এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > অমিত শাহকে নরেন্দ্র মোদী মন্ত্রীসভায় এত গুরুত্ব কেন দিলেন জানলে চমকে যাবেন

অমিত শাহকে নরেন্দ্র মোদী মন্ত্রীসভায় এত গুরুত্ব কেন দিলেন জানলে চমকে যাবেন

মোদি-2 মন্ত্রীসভায় এখন দ্বিতীয় অবস্থান অমিত শাহ-এর। দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই নয়া ক্যাবিনেটে শাহ-এর অবস্থান নিয়ে জোর গুঞ্জন চলছিলো। যার কারণ হেলাফেলা করার নয়। কার্যত গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী থাকার সময় থেকেই মোদির প্রধান ভরসা অমিত শাহ। গত লোকসভা ভোটে মোদি-শাহ এর কূটনৈতিক বুদ্ধির ফলেই আজ বিরোধীরা আসন-ছাড়া। তাই ক্যাবিনেটে তার আসন প্রাপ্যই ছিলো। এমনকি তিনি যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী হবেন তাও অনেকে আঁচ করেছিলেন।

মন্ত্রিসভায় প্রধানমন্ত্রীর পরে সব থেকে বেশি ক্ষমতা থাকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর হাতে। কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলি থেকে শুরু করে অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা সবকিছুর উপর নজরদারি করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। অর্থাৎ এখন দেশের প্রত্যেকের গতিবিধির ওপর নজরদারি থাকে শাহ-এর। এত বেশি ক্ষমতা তাঁর হাতে তুলে দেওয়া নিয়েও কম কথা ওঠেনি। অনেকের মতে শুধুমাত্র কৃতজ্ঞতা বশতঃ শাহকে মন্ত্রিত্ব দিয়েছেন মোদি। তবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা তা মানতে নারাজ। তাঁদের মতে যার উপর প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং এতদিন বিশ্বাস করে এসেছেন। এই বিশ্বাস থেকেই তার দায়িত্ব পালন করা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই প্রধানমন্ত্রীর।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

তবে মোদি-শাহ জুটি নিয়ে এর আগেও কম জলঘোলা হয়নি। ইশরাত জাহান এনকাউন্টার, গোধরা মামলা – এসব ঘটনায় দুজনের দিকে আঙ্গুল উঠেছিলো। তবে তখন থেকেই দিল্লি পর্যন্ত সবসময় মহাভারতের কৃষ্ণের মতো অর্জুন মোদির পাশে রয়েছেন শাহ। অন্যদিকে বিতর্ক বাড়লেও উন্নয়নে দেশের কাছে গুজরাট ‘মডেল স্টেট’ হয়ে উঠেছিল। ‘মোদিনমিক্স’ ও ‘শাহ-ট্রিকস’-এর প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে ওঠেন অনেকেই।পাশাপাশি গোধরা পরবর্তী আগুনে ‘হিন্দু-ত্রাতা’ হিসেবে শক্তিশালী হয়ে ওঠে মোদির ভাবমূর্তি। এরপর ২০১৪-র লোকসভা নির্বাচনে বিপুল জনমত নিয়ে ক্ষমতায় আসেন মোদি।

তবে দলে একজন থাকতে শাহ-ই কেন ? মোদি-১ এর সময় রাজনাথ শাহ আর অরুণ জেটলি এদের মধ্যে দ্বিতীয় হওয়ার প্রতিযোগিতা ছিলো। তখন দলের মধ্যে মোদিবরোধী সংঘটনের ছায়া আর আদবানি, মুরারিমোহন জোশি, নিতিন গড়করি এদের প্রাধান্য থাকায় শাহ এর মন্ত্রিসভায় আসা সমস্যা ছিল। তবে ধীরে ধীরে শীর্ষ নেতৃত্বদের পেছনে ফেলে ক্ষমতা বৃদ্ধি এবং 2019 এর ভোটের পর মোদির বিরোধীরাও এখন শান্ত,তাই শাহকে মঞ্চে নামাতে কোনো সমস্যাই হয়নি মোদির।

রাজ্য চালানোর জুটি আজ দেশ চালানোয় নিযুক্ত। বিরোধীদের মতে গোধরা কাণ্ডের পুনরাবৃত্তি ঘটবে। তবে অনেকে আশাবাদী এবং মোদি শাহ জুটির সপক্ষে তবে ফলাফল কে হবে তার উত্তর সময়ই দেবে।

Top
error: Content is protected !!