এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > লোকসভায় দুটি আসনই ধরে রাখতে সংগঠনে ব্যাপক পরিবর্তন অনুব্রতর, পদ গেল একাধিকের

লোকসভায় দুটি আসনই ধরে রাখতে সংগঠনে ব্যাপক পরিবর্তন অনুব্রতর, পদ গেল একাধিকের

আসন্ন লোকসভা নির্বাচন নিয়ে প্রবল প্রতিদ্বন্দ্বী বিজেপি ইতিমধ্যেই তাদের প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে পুরোদমে। এবারে জেলা তৃণমূলের সাংগঠনিক রদবদল ঘটিয়ে লোকসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে ভোটব্যাঙ্ক সুদৃঢ় করতে নিজেদের রণকৌশল মজবুত করতে শুরু করলেন বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মন্ডল। জেলা তৃণমূল সূত্রের খবর, গতকাল সিউড়ির তৃণমূল ভবনে দলীয় বৈঠক ডাকা হলেও বৃষ্টির কারণে তা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় পরে একটি বেসরকারি অনুষ্ঠান ভবনেই হয় এই বৈঠক। যেখানে উপস্থিত ছিলেন মঙ্গলকোট, আউসগ্রাম, কেতুগ্রাম ও মুর্শিদাবাদের ভরতপুর বিধানসভার এলাকার নেতারা। সূত্রের খবর, মূলত লোকসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে বিধায়কদের নিজ নিজ এলাকায় সংগঠন বাড়ানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে সেই বৈঠক থেকে।এমনকী জেলা সংগঠনেও ব্যাপক রদবদল করা হয়েছে। রামপুরহাট শহর ১ নম্বর ব্লকের পরিদর্শক করা হয়েছে রাজ্যের মন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়কে। বোলপুর, মুরারই ১ ও ২ নম্বর ব্লকের দ্বায়িত্ব পেয়েছেন আরেক মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহা। অন্যদিকে জেলা পরিষদের বিদায়ী সভাপতি বিকাশ রায়চৌধুরীকে রাখা হয়েছে রাজনগর, খয়রাশোল ও সিউড়ির দ্বায়িত্বে। খয়রাশোলের ব্লক সভাপতি সুকুমার বন্দ্যোপাধ্যায়কে সরিয়ে তাঁর জায়গায় দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে দীপক ঘোষকে। অন্যদিকে এই ব্লকেরই সভাপতি করা হয়েছে উজ্জল কাদেরী ও রজত মুখোপাধ্যায়কে।

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

মূল সংগঠনের পাশাপাশি শ্রমিক সংগঠন আইএনটিটিইউসি-র জেলা সভাপতি পদেও এসেছে বদল – বিকাশ রায়চৌধুরীকে সরিয়ে আনা হয়েছে নূরুল ইসলামকে। সিউড়ি পুরসভার কাউন্সিলর ফজরুদ্দিনকে সংখ্যালঘু সেলের জেলার চেয়ারম্যান করা হয়েছে। সাংগঠনিক পরিবর্তনের পাশাপাশি গতকালের বৈঠক থেকে ফের ব্লক সভাপতিদের সতর্ক করে দিয়ে অনুব্রত মন্ডল স্পষ্ট হুঁশিয়ারি দেন, গরিব মানুষদের জন্য সরকারি প্রকল্পের বাড়ি দিয়ে, টাকা চাইবেন না – তাহলে জেলখাটিয়ে ছাড়ব। তবে গতকালের বৈঠকের সবথেকে বড় ‘চমক’ – লোকসভা নির্বাচনের আগে রামপুরহাট-২ এর অবজার্ভার হচ্ছেন স্বয়ং বীরভূমের জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। এই প্রসঙ্গে ব্লক সভাপতি সুকুমার মুখোপাধ্যায় বলেন, আমাদের কাছে আনন্দের বিষয় যে উনি এই ব্লকের অবজার্ভার হয়েছেন। এতে সংগঠন আরও মজবুত হবে। তবে এ দিনের এই বৈঠক বৈঠকে খয়রাশোল ব্লক সভাপতি সুকুমার বন্দ্যোপাধ্যায় ও মগবাজার ব্লকের কার্যকরী সভাপতি তাপস সিনহা অসুস্থ থাকার জন্য আসতে পারেননি। এদিকে এই ব্লক সভাপতি বদল প্রসঙ্গে অনুব্রত মন্ডল বলেন, দীপক বয়সে তরুণ এবং কাজের ছেলে। সুকুমার অসুস্থতার কারণে সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি চেয়েছিলেন। তাই দীপককে সভাপতি করা হলো। একই সঙ্গে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের বীরভূমে আসার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কে এল কে গেল তা নিয়ে আমাদের কিছু এসে যায়না। কাঁটাতার দিয়ে ঘেরা দশ বিঘে জায়গায় চারটি গরু ঢুকে পড়লে ঘাস কম পড়বে না। অন্যদিকে কদিন আগেই বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসুর তৃণমূল কর্মীদের এনকাউন্টার করে মেরে ফেলার হুমকি প্রসঙ্গে তিনি জানান, ও পাগল এনকাউন্টার কি সেটাই বোঝে না! সব মিলিয়ে লোকসভা ভোটের আগে দলের রণনীতি সাজাতে এবং কর্মীদের চাঙ্গা করতে ফের ঢাকের বাদ্যি বাজিয়ে দিলেন বীরভূমের তৃনমূল সেনাপতি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!