এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > অরুণ জেটলিকে ‘সাপ’ বলে কটাক্ষ ললিত মোদীর, সাথেই চাইলেন স্বীকারোক্তি

অরুণ জেটলিকে ‘সাপ’ বলে কটাক্ষ ললিত মোদীর, সাথেই চাইলেন স্বীকারোক্তি

এবার বিতর্কিত মন্তব্যে জড়ালো মোদীর নাম। রাজনৈতিকমহলে শোরগোল ফেলে প্রকাশ্যে এল বিতর্কিত মন্তব্যটি। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলিকে ট্যুইটারে মিথ্যাবাদী প্রমাণ করতে ‘সাপ’ বলে কটাক্ষ করলেন ললিত মোদী। কিন্তু কেন এরকম মন্তব্য করলেন তিনি?  তাও একটি কেন্দ্রীয় হেভিওয়েট মন্ত্রীর সম্পর্কে! আসুন বিস্তারে জেনে নেওয়া যাক।

কংগ্রেস সাংসদ পিএম পুনিয়ার সূত্র থেকে জানা গিয়েছে, সংসদের সেন্ট্রাল হলের কোনে দাঁড়িয়ে ঋণখেলাপি মামলায় অভিযুক্ত বিজয় মালিয়ার সঙ্গে কথা বলেছিলেন। সেটা ছিল ২০১৬ সালের ১ মার্চ। মালিয়া সাধারণত সংসদে আসতেন না। কিন্তু সেদিন জেটলির সঙ্গে ১৫-২০ মিনিট আলোচনা করেন। জেটলির সঙ্গে কথা বলতেই সম্ভবত তিনি সংসদে এসেছিলেন,এমনটাই জল্পনা। আর তারপরের দিনই খবর পাওয়া যায় দেশ ছেড়েছেন বিজয় মালিয়া। তারপর লন্ডনের সাংবাদিকমহল থেকে প্রশ্ন ওঠে তাকে কি কোনো নেতা দেশ ছাড়তে বলেছিলেন? সরাসরি এর উওর না দিলেও ঘুরিয়ে জানান,দেশ ছাড়ার আগে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অরুণ জেটলির সঙ্গে তাঁর কথা হয়। জেনেভায় তাঁর পূর্ব নির্ধারিত বৈঠক ছিল। তার আগে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে মীমাংসা করার প্রস্তাব দেন তিনি। এ কথা সাফ কথাতেই জানালেন মালিয়া। এরপর অরুণ জেটলি মালিয়াকে দেশ ছাড়ার অনুমতি দিয়েছিলেন, এমনটাই অভিযোগ বিরোধীশিবিরের।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

যদিও এ অভিযোগ মানতে নারাজ কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী। তিনি বিবৃতি দিয়ে স্পষ্টতই জানিয়েছেন যে বিজয় মালিয়ার সঙ্গে তাঁর আলাদা করে কথা হয়নি। এই ইস্যুকেই ফের উস্কানি দিলেন ঋণখেলাপি মামলায় অভিযুক্ত আরেক পলাতক ভারতীয় ললিত মোদী। ট্যুইটারে ‘সাপ’ বলে কটাক্ষ করলেন অরুণ জেটলিকে। এবং লিখলেন,জেটলি স্বীকার করুণ যে তিনি ২০১৬ সালের ১ মার্চ মালিয়ার সঙ্গে বৈঠক করেন এবং তারপরই মালিয়া দেশ ছাড়েন। এই বিতর্কিত মন্তব্যেটি ভাইরাল হয়ে গিয়েছে জাতীয় রাজনৈতিকমহলে। লোকসভা ভোটের আগে এধরণের বিতর্কের জেরে চাপা উত্তেজনা রয়েছে বিজেপি শিবিরেও। যদিও এই ইস্যু নিয়ে কোনো প্রকাশ্য প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি মোদীজি অমিত শাহদের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!