এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মুকুল রায় – জেনে নিন বিস্তারিত

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক মুকুল রায় – জেনে নিন বিস্তারিত

লোকসভা ভোটের পর থেকেই বিজেপির নানা অভিযোগের ভিত্তিতে তৃণমূল দল ক্রমাগত কোণঠাসা হয়ে পড়েছে। চিটফান্ড থেকে কাটমানি, নানান আর্থিক দুর্নীতির সাথে এবার যুক্ত হলো দেহ পাচারের অভিযোগ। এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এই অভিযোগে অভিযুক্ত করেছেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়।

নানুরে গত শুক্রবার বোমাবাজি ও দুষ্কৃতীদের গুলির আঘাতে আহত হন স্বরূপ গড়াই নামে বিজেপির এক কর্মী। আহত অবস্থায় তাঁকে প্রথমে বোলপুর সুপার সিটি হসপিটাল এবং সেখান থেকে পরবর্তীতে অবস্থার অবনতিতে কলকাতায় একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। রবিবার রাতে স্বরূপ গড়াই এর মৃত্যু হয়। তার দেহ চলে যায় ময়না তদন্তের জন্য এন আর এসে। আর সেখান থেকেই দেহ লোপাট হয়েছে বলে অভিযোগ করা হচ্ছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এই অভিযোগের ভিত্তিতে বিজেপি নেতা মুকুল রায় আজ কলকাতা বিমানবন্দরে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলে দাবি করেছেন স্বরূপের দেহ লোপাটের পেছনে মুখ্যমন্ত্রীর হাত আছে। তা‌ঁর নির্দেশেই পুলিশ স্বরূপ গড়াই এর মৃতদেহ লোপাট করেছে। এ বিষয়ে তিনি ক্ষোভের সাথে বলেন, ‘বাংলায় পুলিশরাজ চলছে। রাজ্যে কোনো গণতন্ত্র নেই। গণতন্ত্রকে হত্যা করা হচ্ছে। আইন অনুযায়ী, কারো মৃত্যু হলে দেহ পরিবারের হাতে দেওয়ার নিয়ম। কিন্তু দেখলাম, পুলিশ দেহ নিয়ে পালিয়ে গেল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে।’ এরপর মুকুল রায় সরাসরি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পদত্যাগ দাবি করে বলেন, ‘গত 24 ঘন্টার মধ্যে বাংলার তিন জায়গায় গুলি চলল। বাংলা জুড়ে অরাজকতা চলছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পুলিশ মন্ত্রী হিসেবে ব্যর্থ। অবিলম্বে তার পদত্যাগ করা উচিত।’

সূত্র থেকে জানা গেছে, নিহত স্বরূপ গড়াই এর স্ত্রী চায়না গড়াই দাবি জানান, স্বরূপের দেহ বিজেপি রাজ্য দপ্তরের নিয়ে যাওয়ার। কিন্তু পুলিশ তাতে বাধা দেয় এবং শুরু হয় অশান্তি। সোমবার গভীর রাতে পুলিশ কনভয় সহযোগে স্বরূপ গড়াই এর দেহ নানুরে ফিরিয়ে নিয়ে যায়। নোটিস মারফত এই খবর পরিবারকে জানানো হয়। কিন্তু মঙ্গলবার সকালেই স্বরূপের স্ত্রী দেহ নিতে এনআরএস মর্গে চলে আসেন বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা কে সঙ্গে নিয়ে। মর্গে স্বরূপের দেহ না পেয়ে তিনি পুলিশের বিরুদ্ধে দেহ লোপাটের অভিযোগ করেন। এ বিষয়ে অনুপম হাজরার মন্তব্য, ‘স্বরূপ গড়াইয়ের দেহ শ্যালকের হাতে দেওয়ার কথা ছিল। পুলিশ তা না করে কার অনুমতিতে দেহ নানুরে নিয়ে গেল? মৃতের পরিবারকে অন্ধকারে রেখে কেন পুলিশ দেহ নিয়ে চলে গেল?’ উত্তর যদিও পাওয়া যায়নি।

এই ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে বিজেপি দল থেকে জানানো হয়েছে, তারা দেহ চুরির অভিযোগে হাইকোর্টে মামলা করতে চলেছেন খুব তাড়াতাড়ি। এই ঘটনায় রাজনৈতিক মহলে যথেষ্ট চাপানউতোর শুরু হয়েছে। কেন্দ্রীয় তৃণমূল নেতৃত্ব এই ঘটনাকে কিভাবে সামাল দেন সেদিকে তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!