এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > দিদির আশীর্বাদ যে অনুব্রতর মাথায় সর্বদা আছে আবার প্রমাণ হলো

দিদির আশীর্বাদ যে অনুব্রতর মাথায় সর্বদা আছে আবার প্রমাণ হলো

এর আগেও অনুব্রত মণ্ডলের বিরুদ্ধে অপ্রীতিকর ভাষা প্রয়োগের অভিযোগ উঠেছে।কিন্তু কিছুদিন আগে মুখ্যমন্ত্রীর এই বিষয়ে অনুব্রত মন্ডলকে সাবধান করার পর সেই নিয়ে আবারও বিতর্কের ঝড় ওঠে সোশ্যাল মিডিয়াসহ রাজনৈতিক মহলে।তবে মুখ্যমন্ত্রীর বীরভূম সফরে সম্পুর্ন বিপরীত ছবি চোখে পড়ল।এদিন অনুব্রতবাবুকে নিজের হাতে প্রসাদ খাওয়ালেন তিনি।
প্রসঙ্গত, বর্ধমানের মাটি উৎসবের অনুষ্ঠান শেষে হেলিকপ্টারে চেপে সোজা বিশ্বভারতী পৌঁছান মুখ্যমন্ত্রী।সেখান থেকে তিনি যান সতীপীঠ-কঙ্কালীতলায়।কঙ্কালীতলার মন্দিরে পূজো দেন তিনি।সেখানে তিনি বলেন,কঙ্কালীতলাকে নতুন ভাবে সাজানো হবে।মন্দির ,মন্দির-সংলগ্ন পুকুর,নদীর পাড় সংলগ্ন এলাকাকে সাজিয়ে তোলা হবে।সব মিলিয়ে এই মন্দিরকে ভবিষ্যতে আরও বেশি পর্যটকমুখী করার ব্যবস্থা করা হবে।তিনি আরও বলেন,কঙ্কালিতলা উন্নয়নের জন্য আমরা টাকা দিয়েছিলাম।তারাপীঠ,কালীঘাটের মত এখানেও ঢেলে সাজানো হবে।গেস্ট হাউস হবে।
এদিন মুখ্যমন্ত্রীর সাথে ছিলেন ইন্দ্রনীল সেন ও অনুব্রত মন্ডল।কঙ্কালীতলা থেকে ফেরার পথে গাড়িতে তিনি অনুব্রত মন্ডল ও ইন্দ্রনীল সেনকে প্রসাদ খাওয়ান। এরপর মুখ্যমন্ত্রী শান্তিনিকেতনের ঐতিহ্যবাহী খোয়াই এলাকা পায়ে হেঁটে ঘোরেন।এলাকার আদিবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।এরপর মুখ্যমন্ত্রী চলে যান আমার কুঠিতে,সেখানেই রাত্রিবাস করবেন তিনি।আগামীকাল বীরভূমের আমোদপুরে জনসভা করার কথা রয়েছে। বলেই সূত্রের খবর।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!