এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > আমডাঙা কান্ডে জাকির ভল্লুককে জেরায় উঠে এল হেভিওয়েট সিপিএম নেতার নাম

আমডাঙা কান্ডে জাকির ভল্লুককে জেরায় উঠে এল হেভিওয়েট সিপিএম নেতার নাম

কথায় আছে “কান টানলে মাথা আসে।” আর এই প্রবাদবাক্য অনুযায়ী আমডাঙা কান্ডে যদি মূল অভিযুক্ত জাকির ভল্লুককে কান হিসাবে ধরা হয় যাহলে কি মাথা অন্য কেউ! সূত্রের খবর, জাকিরকে জেরা করে মিলছে এইরকমই তথ্য। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত 28 আগষ্ট আমডাঙার বইছগাছি গ্রামে বোর্ড গঠনে গন্ডগোলের ঘটনায় তিন তৃনমূল কর্মী ও এক সিপিএম কর্মীর মৃত্যুহয়। আর তারপর থেকেই এই ঘটনায় মূল অভিযুক্ত সিপিএমের জাকির ভল্লুকের খোঁজে তল্লাশি চালায় পুলিশ।

শেষ পর্যন্ত কিছুদিন আগে ধরা পড়ে সেই জাকির ভল্লুক। জানা গেছে, পুলিশি জেরায় এই ঘটনায় ঠিক কারা জড়িত সেই ব্যাপারে কিছুটা মুখ খুলেছেন এই জাকির। জেরায় জাকির ভল্লুক জানিয়েছেন যে, 28 আগষ্ট রাতে গন্ডগোলের পরেই গ্রামের পাশে নিরাপদ একটি বিলের ধারে গিয়ে সেখানে অন্ধকারে তিনি উত্তর 24 পরগনার জেলা সিপিএম সম্পাদকমন্ডলীর এক সদস্যকে ফোন করে কোথায় যাবেন, কি করবেন সেই সব কিছুই শোনেন। আর এরপরই নিজের সিদ্ধান্তমত সেই রাতেই তিন সঙ্গীকে নিয়ে আমডাঙা থেকে বাস ধরে কোলকাতা গিয়ে তৃনমূল এবং সিপিএম বিরোধী এক রাজনৈতিক দলের অফিসে নেতাদের সাথে দেখা করে ট্রেনে দিল্লি গিয়ে সেখানে একরাত থাকার পর চলে যান রাজস্থানের আজমিরে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এখানেই তদন্তকারীদের প্রশ্ন যে, এই আমডাঙা কান্ডে মূল অভিযুক্ত জাকির ভল্লুক পালানোর সময় ঠিক কাকে ফোন করেছিল! তাহলে কি এর পেছনে বড় মাথা রয়েছে? নাকি নিজে বাঁচতে পুলিশের সামনে এইসব মিথ্যে গল্পের ফাঁদ পাতছে জাকির? এইবার কিভাবে এগোবে এই তদন্ত? আর কাউকে কি জেরা করা হবে! পুলিশের দাবি, সত্য উদঘাটিত করতে এবং আমডাঙায় শান্তিস্থাপনে তাঁরা সবকিছুই করবেন।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!