এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > স্বাধীনতা দিবসে অমিত শাহের এই ‘কীর্তি’ ভাইরাল নেট দুনিয়ায়, আছড়ে পড়ল সমালোচনার ঝড়

স্বাধীনতা দিবসে অমিত শাহের এই ‘কীর্তি’ ভাইরাল নেট দুনিয়ায়, আছড়ে পড়ল সমালোচনার ঝড়

‘যিনি পতাকা সামলাতে পারেন না, তিনি কীভাবে দেশ সামলাবেন’! – এমনটাই কটাক্ষ কংগ্রেসের। উদ্দেশ্য করে বলা হয়েছে সর্ব ভারতীয় বিজেপি সভাপতি অমিত শাহকে। দেশের ৭২ তম স্বাধীনতা দিবসে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করতে গিয়ে ‘যে’ কান্ড বাধিয়ে ফেললেন অমিত শাহ – তারপরই তাঁর বিরুদ্ধে এইরকম সমালোচনায় মুখর হয়েছে জাতীয় কংগ্রেস।

এদিন সকালে দিল্লিতে বিজেপির প্রধান কার্যালয়ে অমিত শাহ যান স্বাধীনতা দিবস পালন করতে। ‘ভারত মাতা কি জয়’, ‘জয় হিন্দ’ বুলি তুলে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করার জন্য দড়িতে যেই টান দেন, সাথে সাথেই ‘কেলেঙ্কারি’ বাধে। পতাকা উপরে ওঠার বদলে সোজা নীচে নেমে আসে। যদিও বিজেপির হাইকমান্ডার পরিস্থিতি সামলে ঠিক ভাবে পতাকা উত্তোলন করেন তবুও ঘটনাটি রাজনৈতিক মোড় নিতে সময় লাগেনি।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

ঘটনার ভিডিও মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায় সোশ্যাল মিডিয়ায়। এ ঘটনার ভিডিওই ট্যুইট করে কড়া সমালোচনা করে কংগ্রেস। অভিযোগে জানায়, আরএসএস পঞ্চাশ বছরেরও বেশি সময় ধরে জাতীয় পতাকার অমর্যাদা করে চলেছে। অমিত শাহের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও কংগ্রেসের নিন্দার শিকার হন এদিন। স্বাধীনতা দিবসে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর লালকেল্লা থেকে জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণের তীব্র সমালোচনা করে জাতীয় কংগ্রেস।

প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ নিয়ে কংগ্রেসের অভিযোগ, বিষয়বস্তুহীন ছিল এদিনের তাঁর ভাষণ। বিভিন্ন ইস্যুতে বিজেপি সরকারের ত্রুুটি ধরিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনায় মুখর হন কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালা। কটাক্ষের সুরে তিনি এদিনের ভাষণটাকেই নরেন্দ্র মোদীর প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ‘শেষ ভাষণ’ বলে উল্লেখ করেন এবং জানালেন, শেষ ভাষণে অন্তত মোদীজির ‘সত্যি কথা’ বলা উচিৎ ছিল। মনের কথা না বলতে পারলেও কাজের কথা বলা উচিৎ ছিল। সবশেষে তীব্র কটাক্ষের সুরে বলেন, আচ্ছে দিন তো আর এল না, এবার সাচ্চে দিনের অপেক্ষায় রয়েছে গোটা দেশ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!