এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > আমফানের ক্ষতির মাঝেই তৃণমূলের অন্দরে পড়লো কোপ, পদ হারালেন তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা,জোর শোরগোল

আমফানের ক্ষতির মাঝেই তৃণমূলের অন্দরে পড়লো কোপ, পদ হারালেন তৃণমূলের হেভিওয়েট নেতা,জোর শোরগোল


আমফানের ক্ষত এখনো টাটকা আর তার মধ্যেই এবার তৃণমূলের অন্দরেও বইলো বড়সড় ঝড়। জানা যাচ্ছে আমফানের খাটো কতটা ,কিভাবে সামাল দেওয়া হবে সেই সব নিয়ে চিন্তার মাঝেই বড়সড় পরিবর্তন ঘটলো তৃণমূলের অন্দরে। সবার অলক্ষেই পদ হারালেন হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা।

জানা যাচ্ছে, মাত্র চারদিনের মাথায় রামপুরহাট পুরসভার প্রশাসক বোর্ডের সদস্য থেকে বিদায়ী ভাইস চেয়ারম্যান সুকান্ত সরকারকেকে সরিয়ে দেওয়া হল। তাঁর জায়গায় আনা হল ৯ নম্বর ওয়ার্ডের বিদায়ী কাউন্সিলার মীনাক্ষি ভকতকে যা ঘিরেই শুরু জল্পনা।

রামপুরহাট পুরসভার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় গত ১৮ মে পুরসভায় প্রশাসক বসানো হয় রাজ্য পুর ও নগরোন্নয়ন দপ্তরের তরফ থেকে। সেখানে প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারপার্সন করা হয় বিদায়ী চেয়ারম্যান অশ্বিনী তেওয়ারিকে এবং সদস্য করা হয় বিদায়ী ভাইস চেয়ারম্যান সুকান্ত সরকারকে।কিন্তু চারদিন যেতে না যেতেই বোর্ডের সদস্য পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় সুকান্ত সরকারকে। আর তার আগাম কোনো খবররু ছিল না কারুর কাছে। জানা যাচ্ছে হটাৎ বৃহস্পতিবার বিকেলে এমনই নির্দেশ পাঠিয়ে দেয় রাজ্য পুর ও নগরোন্নয়ন দপ্তর।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

জানা যাচ্ছে প্রশাসনের বা দলের এই সিদ্ধান্তে ক্ষুব্ধ দলের অন্যায় কাউন্সিলররাই।এই নিয়ে ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বিদায়ী কাউন্সিলার তথা তৃণমূল নেতা আব্বাস হোসেন ও সুদেব দাস বলেন, “পার্টির প্রবীণ নেতা সুকান্ত সরকার। তাঁর সঙ্গে আলোচনা না করে এভাবে সরিয়ে দেওয়া অত্যন্ত অনৈতিক কাজ হয়েছে। এতে রামপুরহাটে দলের ক্ষতি হয়ে গেল।”

তবে এই নিয়ে বিশদে মুখ খুলতে চাননি সুকান্তবাবু। কেন ই সেই বিষয়ে বিতর্ক না বাড়িয়ে এদিন তিনি বলেন, “আমাকে প্রশাসক বোর্ডের সদস্য করা হয়েছিল। আবার অজানা কারণে সরিয়েও দেওয়া হল। যা ভালো বুঝেছে তাই করেছে।”অন্যদিকে অশ্বিনী তেওয়ারি ও বিষয়টি নিয়ে বেশি জলঘোলা করতে চাননি। তিনি শুধু বলেন, “সুকান্ত সরকারকে সরিয়ে মীনাক্ষি ভকতকে প্রশাসক বোর্ডের সদস্য করা হয়েছে বলে মেল এসেছে। এর বেশি কিছু জানি না।”

এর ডে এড়িয়ে গেছেন কৃষিমন্ত্রী আশিস বন্দ্যোপাধ্যায় ও তিনিও এদিন বলেন, “একটা সংশোধন হয়েছে। তাতে সুকান্ত সরকারের জায়গায় মীনাক্ষি ভকতকে প্রশাসক বোর্ডের সদস্য করা হয়েছে। এর বাইরে আমি কিছু জানি না।”তবে এই নিয়ে মুখে কিছু না বললো কান পাতলে শোনা যাচ্ছে দলের অন্দরে ফিসফাস। নানা গুঞ্জন চলছে। অনেকেই এর পিছনের আসল কারণ খুঁজতে ব্যাস্ত। মুখে কিছু না বললেও বেজায় চটেছেন সুকান্তবাবুও এমনটাই বলছে এলাকার দলের একাংশ। এখন দেখার আমফানের পাশাপাশি এই ঝড় কি করে সামলান তৃণমূল নেতৃত্ব।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!