এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > একা অর্পিতায় ভরসা নেই, মাঠে নামলেন হেভিওয়েট মন্ত্রী

একা অর্পিতায় ভরসা নেই, মাঠে নামলেন হেভিওয়েট মন্ত্রী

Priyo Bandhu Media


লোকসভা নির্বাচনে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার একমাত্র লোকসভা আসন বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রে রীতিমতো ভরাডুবি ঘটেছে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের। সেখানে বিপুল ভোটে জয় যুক্ত হয়েছেন ভারতীয় জনতা পার্টির প্রার্থী সুকান্ত মজুমদার। পরাজিত হতে হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের লোকসভা নির্বাচনের প্রার্থী তথা বর্তমান জেলা সভানেত্রী অর্পিতা ঘোষকে।

এরকম অবস্থায় দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের পর্যবেক্ষক হিসেবে নিযুক্ত করা হয় পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে। রাজনীতির ময়দানে রাজীববাবু ইতিপূর্বে বহুবার নিজের সাংগঠনিক দক্ষতার প্রমাণ দিয়েছেন। করিমপুর বিধানসভা উপনির্বাচন থেকে শুরু করে যে সমস্ত জায়গায় দলীয় পর্যবেক্ষক হিসেবে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস তাকে নিয়োগ করেছিলেন, সেই সমস্ত জায়গাতেই প্রায় দলকে শক্তিশালী করার কাজ করেছেন তৃণমূলের এই তরুণ তুর্কি নেতা।

তাই আজ দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার গঙ্গারামপুর শহরে অনুষ্ঠিত হতে চলা তৃণমূল কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠনের সম্মেলন মঞ্চে থেকে জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের উদ্দেশ্যে কি বার্তা দেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের পর্যবেক্ষক রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়! সেদিকেই তাকিয়ে রয়েছে জেলা নেতৃত্ব। বস্তুত, গত বছর ডিসেম্বর মাসের দিকে তৃণমূল কংগ্রেসের রাজ্য নেতৃত্বের তরফ থেকে রাজীববাবুকে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার পর্যবেক্ষক হিসেবে নিযুক্ত করা হয়। এর পরেই বুনিয়াদপুরের দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে একটি রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন জেলা তৃণমূল পর্যবেক্ষক।

তৃণমূল সূত্রের খবর, সেই বৈঠকের মাধ্যমে ভেঙে পড়া দক্ষিণ দিনাজপুর তৃণমূল কংগ্রেসের সংগঠনকে ঐক্যবদ্ধ এবং মজবুত করার উদ্দেশ্যে জেলা নেতাদেরকে একাধিক বার্তা দিয়ে গিয়েছিলেন মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। আর রাজীববাবুর বার্তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ছিল, তৃণমূল কংগ্রেসের বুথ ভিত্তিক শক্তিশালী কমিটি তৈরি করা। পাশাপাশি প্রত্যেকটি ওয়ার্ড থেকে বুথ থেকে দশজন করে দলীয় সক্রিয় কর্মীর নাম চেয়ে পাঠিয়েছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা পর্যবেক্ষক। এছাড়াও নেতৃত্বদের মানুষের সঙ্গে অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক নির্মাণের ক্ষেত্রে বিশেষ নির্দেশ দিতে দেখা গিয়েছিল রাজীববাবুকে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর সেই কারণেই ডিসেম্বর মাসের জেলা সফরের পরে দ্বিতীয়বারের জন্য রাজীববাবুর দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা সফর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়িয়েছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা নেতৃত্বের কাছে। আর সেই কারণেই রাজীববাবু আসার আগেই জেলা তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব ডিসেম্বর মাস থেকে শুরু করে এখনও পর্যন্ত সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির ক্ষেত্রে কি কি কাজ তার তালিকা প্রস্তুত করেছেন।

