এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > জেলা পরিষদের বাজেটে জেলা সভাধিপতির আপ্ত সহায়ককে মারতে গেলেন তৃণমূলনেতা

জেলা পরিষদের বাজেটে জেলা সভাধিপতির আপ্ত সহায়ককে মারতে গেলেন তৃণমূলনেতা

সোমবার মালদা জেলা পরিষদের ২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের বাজেট সভা অনুষ্ঠিত হলো। এদিন বেলা ১২টা থেকেই বিনয় সরকার অতিথি আবাসে আসতে শুরু করেন শাসকশিবিরের সদস্যরা। এদিনের সভায় বিরোধীদের উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়নি। বৈঠক শুরুর সময়ের কিছু আগে থেকেই সভাকক্ষ থেকে চিৎকার চেঁচামেচি শোনা যায়। দেখা যায়, জেলা পরিষদের সভাধিপতির আপ্ত সহায়ক সন্দীপ রায়ের দিকে আঙুল উঁচিয়ে কার্যতই মারমুখী মেজাজে তেড়ে যাচ্ছেন মৎস্য কর্মাধ্যক্ষ সামশুল হক। সেইসময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের দায়িত্বপ্রাপ্ত অতিরিক্ত জেলাশাসক মলয় মুখোপাধ্যায়, সভাধিপতি সরলা মুর্মু, সহকারী সভাধিপতি গৌরচন্দ্র মণ্ডল সহ আরও অনেকে। এরপরে সবাই মিলে মৎস্য কর্মাধ্যক্ষকে শান্ত করেন। যদিও ঘটনাস্থানে উপস্থিত অতিরিক্ত জেলাশাসক বিষয়টিকে ছোটো ঘটনা বলে উল্লেখ করেছেন। সামশুল সাহেবের উত্তেজিত হওয়ার কারণ খতিয়ে দেখতে গিয়ে জেলা পরিষদ সূত্রে জানা গেছে, সাম্প্রতিক বন্যায় মালদার ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্যজীবীদের জন্য ৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে রাজ্য সরকার। বিশেষ করে যাঁদের মাছ ধরার জাল, নৌকো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বা বন্যায় পুকুরের মাছ ভেসে গেছে, তাঁদেরই এই ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে বলে রাজ্যের তরফ থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ক্ষতিপূরণ পেতে হলে ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্যজীবীদের প্রথমে জেলা পরিষদে আবেদন জানাতে হবে। সেই আবেদনপত্র খতিয়ে দেখে এবং তদন্ত সাপেক্ষে ক্ষতিগ্রস্ত মৎস্যজীবীদের তালিকা প্রস্তুত করবে জেলা পরিষদ। সামশুল সাহেব রতুয়া থেকে নির্বাচিত জেলা পরিষদ সদস্য। আজ যখন বাজেট বৈঠকের জন্য জেলা পরিষদের সবাই যে যার কাজে ব্যস্ত ঠিক সেইসময়ই রতুয়া এলাকা থেকে কয়েক হাজার মৎস্যজীবী জেলা পরিষদে উপস্থিত হন ক্ষতিপূরণের আবেদন জানাতে । এদিন মৎস্যজীবীদের জেলা পরিষদে উপস্থিতির বিষয়ে কোনও আগাম খবর ছিল না । হঠাৎ করে মৎস্যজীবিদের জেলা পরিষদে উপস্থিত হতে দেখে খোদ জেলাশাসক অতিরিক্ত জেলাশাসক মলয় মুখোপাধ্যায়কে ফোন করলেন। সেইসময় সামশুল সাহেবকে সভাধিপতির আপ্ত সহায়ক সন্দীপ রায় মৎস্যজীবীদের আসার আগাম খবর তিনি জেলা পরিষদে আগে জানাননি কেন এই বিষয়ে প্রশ্ন করলে উত্তেজিত হয়ে ওঠেন সামশুল সাহেব। একজন সরকারিকর্মীকে আঙুল তুলে হুমকি দেওয়ায় মৎস্য কর্মাধ্যক্ষের বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ হবে কি না এই মর্মে অতিরিক্ত জেলাশাসক মলয় মুখোপাধ্যায় কে প্রশ্ন করা হলে তিনি বললেন, “এটা ছোটো ঘটনা। কোনও কারণে উত্তেজনার বশে এই ঘটনা ঘটেছে। তাঁরা বিষয়টি মিটিয়ে ফেলবেন।” এদিকে সামশুল সাহেবের দাবি, আজ কোনও ঘটনাই ঘটেনি।” বাজেট পেশ করার পর সভাধিপতি সরলা মুর্মু সাওংবাদিক বৈঠকে বললেন, “২০১৮-১৯ অর্থবর্ষের জন্য জেলা পরিষদের ৩৭১ কোটি টাকার বাজেট পেশ হয়েছে। গতবারের থেকে যা ১২৬ কোটি টাকা বেশি। গতবার জেলা পরিষদের বাজেট ছিল ২৪৫ কোটি টাকার। ৩৭ জন সদস্যের উপস্থিতিতে এই বাজেট পাশ হয়েছে। এবারের বাজেটে গ্রামীণ পরিকাঠামো উন্নয়নে জোর দেওয়া হয়েছে। পানীয় জল, রাস্তাঘাট ও বিদ্যুতের সঙ্গে এবার জোর দেওয়া হয়েছে দুঃস্থ মানুষদের গৃহ প্রকল্পে। এই প্রকল্পে গরিবদের জন্য ১ লাখ ২০ হাজার টাকায় ঘর তৈরি করে দেওয়া হবে।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!