এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > শুধু আয়ুষ্মান ভারতেই ক্ষান্ত নন – কেন্দ্র বিরোধী আরো বড় যুদ্ধের ইঙ্গিত দিলেন মুখ্যমন্ত্রী, শঙ্কিত শিক্ষামহল

শুধু আয়ুষ্মান ভারতেই ক্ষান্ত নন – কেন্দ্র বিরোধী আরো বড় যুদ্ধের ইঙ্গিত দিলেন মুখ্যমন্ত্রী, শঙ্কিত শিক্ষামহল



সম্প্রতি কৃষ্ণনগরের জনসভার মঞ্চ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের আয়ুষ্মান প্রকল্প থেকে রাজ্যবাসীকে সরে দাঁড়ানোর বার্তা দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই ঘটনার এক সপ্তাহ কাটতে না কাটতেই ইউনিভার্সিটি গ্রান্ট কমিশন বা ইউজিসি-র প্রসঙ্গ তুলে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে ফের ক্ষোভ উগড়ে দিলেন তিনি। শিক্ষাখাতে বরাদ্দ অর্থ নেই,অথচ একটার পর একটা ফতোয়া জারি করে চলেছে ইউজিসি, এই অভিযোগকে সামনে রেখেই কেন্দ্রের শাসকদলকে তুলোধনা করলেন মুখ্যমন্ত্রী।

গতকাল শিক্ষাদফতরের রিভিউ বৈঠক ডেকেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই বৈঠকে রাজ্য সরকার পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সহ বেশ কিছু কলেজের অধ্যক্ষও। হাজির ছিলেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী সামনে ইউজিসি নিয়ে অসন্তোষ জাহির করেন উপাচার্য এবং অধ্যক্ষরা। শিক্ষাখাতে প্রয়োজনীয় বরাদ্দ অর্থ না দিয়ে ইউজিসি কেবল একের পর এক ফতোয়া জারি করেই চলেছে।

বিভিন্ন পদ্ধতি অনুসরণ করতে বলছে এসব জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে অভিযোগ করেন উপাচার্য এবং অধ্যক্ষেরা। তারপরই মেজাজ বিগড়ে যায় মুখ্যমন্ত্রীর। ইউজিসির পাশাপাশি এনসিআরটি-র ভূমিকাকেও তীব্র বাক্যবাণে বিদ্ধ করেন তিনি। এনসিআরটি যেভাবে শিক্ষায় মেরুকরণের রাজনীতি করছে,তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে যাবতীয় ক্ষোভ উগড়ে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

 


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

উল্লেখ্য,রাজ্যের শিক্ষানীতি কেমন হওয়া উচিত? এ প্রসঙ্গে বরাবরই সরব থেকেছেন মুখ্যমন্ত্রী। এমনকি দফায় দফায় তাকে এ ব্যাপারে কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের বিরোধিতাও করতে দেখা গিয়েছে। স্কুল ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ভিডিও কনফারেন্সের কটাক্ষও করেছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী।

এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে গিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বোর্ড স্বীকৃত কোনো স্কুলগুলোকে প্রধানমন্ত্রীর এই ভিডিও কনফারেন্সে অংশ নিতে দেননি তিনি। চলতি মাসের শেষে ফের প্রধানমন্ত্রী তাঁর ‘পরীক্ষা পে চর্চা’ অনুষ্ঠান নিয়ে স্কুল পড়ুয়াদের মুখোমুখি হবেন। সেই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের ব্যাপারে রাজ্যের কাছে কেন্দ্রের তরফ থেকে কোনো চিঠি এসেছে কিনা সে ব্যাপারেও কোনো স্পষ্ট তথ্য নেই। এই প্রেক্ষিতে রাজ্যের শিক্ষা দফতরের রিভিউ মিটিং-এ ইউজিসিকে যেভাবে তুলোধনা করলেন মুখ্যমন্ত্রী,রাজ্যের ছাত্রছাত্রীদের কেন্দ্রের ক্ষোভের শিকার হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

ইউজিসি থেকে বেরিয়ে এলে সর্ব ভারতীয় শিক্ষাক্ষেত্রে পশ্চিনবঙ্গের ছাত্রছাত্রীরা সুযোগ পাবেন কিনা তা নিয়েও চিন্তায় কপালে ভাঁজ পড়েছে শিক্ষামহলের। সম্প্রতি বিভিন্ন ইস্যুতেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় একনাগাড়ে কেন্দ্রের বিরোধীতা করে চলেছেন। যখনই সুযোগ পাচ্ছেন তখনই কেন্দ্রের বিভিন্ন নীতি যে কতোটা জনস্বার্থবিরোধী সেটাই প্রমাণ করতে উঠে পড়ে লেগেছেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী যেভাবে এদিন ইউজিসিকে আক্রমণ করলেন তাতে মোদীর ‘পরীক্ষা পে চর্চা’ কর্মসূচি নিয়েও এবার এ রাজ্যে বিতর্কের সম্ভাবনা রয়েছে বলেই মনে করছেন অভিজ্ঞমহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!