এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মা বোধহয় একটু রাগ করেছেন, কথা দিলেও কথা রাখলেন না, 42 এ 42 সম্ভব নয় জানালেন স্বয়ং দিদির ভাই কেষ্টা

মা বোধহয় একটু রাগ করেছেন, কথা দিলেও কথা রাখলেন না, 42 এ 42 সম্ভব নয় জানালেন স্বয়ং দিদির ভাই কেষ্টা

নির্বাচনের আগে প্রতিবারই নানা মন্তব্য করে খবরের শিরোনামে উঠে আসতে দেখা যায় তাকে। এবারেও তার কোনো ব্যতিক্রম ছিল না। নকুলদানার দাওয়াই দিয়ে খবরের হেডলাইনসে দেখা যেত তাঁকে। হ্যাঁ ঠিকই ধরেছেন, তিনি বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। নির্বাচনের আগ থেকে নির্বাচন চলা পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে তৃণমূল রাজ্যের 42 এ 42 টা আসনই পাবে বলে জানিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু এবার সেই অনুব্রত মণ্ডলের গলাতেই উঠে এল ভিন্ন সুর। 42 এ 42 নয়, কম করে হলেও তৃণমূল 37 থেকে 39 টা সিট পাবে বলে জানিয়ে দিলেন অনুব্রত মণ্ডল।

প্রসঙ্গত, গত 21 শে জানুয়ারি বীরভূমের মঙ্গলকোটে যোগাদ্যা মায়ের মন্দিরে পুজো দিয়ে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে অনুব্রত মণ্ডল বলেন, “মায়ের সঙ্গে কথা হয়েছে। মা বলেছে কোনো চিন্তা নেই। 42 এ 42 হবে।” তবে এবার সেই মায়েরই প্রিয় ভক্ত অনুব্রত মণ্ডল ওরফে কেষ্টর গলায় শোনা গেল অন্য সুর। শুধু রাতটা বাকি। তারপরেই চূড়ান্তভাবে জানা যাবে কোন দল কত আসন পেতে চলেছে। আর তার আগে অতীতের 42 এ 42 আসনের দাবি থেকে অনেকটাই সরে আসতে দেখা গেল বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতিকে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর,অনুব্রত মণ্ডল বলেন, “কোনো বুথ ফেরত সমীক্ষা মিলবে না। আসলে এগুলো বিজেপির চাল। খুব খারাপ রেজাল্ট হলেও আমরা 37 টা পাব। আর যদি তা না হয় তাহলে আমরা 39 টা সিট পাবই। তবে দুটো সিট হাতছাড়া হবে। বিজেপি একটার বেশি সিট পাবে না। সারাদেশে বিজেপি 100 থেকে 120 টি সিট পাবে। বিজেপি কোনোমতেই এবার সরকারে আসতে পারবে না।”

আর বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতির তথা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রিয় ভাই কেষ্টার এহেন দাবীর পেছনে এবার রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে চাঞ্চল্য। অনেকে ঠাট্টা করে বলছেন, তাহলে কি মা কালী তার ওপর রাগ করেছেন! আর তাই 42 এ 42 এর দাবি থেকে সরে আসতে বাধ্য হলেন বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি?

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের অনেকে বলছেন, আসলে এই এক্সিট পোল কে যতই ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিক শাসক দল, যেভাবে প্রতিটা এক্সিট পোলে রাজ্যে বিজেপির বাড়বাড়ন্তের আভাস দেওয়া হয়েছে, তাতে কিছুটা হলেও চিন্তিত তৃণমূল। আর তাইতো 42 এ 42 এর দাবি থেকে সরে আসতে হচ্ছে অনুব্রত মণ্ডলের মত দোর্দণ্ডপ্রতাপ তৃণমূল নেতাদেরও বলে মনে করছে বিশ্লেষকদের একাংশ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!