এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > হেরে যাওয়া বিধানসভাগুলিতেও সংগঠন আরও মজবুত করে বিধানসভায় বাজিমাত করতে উদ্যোগী বিজেপি

হেরে যাওয়া বিধানসভাগুলিতেও সংগঠন আরও মজবুত করে বিধানসভায় বাজিমাত করতে উদ্যোগী বিজেপি

নির্বাচন শেষে যে রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরা পরাজিত হন তাদের আর সেই ভাবে মাঠে ময়দানে পড়ে থাকতে দেখা যায় না। আর বঙ্গ রাজনীতিতে দীর্ঘদিন এই ট্রাডিশন চলে আসলেও আগামী 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনকে টার্গেট করে এবার পরাজিত প্রার্থীদেরও নিজ নিজ কেন্দ্রে ঘাঁটি গেড়ে মানুষের সাথে নিবিড় যোগাযোগ রাখার কথা জানিয়ে দিয়েছে গেরুয়া শিবির।

বস্তুত, এবারে বাংলায় 42 টি লোকসভা আসনের মধ্যে তৃণমূলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলে বিজেপি 18 টি আসন নিজেদের দখলে রেখেছে। তবে আরও কিছু আসন নিজেদের দখলে রাখার ব্যাপারে গেরুয়া শিবির আত্মবিশ্বাসী হলেও উত্তরবঙ্গে তাদের অন্যতম সেফ সিট বলে পরিচিত কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি দক্ষিণ মালদহে বিজেপি পদ্ম ফোটাতে পারেনি। কিন্তু পরাজিত হয়ে গেলেও এই দক্ষিণ মালদহ লোকসভা কেন্দ্রের যে সমস্ত বিধানসভায় তারা হেরেছে, এবার সেই সমস্ত বিধানসভা কেন্দ্রে নিজেদের সংগঠনকে শক্তিশালী করতে উদ্যোগী বিজেপি।

প্রসঙ্গত, গত 2014 সালে এই দক্ষিণ মালদহ লোকসভা কেন্দ্রে কংগ্রেসের সঙ্গে বিজেপির ভোটের ফারাক ছিল 1 লক্ষ 65 হাজারের কিছু বেশি। কিন্তু এবার সেই মার্জিন কমিয়ে কংগ্রেস প্রার্থীর কাছে মোটে আট হাজার ভোটে হেরে যান এখানকার বিজেপি প্রার্থী শ্রীরূপা মিত্র চৌধুরী। তবে নির্বাচনে হেরে গেলেও এবার দক্ষিণ মালদহের সাতটি বিধানসভা কেন্দ্রে স্থানীয় বাসিন্দাদের সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ রাখতে বিজেপির পক্ষ থেকে বিশেষ জনসংযোগ কেন্দ্র খোলার ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, প্রথম জনসংযোগ কেন্দ্রটি জুন মাসে ইংলিশবাজারে চালু করা হবে। আর এই প্রতিটি জনসংযোগ পরিচালনার ক্ষেত্রে সেখানে সর্বক্ষণের জন্য কয়েকজন করে বিজেপি কর্মী থাকবেন। এদিন এই প্রসঙ্গে মালদহ জেলা বিজেপির সভাপতি সঞ্জিত মিশ্র এবং বিজেপির মুখপাত্র অজয় গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, “দক্ষিণ মালদহে আমরা সামান্য ভোটে হেরেছি। তবে এই লোকসভার সাতটি বিধানসভা কেন্দ্রের নাগরিকরাই আমাদের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছে। তাই বিভিন্ন কেন্দ্রীয় প্রকল্পের সুযোগ সুবিধা যাতে ঠিকমত নাগরিকরা জানতে পারেন, তারা যাতে সমস্ত সুবিধা পান তার জন্যই এই জনসংযোগ কেন্দ্র চালু করা হচ্ছে।”

অন্যদিকে এই প্রসঙ্গে দক্ষিণ মালদহ লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী শ্রীরুপা মিত্র চৌধুরী বলেন, “এবারে 4 লক্ষ 34 হাজার মানুষ এখানে বিজেপিকে সমর্থন করেছেন। তাই মানুষের পাশে থেকে আমরা আমাদের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করব‌। আমাদের জনসংযোগ কেন্দ্রগুলি থেকে সাধারণ মানুষকে নানা প্রকল্পের ব্যাপারে অবহিত করার পাশাপাশি সাহায্য করা হবে।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, ভোট আসে ভোট যায়। কিন্তু ভোটের পর যে দল পরাজিত হন, তাদেরকে আর সেই কেন্দ্রে সেভাবে দেখা যায় না। তবে এবার ভবিষ্যতের দিকে তাকিয়ে বাংলার সংগঠনকে মজবুত করতে দক্ষিণ মালদহ লোকসভা কেন্দ্রে হেরে গেলেও প্রতিটা বিধানসভায় জনসংযোগ কর্মসুচী নিচ্ছে গেরুয়া শিবির। যা 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনে দক্ষিণ মালদহের অন্তর্গত বিধানসভা কেন্দ্রগুলিতে তাদের ভোটব্যাংককে অনেকটাই বৃদ্ধি করবে বলে দাবি বিশেষজ্ঞ মহলের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!