এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > দিল্লিতে ভরাডুবি নিয়ে বড়সড় স্বীকারোক্তি অমিত শাহের,জেনে নিন

দিল্লিতে ভরাডুবি নিয়ে বড়সড় স্বীকারোক্তি অমিত শাহের,জেনে নিন


অনেক চেষ্টা করেও দিল্লি দখল সম্ভব হয়নি ভারতীয় জনতা পার্টির পক্ষে। অনেক মন্ত্রী, সাংসদ, তারকাদের ময়দানে নামিয়েও, অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টির বিরুদ্ধে নানা কথা বলেও জয় আসেনি গেরুয়া শিবিরের। যার ফলে এখন কার্যত হতাশার সৃষ্টি হয়েছে বিজেপির অন্দরমহলে। তবে দিল্লিতে কেন এভাবে বিজেপির পরাজয় হল! যেখানে নির্বাচনের আগে প্রচারে সবসময় বিজেপি নেতারা দাবি করতেন যে, এবার তারা দিল্লির ক্ষমতা দখল করছেন, সেখানে এতটা আত্মপ্রত্যয়ী থাকা সত্ত্বেও কেন বিজেপি এখানে ক্ষমতায় আসতে পারল না!

নানা মহলে যখন এই ব্যাপারে নানা গুঞ্জন চলছে ঠিক তখনই দিল্লী বিধানসভা নির্বাচনের প্রচারে দলের নেতাদের একের পর এক বিতর্কিত মন্তব্যের জন্যই যে এই পরাজয় ঘটেছে, তা পরোক্ষে জানিয়ে দিলেন বিজেপি প্রাক্তন সর্বভারতীয় সভাপতি তথা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন বিজেপির প্রাক্তন সর্বভারতীয় সভাপতি।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর সেখানেই দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে দলের এই পরাজয় নিয়ে তিনি বলেন, “আমি দিল্লি নির্বাচনের হার স্বীকার করে নিচ্ছি। দেশ কো গদ্দারো কো…র মত মন্তব্য করা উচিত হয়নি। এই ধরনের মন্তব্যের জন্য হয়ত দলের ক্ষতি হয়েছে।” তবে শুধু এই মন্তব্য নয়, ভারত পাকিস্তান ম্যাচ, গোলি মারো এই ধরনের মন্তব্যেও যে নির্বাচনে কিছুটা হলেও প্রভাব পড়েছে, তা স্পষ্ট হয়ে যায় অমিত শাহর কথায়। তবে দলের অন্যান্য নেতারা এই সমস্ত মন্তব্য করলেও, সার্বিকভাবে বিজেপি দল এই সমস্ত মন্তব্যকে কখনই অনুমোদন করে না বলে জানিয়ে দেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে জয়লাভ করার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছিল বিজেপি। যেখানে কখনও আম আদমি পার্টির সুপ্রিমো তথা দিল্লীর মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে জঙ্গি বলা, আবার কখনও বা দেশের গদ্দারদের গুলি করা উচিত, এই সমস্ত কথা বলে বিতর্কে শিরোনামের বিজেপির নেতা, সাংসদরা। যা নিয়ে নানা মহলে নানা সমালোচনা হয়েছে।

কিন্তু ভোটের আগে এই বিষয় নিয়ে বিজেপি নেতাদের কোনোরূপ সতর্ক করতে দেখা যায়নি শীর্ষ বিজেপি নেতৃত্বকে। তবে এবার নির্বাচনে যখন বিজেপির ভরাডুবি হল, ঠিক তখনই এই ব্যাপারে নেতাদের মন্তব্যের জন্য যে দল কিছুটা হলেও পরাজয়ের মুখ দেখেছে, তা পরিষ্কার করে দিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। এখন পরবর্তীতে দলীয় নেতাদের বিতর্কিত মন্তব্য আটকাতে বিজেপির পক্ষ থেকে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয় কিনা, সেদিকে নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!