এই বিষয়ে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যকরী সভাপতি শুভাশিষ পাল বলেন, “আমরা পর্যবেক্ষকের নির্দেশ অনুযায়ী দলকে জেলায় এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য তৈরি রয়েছি। পর্যবেক্ষক হিসেবে জেলার দায়িত্ব নিয়ে রাজীববাবু জানিয়েছিলেন, তৃণমূল কংগ্রেস ভোটের রাজনীতি করে নাঋ মানুষের সুখে-দুঃখে পাশে থাকাই তৃণমূল দলের আদর্শ। সেই সময় প্রতিমাসে জেলা একবার করে আশার কথা জানিয়েছিলেন রাজীববাবু। তবে এক মাস কাটার আগেই এবার জেলায় পা রাখছেন দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিতে।

তৃণমূল সূত্রের খবর অনুযায়ী, আজ গঙ্গারামপুর ফুটবল ময়দানে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা আইএনটিটিইউসির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে চলেছে। সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতেই জেলায় আসছেন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন আইএনটিটিইউসি সভানেত্রী দোলা সেন, রাজ্যের মন্ত্রী পূর্ণেন্দু বসু, আইন মন্ত্রী মলয় ঘটক সহ একাধিক জেলা এবং রাজ্য নেতৃত্ব রাজীববাবুর আগমন সাপেক্ষে তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা নেতৃত্বের প্রস্তুতি সম্পর্কে জেলা তৃণমূল কার্যকারী সভাপতি শুভাশিস পাল আরও বলেন, “জেলার আটটি ব্লকের প্রতিটি অঞ্চলে বুথভিত্তিক একনিষ্ঠ 10 জন কর্মীর নামের তালিকা তৈরি করতে আমাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। পাশাপাশি জনসংযোগ করার কথা বলা হয়েছিল। ইতিমধ্যেই আমরা অর্ধেকের বেশি বুথ ভিত্তিক কর্মীদের নামের তালিকা বানিয়ে ফেলেছি। দিদিকে বলো কর্মসূচির মাধ্যমে জনসংযোগের কাজ করা হয়েছে। তার পূর্ণাঙ্গ রিপোর্ট আমরা তৈরি করে রেখেছি। তার ফলে আগামী দিনে দলের কাজ সুষ্ঠুভাবে করতে সুবিধা হবে।”

তিনি বলেন, “রাজীববাবু আমাদেরকে যা পরামর্শ দিয়ে যাবেন, সেভাবে কাজ হবে।” অন্যদিকে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের কো-অর্ডিনেটর তথা গঙ্গারামপুর বিধানসভার বিধায়ক গৌতম দাস বলেন, “আমাদের পর্যবেক্ষক রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। দ্বিতীয়বার জেলায় এলেও এবার তিনি শ্রমিক সম্মেলনে যোগ দিতে আসছেন। আমাদের জেলা নেতৃত্বদেরকে নিয়ে কোনো রিভিউ মিটিং হচ্ছে না। তিনি আমাদের যেমন নির্দেশ দিয়েছেন, সেভাবেই কাজ করা হচ্ছে।”

জানা যাচ্ছে, এদিনের কর্মসূচির পরই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের পর্যবেক্ষক রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় আগামীদিনে এনআরসি এবং সিটিজেনশিপ আমেন্ডমেন্ট অ্যাক্ট নিয়ে তৃণমূল কংগ্রেসের আন্দোলনের রূপরেখা সম্পর্কে জেলা নেতৃত্বদেরকে অবগত করবেন জেলা নেতৃত্ব। আর তা থেকে আশা করা হচ্ছে, আগামী দিনে দক্ষিণ দিনাজপুরের বালুরঘাট, গঙ্গারামপুর এবং বুনিয়াদপুর পৌরসভার নির্বাচনে বিরোধীদলগুলো যেন তৃণমূল কংগ্রেসকে টেক্কা দিতে না পারে, সেই বিষয় এদিনের মঞ্চ থেকে কর্মী সমর্থকদের উদ্দেশ্যে নিজের বক্তব্য রাখতে পারেন রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রী তথা জেলা পর্যবেক্ষক রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে আগামী দিনে রাজীববাবুর পর্যবেক্ষণে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল কংগ্রেস নিজেদের সাংগঠনিক দুর্বলতা কাটিয়ে উঠে আগামী বিধানসভা নির্বাচনের আগে সম্পূর্ণরূপে প্রস্তুত হতে পারে কিনা! সেদিকেই লক্ষ্য থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!