এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > অমিত শাহের বঙ্গ সফরের আগেই বাংলা জুড়ে আন্দোলনের ঝড় তুলতে মরিয়া বঙ্গবিগ্রেড

অমিত শাহের বঙ্গ সফরের আগেই বাংলা জুড়ে আন্দোলনের ঝড় তুলতে মরিয়া বঙ্গবিগ্রেড

কেন্দ্রের বিজেপি সভাপতি অমিত শাহের বঙ্গ সফরে আসার খবর প্রকাশ্যে আসতেই শোরগোল পড়ে গেলো রাজ্যের গেরুয়া শিবিরে। জানা যাচ্ছে এই মাসের ২৭, ২৮ তারিখে তিনি পদার্পণ করবেন এখানে। অমিত শাহের চলতি বছরে প্রথম বঙ্গ সফরে আসার মরশুমে আন্দোলন তুঙ্গে তোলার প্ল্যান করেছে বঙ্গ বিজেপিমহল। জানা যাচ্ছে কোলকাতাতে জেরবার হবে এই আন্দোলন। লোকসভার ভোটের আগে এ রাজ্যে বিজেপির ভাবমূর্তিকে সামনে রাখতে এবং শাসকদলকে চাপে রাখতে পারার ক্ষমতার প্রদর্শন করতেই রাজ্যের গেরুয়া পার্টির এই আন্দোলনের সিদ্ধান্ত। জানা যাচ্ছে,  এই মাসের ১৮ থেকে ২৫ তারিখ অব্দি হবে এই আন্দোলন। কোলকাতার রাস্তায় রাস্তায়, অলিতে গলিতে দেখা যাবে বিজেপিদের আন্দোলনমুখী তৎপরতা। বিজেপি নেতা আসার আগেই রনংদেহি মূর্তিতে আন্দোলনে সামিল হবে লাখে লাখে  বিজেপি সমর্থকেরা। এমনটাই জানা যাচ্ছে দলীয় সূত্রের খবর থেকে। তবে কিসের জন্য হবে এই আন্দোলন? শুধু কী বিজেপি নেতাকে দেখাতে! গুঞ্জন শুরু হয়েছে বিরোধী শিবিরে।

পঞ্চায়েত নির্বাচনের ঘন্টা বাজার থেকে নির্বাচনের পরবর্তী কাল অব্দি নানাভাবে বিজেপি সমর্থক তথা প্রার্থীদের উপর লাগাতার জুলুম চলেছে সন্ত্রাসের। সন্ত্রাসের পাশাপাশি সমান্তরালে চলেছে মনোনয়ন করতে না দেওয়া, লাগাতার খুন,ব্যালেট বক্স চুরি, কারচুপি, ছাপ্পাভোট আরো কতো কী! সবকিছুরই নিরব সাক্ষী রয়েছে এ রাজ্য।  আর বারবার অভিযোগের আঙুল উঠেছে তৃণমূলের দিকে। এর আগে দেশে নির্বাচনের নামে এরকম গণতন্ত্রের হত্যার নজির আগে দেখা যায়নি। এটাই প্রথম। অবাধ হিংসার রাজনীতির প্রমাণ হিসাবে নজির গড়েছে পুরুলিয়ায় পরপর একই মাসে তিনটি বিজেপি কর্মীর মৃত্যু। এবং বিজেপি করার অপরাধেই তাঁদের মৃত্যুদন্ড দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্যসরকার। এমটাই দাবী গেরুয়াশিবিরের।  গেরুয়া পার্টির এই আন্দোলন আসলে গণতন্ত্রের রাজত্ব ফিরিয়ে আনার উদ্দশ্যে। তাঁদের এই আন্দোলন হিংসার যুপাকাষ্ঠে বলি হওয়া নিরাপরাধ সহযোদ্ধাদের বিচার চাইতে। বিজেপির এই আন্দোলন খোদ রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে। এমনটাই জানা যাচ্ছে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

খবর পাওয়া গেছে, সর্বভারতীয় বিজেপি নেতা বঙ্গের মাটিতে পা রেখেই রওনা হবেন পুরুলিয়ার উদ্দেশ্যে। বলরামপুরে সেই দুই খুন হওয়া বিজেপি কর্মীর বাড়িতে যাবেন। একজন ছিলেন ২২ যুবক ত্রিলোচন মাহাতো যাকে নৃশংসভাবে খুন করে তাঁর গায়ে কাগজ দিয়ে সেঁটে দেওয়া হয়েছে বিজেপি করাটাই তাঁর অপরাধ ছিল। অন্যজন মৃত বিজেপি কর্মী  দুলাল দাস(৩২)। তাকে খুন করে হাইটেনশানের তারে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছিলো এবং মৃত্যুর কারণ হিসাবে দেখানো হয়েছিলো আত্মহত্যা।

উল্লেখ্য,দিলীপ ঘোষ কতদিন রাজ্য বিজেপির সভাপতি পদে বহাল থাকবেন তা নিয়ে ইতিমধ্যেই দলের অন্দরে তৈরি হয়েছে প্রশ্ন। তাঁর কার্যকারিতা আর ফাঁপা হুমকি নিয়ে আপত্তি জানিয়েছেন অনেক শীর্ষ নেতৃত্বরাই। রাজ্য বিজেপি সভাপতির পদের জন্য ভাবা হয়েছে একাধিক বিজেপি নেতার নাম। তাই তাঁর বিজেপির সভাপতিত্বের দায়িত্ব থেকে অপসারণের আগে রাজ্যজুড়ে গণমুখী প্রতিবাদ আন্দোলন করতে উদ্যোগী রাজ্য গেরুয়াশিবির। তাই বর্তমানে ভীষণ কর্মতৎপরতা রয়েছে দলীয় অন্দরে। ইতিমধ্যে রাজ্যজুড়ে থানা ঘেরাও কর্মসূচিও শুরু হয়ে গেছে। স্বচ্ছ ভারত অভিযান,ওবিসি মোর্চার কর্মসূচি গুলোও অমিত শাহ আসার আগেই সম্পূর্ণ করতে চান রাজ্য বিজেপি সংগঠন। আপাতত তাই আন্দোলনের প্রস্তুতি পর্ব নিয়ে চরম উওেজনা রয়েছে রাজ্য বিজপিশিবিরে। এমনটাই জানা যাচ্ছে রাজনৈতিক সূত্রের খবর থেকে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!