এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ‘জয় শ্রীরাম’ নিয়ে নির্বাচন কমিশন নাড়াচাড়া শুরু করতেই গ্রেপ্তার হওয়া ৩ বিজেপি কর্মীকে ছেড়ে দিল পুলিশ

‘জয় শ্রীরাম’ নিয়ে নির্বাচন কমিশন নাড়াচাড়া শুরু করতেই গ্রেপ্তার হওয়া ৩ বিজেপি কর্মীকে ছেড়ে দিল পুলিশ


‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি রীতিমত উত্তাল রাজ্য-রাজনীতি। গতকাল চন্দ্রকোনা টাউনের রাধাবল্লভপুর গ্রামের পাশ দিয়ে যাচ্ছিল তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কনভয়। সেখানে একদল স্থানীয় যুবক একটি বিজেপির ছোট ফ্ল্যাগের নীচে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে নিজেদের মত করে ‘জয় শ্রীরাম, জয় শ্রীরাম’ করে নিজেদের মত স্লোগান দিচ্ছিলেন। কিন্তু, হঠাৎই নিজের কনভয় থামিয়ে গাড়ি থেকে নেমে পড়েন তৃণমূল নেত্রী। আর তারপরেই রীতিমত রাগত স্বরে ওই বিজেপি সমর্থকদের দিয়ে তেড়ে গিয়ে বলতে থাকেন, কি হল পালাচ্ছিস কেন? আয়, আয়, পালাচ্ছিস কেন? আমাকে গালাগালি দিচ্ছে!

স্থানীয় এক যুবক সমগ্র ঘটনার ভিডিও করে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছেড়ে দেন। আর তারপর থেকেই গোটা রাজ্য-রাজনীতি উত্তাল! সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রশ্ন উঠতে থাকে, ‘জয় শ্রীরাম’ কবে থেকে ‘গালাগালি’ হল? কিন্তু এরপরেই অভিযোগ ওঠে তৃণমূল নেত্রীকে দেখে ‘জয় শ্রীরাম’ বলার জন্য তিন বিজেপি কর্মী সীতারাম মিদ্দা, সায়ন মিদ্দা ও বুদ্ধদেব দোলুইকে গ্রেপ্তার করে স্থানীয় পুলিশ। এমনকি যে স্থানীয় যুবক ওই ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করেছিল সেই বিজেপি নেতা জয় পণ্ডার বাড়িতে ভাংচুর চালানো হয়। পুরো গ্রামের উপরেই পুলিশি অত্যাচারের অভিযোগ ওঠে।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর সোশ্যাল মিডিয়ায় এইসব খবর একের পর এক সামনে আসতেই – রীতিমত ছিছিক্কার শুরু হয়ে যায় আমজনতার মধ্যে! সাধারণ মানুষের ক্ষোভের আঁচ উপচে পড়তে থাকে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যদিও তৃণমূল সমর্তকদের তরফে দাবী করা হতে থাকে, সমগ্র ঘটনাটি বিজেপির চক্রান্ত! ভিডিওর ওই অংশটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছাড়া হয়েছে, পুরো ভিডিও দেখলে বোঝা যাবে, তৃণমূল নেত্রীকে নাকি সত্যিই গালাগালি করা হচ্ছিল! কিন্তু, আশ্চর্যের বিষয়, এই সংক্রান্ত কোনো ‘পুরো ভিডিও’ তৃণমূলের তরফে কোথাও প্রকাশ করা হয় নি – যেখানে তাঁদের এই যুক্তি প্রতিষ্ঠিত হয়!

আর এর জেরে রীতিমত নড়েচড়ে বসে নির্বাচন কমিশন। ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিও ফুটেজ সহ, কেন তিন যুবককে গ্রেপ্তার করা হল, কেন বাড়ি ভাংচুর করা হল বা কেন সমগ্র গ্রামে পুলিশি অত্যাচারের অভিযোগ উঠল এই সংক্রান্ত পুঙ্খানুপুঙ্খ রিপোর্ট কমিশনে জমা দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয় পশ্চিম মেদিনীপুরের জেলা আধিকারিককে বলে সূত্রের খবর। আর এরপরেই আশ্চর্যরকমভাবে গ্রেপ্তার করা ওই তিন বিজেপি কর্মীর নামে কোনও মামলা দায়ের না করেই তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হয়। তবে, সূত্রের খবর ওই তিন যুবককে পুলিশ ছেড়ে দিলেও – নির্বাচন কমিশন এত সহজে বোধহয় ছেড়ে দেবে না! বিশেষ করে কি কারণে ও কার নির্দেশে ‘জয় শ্রীরাম’ বলার অভিযোগে গ্রেপ্তার করা হল তা নাকি বিস্তারিতভাবে তদন্ত করে দেখতে চায় নির্বাচন কমিশন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!