এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > বিধানসভার হার ভুলে লোকসভায় লিড বাড়াতে অনুব্রত মন্ডলের নতুন টোটকা – জানুন বিস্তারিত

বিধানসভার হার ভুলে লোকসভায় লিড বাড়াতে অনুব্রত মন্ডলের নতুন টোটকা – জানুন বিস্তারিত

বিগত নির্বাচনগুলোতে কি হয়েছে ভুলে যান! আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসকে জয়লাভ করাতেই হবে- নির্বাচনের আগে বিভিন্ন সভায় গিয়ে দলীয় কর্মীদের কাছে এমনই আবেদন রাখছেন রাজ্যের শাসকদলের নেতা মন্ত্রীরা। আর এবার সেই ঘাসফুল শিবিরের অন্যান্য নেতা-মন্ত্রীদের পথে হেটেই নলহাটি 2 ব্লকের কৃষ্ণপুর গ্রামের এক কর্মী সভায় উপস্থিত হয়ে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে যেনতেন প্রকারেন যাতে বেশি ভোটে দলকে জেতানো যায় তার জন্য দলের ব্লক সভাপতি থেকে অঞ্চল সভাপতিকে কড়া নির্দেশ বেঁধে দিলেন বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল।

সূত্রের খবর, শনিবার নলহাটি 2 ব্লকে উপস্থিত হয়ে 2016 সালের বিধানসভা নির্বাচনের সময় এখানকার যে সমস্ত অঞ্চলে তৃণমূল কংগ্রেস পিছিয়ে ছিল সেই সমস্ত অঞ্চলে যাতে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে জয় ছিনিয়ে আনা যায় তার জন্য একে একে সমস্ত অঞ্চল সভাপতিদের ডেকে নিয়ে ঠিক কত লিড হবে তা জানতে চান বীরভূম জেলা তৃণমূলের সভাপতি।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত বিধানসভা নির্বাচনে এখানে জয়লাভ করেছিলেন বাম-কংগ্রেস জোটের প্রার্থী মিল্টন রশিদ। এদিন দলীয় বৈঠক এসে এখানকারই নপাড়া অঞ্চলের 20 টি বুথের মধ্যে 10 টিতে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস হেরে থাকায় আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে কত লিড হবে তা নিয়ে অঞ্চল সভাপতি আব্দুর রবকে জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, “এবার 1000 ভোটে লিভ হতে পারে।”

এদিকে অঞ্চল সভাপতির মুখে ঠিকমতো আশ্বাসবাণী না শোনায় জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল ব্লক তৃণমূল সভাপতি বিভাস অধিকারীকে এই ব্যাপারে প্রশ্ন করলে তখন সেই বিভাস বাবু বলেন, “ওখানে নিজেদের মধ্যে গোষ্ঠী কোন্দল ছিল। তবে এখন সব ঠিক হয়ে গিয়েছে। আগামী লোকসভা ভোটে 15 হাজার ভোটের লিড দেওয়া যাবে।”

তবে বিভাস সরকার 15 হাজার ভোটে লিড দেওয়ার কথা বললেও আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে এই নলহাটি টু ব্লক থেকে প্রায় 17 হাজার ভোটে তারা এগিয়ে থাকবেন বলে জানিয়ে দেন বীরভূম জেলা তৃণমূলের সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। অন্যদিকে নলহাটি টু ব্লকের পাশাপাশি এদিন বিকেলে কোটাসুরে একটি কর্মী সম্মেলনে যোগ দিয়ে ব্লক নেতৃত্বর কাছ থেকে আগামী লোকসভা ভোটে কত লিড হবে তা জানতে চান বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি।

জানা যায়, সেখানেই ব্লক নেতৃত্বর তরফে 25 হাজার ভোটে লিড দেওয়ার কথা জানানো হয়। তবে তা বাড়িয়ে যাতে 40 হাজার করা যায় সেজন্য ময়ূরেশ্বর 2 ব্লকের নেতৃত্বদের একটি টার্গেট বেঁধে দেন অনুব্রত মণ্ডল।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এদিন বিভিন্ন কর্মী সভায় উপস্থিত হয়ে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে প্রবল ভাষায় কটাক্ষ করেন অনুব্রত মণ্ডল। তিনি বলেন, “নরেন্দ্র মোদী ভয়ঙ্কর। দাঙ্গা ছাড়া আর কিছুই বোঝেন না। তাই এবারের ভোটটা একটু সকলে বুঝে শুনে করবেন। যদি কেউ বিজেপি করেন তো ভুল করছেন। কারগিল যুদ্ধ করে বাজেপেয়ী ফিরে আসেননি, তো মোদী ছাড়! তাই দিল্লীর সিংহাসনে বসতে গেলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরতে হবে।”

এদিকে প্রতিটি বুথে গিয়ে কর্মীসভা করে দলীয় নেতৃত্বদের কত পরিমান লিড দিতে হবে সেই ব্যাপারে জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের এহেন টার্গেট বেঁধে দেওয়া নিয়ে সেই তৃণমূলকে কটাক্ষ ছুড়ে দিয়েছেন বীরভূম জেলা বিজেপির সভাপতি রামকৃষ্ণ রায়।

এদিন তিনি বলেন, “নির্বাচন কমিশন কেন্দ্রীয় বাহিনী দিয়ে ভোট করালে পুলিশের আর কিছু করার থাকবে না। আর তখন অসহায় অবস্থায় থাকতে হবে তৃণমূলকে। আর সেটা বুঝতে পেরেই এখন অনুব্রত মণ্ডল এহেন কথা বলছেন।” সব মিলিয়ে এবার আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে জিততে গত 2016 সালের বিধানসভায় যেভাবে হার হয়েছে তা ভুলে গিয়ে লোকসভায় লিড বাড়ানোর জন্য দলের নেতাকর্মীদের নির্দেশ দিলেন বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল।

Top
error: Content is protected !!