এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানই মিলিয়ে দিলেন অমিত-রাহুলকে,দেশবাসী দেখলো এক নতুন দৃশ্য

স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানই মিলিয়ে দিলেন অমিত-রাহুলকে,দেশবাসী দেখলো এক নতুন দৃশ্য

এমন দৃশ্য আগে কখনও দেখার সুযোগ হয়নি দেশের মানুষের। প্রথমবারের জন্যে ক্যামেরার ফ্রেম বন্দী হতেই বিষয়টি সকলের নজরে আসে। প্রসঙ্গত বুধবার স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে উপস্থিত প্রধান অতিথিদের সারিতে পাশাপাশি আসবে বসে থাকতে গিয়েছিলো কেন্দ্রের শাসক দল এবং প্রধান বিরোধী দলের জাতীয় সভাপতি অমিত শাহ ও রাহুল গান্ধী’কে। এদিন তাঁর  একসাথে বসেই প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ শুনছিলেন।

যদিও সমালোচকদের মতে কংগ্রেস সভাপতিকে কার্যত বাধ্য হয়েই বিজেপি সভাপতির পাশের আসন গ্রহণ করতে হয়েছিলো। যা মোটেও রাহুল গান্ধীর জন্যে স্বস্তিদায়ক ছিলো না। আসলে সঠিক ঘটনাটার ব্যখ্যা হলো একটু অন্যরকম। সাংবিধানিক রীতি অনুয়ারী স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে প্রথম সারিতে পদাধিকার বলে বসতেন শাসক দলের সভাপতি এবং তাঁর একদম পাশের আসনটি বিরোধী দলের সভাপতির জন্যে বরাদ্দ থাকে। গত বছরেও তাই কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী দলের সভাপতি পদে থাকার জন্যে দৃশ্যটা একটু আলাদা রকম ছিলো। এই বছর কংগ্রেস দলের সভাপতি পদের পরিবর্তন হওয়ার কারণেই প্রথমবারের জন্যে বিরোধী দলের সভাপতির আসনে বসলেন রাহুল গান্ধী।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

বিগত দশ বছরেরও অধিক সময় কংগ্রেস সভাপতির পদে সোনিয়া গান্ধীকে দেখে অভ্যস্ত সাধারণ মানুষ তাই ঐ আসনে এদিন রাহুল গান্ধীকে দেখে তাই একটু হলেও অবাক হয় বইকী! উল্লেখ্য স্বাধীনতা দিবস হোক বা প্রজাতন্ত্র দিবস হোক এতদিনের চেনা ছবি ছিলো প্রথম সারিতে কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী আর ছয় নম্বর সারিতে রাহুল গান্ধীর অবস্থান। চলতি বছর প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানেও এই ঘটনার কোনো ব্যাতিক্রম হয়নি। তবে জানা যাচ্ছে এই বছর প্রজাতন্ত্র দিবসের অনুষ্ঠানে রাহুল গান্ধীর চতুর্থ সারিতে বসার কথা থাকলেও তাঁকে ষষ্ঠ সারিতে আসন দেওয়ার জন্যে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে অপমানের অভিযোগ তোলা হয়েছিল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!