এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > নাদিয়ার নোডাল অফিসার অর্ণব রায়ের অন্তর্ধান রহস্যে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য, কি হয়েছিল জানালেন নিজেই

নাদিয়ার নোডাল অফিসার অর্ণব রায়ের অন্তর্ধান রহস্যে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য, কি হয়েছিল জানালেন নিজেই

নদিয়ার EVM ও VVPAT-এর দায়িত্বে থাকা অর্ণব রায় গত ১৪ ই এপ্রিল জেলাশাসকের দপ্তরে কাজে যান। দুপুরে কৃষ্ণনগর BPCIT কলেজের উদ্দেশে রওনা হয়েছিলেন তারপর হটাৎ করে স্ত্রীকে ফোন করার পর তাড়াতাড়িতে ফোন কেটে দেন। তারপর আর তাঁর কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।এরপর তাঁর পরিবার থানায় তাঁর নিখোঁজের ডাইরী করেন।

কিন্তু এক সপ্তাহ কেটে যাবার পরেও কোনো খোঁজ মিলছিলো না। কিন্তু আজ সকালে হাওড়া থেকে তাঁকে উদ্ধার করে সিআইডি আধিকারিকরা। আর এরপরতানকে হাওড়া তাঁর শশুরবাড়িতে রাখা হয়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

তাঁকে পাওয়া গেছে জেনে তাঁর বাবা তাঁকে ফোন করেন। আর তিনি রানের বাবাকে বলেন যে, “চিন্তা করো না বাবা, ভালো আছি, যা ফেস করার আমিই করব ।” এদিকে তাঁর বাবা হারাধন রায় জানান যে, “ছেলেকে পাওয়া গেছে এই খবরটা পাওয়ার পরই আমরা ছেলেকে ফোন করি । ও বলে চিন্তা করো না বাবা আমি ভালো আছি । যা ফেস করার করব ।” তিনি আরও বলেন, “ও ফিরে এসেছে এটাই স্বস্তির । ঠিক কী ঘটেছিল তা পরে জানব ।”

এবার তাঁর অন্তর্ধান রহস্যে সামনে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য। তিনি এদিন স্বীকার করেছেন যে, কাজের চাপেই নাকি অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন আর তাই আর তাই গা ঢাকা দেন তিনি।

এদিন তিনি দাবি করেন যে, “কাজের চাপে মানসিক অবসাদে ডুবে গিয়েছিলাম। ভোটের দায়িত্ব থেকে ছুটি চেয়েও পাইনি। তাই বাধ্য হয়েই গা ঢাকা দিয়েছিলাম। আজ ঠিক করেছিলাম বাড়ি ফিরব। স্ত্রীকেও এই নিয়ে জিজ্ঞাসা করেছি।”

যদিও এই দাবি মানতে নারাজ পুলিশ। তারা এর পিছনে প্রণয়ঘটিত কোনো বিষয় দেখছেন। আর অন্যদিকে আত্মগোপনের আগে নিজের অফিসিয়াল কাগজপত্র ও চাবি সহকর্মীদের হাতে দিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। তাঁর এই অন্তর্ধানের পিছনে অন্য কিছু কারণ আছে এমনটাই মনে করছেন সংস্লিটমহল। সাথেই তাদের দাবি ভয়ে তিনি মুখ খুলেছেন না।

এদিকে এই নিয়ে রাজ্য সরকারের কাছে রিপোর্ট তলব করেছে নির্বাচন কমিশন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!