এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > অমিত শাহকে ‘অবাস্তব জোট-ফর্মুলা’ দিয়ে প্রমাদ গুনছে শিবসেনা শিবির নিজেই

অমিত শাহকে ‘অবাস্তব জোট-ফর্মুলা’ দিয়ে প্রমাদ গুনছে শিবসেনা শিবির নিজেই

পুরোনো সম্পর্কটা দু তরফেরই নানা দোষ ত্রুটি সত্ত্বেও  পুনরুজ্জীবিত করা সম্ভব নাকি ভাঙ্গা সম্পর্ক জোড় লাগে না ! রাজনৈতিক মহলের এইরকম অনেক দ্বিধা দ্বন্দের মধ্যে দিয়েই গত সপ্তাহে এনডিও জোট শরিক শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে এবং  বিজেপির সর্ব ভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের বৈঠক সম্পন্ন হলো। এদিনের বৈঠকের পরে গেরুয়া শিবির সূত্রে জানা যাচ্ছে অমিত শাহ মহারাষ্ট্রের বিজেপি নেতাদের তিনি একক দল হিসেবে আগামী নির্বাচনগুলিতে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার জন্যে প্রস্তুত হতে বলেছেন। বিজেপি সভাপতির এহেন বক্তব্যকে ঘিরে তৈরী হয়েছে নতুন জল্পনা। দুই দলের শীর্ষ নেতার বৈঠকের পরে এখনও অবধি কোনো সাংবাদিক বৈঠক না হলেও  বিশেষ সূত্রে জানা যাচ্ছে অমিত শাহের কাছে মূলত দুটি দাবি করেছেন শিবসেনা প্রধান।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

প্রথমত: ২০১৯ সালে মহারাষ্ট্র বিধানসভায় ২৮৮টি আসনের মধ্যে শিবসেনা কে ১৫২ টি আসন ছাড়তে হবে। দ্বিতীয়ত মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর আসন। উদ্ধব ঠাকরের এমন বিস্ময়কর দাবি শুনে হতবাক হয়ে যান অমিত শাহ। কোনো ইতিবাচক জবাব তো দূরে থাক এমনকি কোনো সম্ভবনার কথাও তিনি অঙ্গীকার না করে বলেন, ”বিষয়টি নিয়ে পরে ভেবে দেখা হবে।” উল্লেখ্য ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির সাথে  শিবসেনা রাজ্যে ২৬ টি আসন সমঝোতা করেছিলো। এখন বিজেপি শিবিরের পক্ষ থেকে প্রশ্ন উঠছে ২০১৪ সালে যাদের বিজিত আসন সংখ্যা ছিলো মাত্র ৬২ টি তারা কী করে ১৫২টি আসনের দাবি করছে ! অমিত শাহের সাথে বৈঠকের পরেও শিবসেনা দল সূত্রে জানা যাচ্ছে পূর্বের ঘোষণা মত তারা একক শক্তি হিসেবেই লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করবে। কিন্তু তাহলেও জানা যাচ্ছে শিবসেনা দলের অন্দরে চলেছে মতানৈক্যের চোরা স্রোত। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শিবসেনা বিধায়ক এদিনের বৈঠক এবং দলের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে বললেন, ”লোকসভা ভোটে যদি বিজেপি জেতে, যদি তার পরেও আমরা জোটে না যাই, তবে সেই ভুলের মূল্য আমাদের দিতেই হবে।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!