যন্ত 25 টি ওষুধের দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে। আর এর মধ্যে 15 টি হোলসেলারের এবং 10 টি সেমি হোলসেলারের দোকান রয়েছে। জানা গেছে, ওষুধ, ইঞ্জেকশন, চিকিৎসার যন্ত্রপাতি, সার্জিক্যাল মিলিয়ে ক্ষতি প্রায় 25 থেকে 30 কোটি টাকা এবং কম্পিউটার, দোকানের অন্যান্য মালপত্র বাবদ ক্ষতির অঙ্কটা ধরলে তা দাড়াবে প্রায় 100 কোটির কাছাকাছি। এই পরিস্থিতিতে ঠিক কী করা যায় তা নিয়ে সোমবার দুপুরে এজরা স্ট্রিটের সংগঠনের অফিসে বাগরির ক্ষতিগ্রস্ত ওষুধের দোকানদারকে নিয়ে একটি বৈঠক করেন ওষুধ ব্যাবসায়ীদের সর্ববৃহৎ সংগঠন বেঙ্গল কেমিষ্ট অ্যান্ড ড্রাগিষ্ট অ্যাসোসিয়েশনের পাইকারি ব্যাবসা শাখার সম্পাদক চন্দ্রেশ সাংভি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিন তিনি বলেন, “কমবেশি প্রত্যেকেরই ক্ষতি হয়েছে। এখন কি করে এরা ঘুরে দাড়াবে সেটাই মূল চিন্তার বিষয়। একই কথা বলে উষ্মা প্রকাশ করেছেন বিসিডিএর হোলসেল মার্কেট শাখার সভাপতি চিত্তরঞ্জন চৌধুরী। কিন্তু এতদিনের ব্যাবসা আর ঘুরে দাড়ানোর মত জমানো টাকা নেই ব্যাবসায়ীদের? এই প্রশ্নের উত্তরে সেই চিত্তরঞ্জন চৌধুরী বলেন, “যাদের বাগরি ছাড়া অন্য জায়গায় দোকান আছে তারা এই পরিস্থেতিকে সামলে নিলেন শুধু বাগরিতেই দোকান থাকা দোকানদারদের কি হবে?” সত্যিই এই প্রশ্নের উত্তর জানেন না কেউই। তাই এখন সকলেই চাইছেন স্বাভাবিক হোক বাগরি।

 

Top
error: Content is protected !!