এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > স্বয়ং রাহুল গান্ধীর বৈঠকে গরহাজির, অধীর চৌধুরীর বিজেপি যোগ নিয়ে আবার জল্পনা চরমে

স্বয়ং রাহুল গান্ধীর বৈঠকে গরহাজির, অধীর চৌধুরীর বিজেপি যোগ নিয়ে আবার জল্পনা চরমে

রাজ্য-রাজনীতিতে এখন লাখ টাকার প্রশ্ন একটাই, প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী কি দল ছেড়ে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাবেন? যদিও অধীরবাবু নিজে প্রকাশ্যে বারবার বলেছেন, এই ধরনের জল্পনা অবান্তর, তিনি কংগ্রেস ছাড়ছেন না। এমনকি এই প্রসঙ্গে সংবাদ করায় – অধীরবাবুর আইনজীবী এক সংবাদমাধ্যকে আইনি নোটিশও পাঠান। তবুও কিছুতেই এই বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না তাঁর।

দাপুটে তৃণমূল কংগ্রেস নেতা তথা রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী তো বলেই দিয়েছেন, অধীরবাবুর বিজেপিতে যোগদান নাকি সময়ের অপেক্ষা! অন্যদিকে অধীর চৌধুরীর ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত হুমায়ুন কবীর সম্প্রতি বিজেপিতে যোগদান করে, প্রকাশ্যে সাংবাদিক বৈঠকে তাঁকে বিজেপিতে যোগদানের আহ্বান জানিয়েছেন। এমনকি, রাহুল সিনহা-দিলীপ ঘোষের মত বঙ্গ বিজেপির শীর্ষনেতাও তাঁকে বিজেপিতে যোগদানের খোলা আহ্বান জানিয়েছেন। কিন্তু অধীরবাবু, এখনও পর্যন্ত বিজেপিতে যোগ না দেওয়ার কথায় বলে এসেছেন।

এদিকে গত শনিবার, দিল্লিতে কংগ্রেস শাসিত সব রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, প্রতিটি রাজ্যের কংগ্রেস সভাপতি ও বিরোধী দলনেতাদের – কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী এক বৈঠক ডাকেন। কিন্তু সেই বৈঠকে ডাক পেলেও যান নি অধীরবাবু। ফলে বাংলা থেকে প্রতিনিধিত্ত্ব করেন বিধানসভার বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান। যদিও তিনি অধীরবাবুর ওই বৈঠকে যোগ না দেওয়া নিয়ে কিছুই জানাননি।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

অন্যদিকে, এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী জানা যাচ্ছে, অধীরবাবুর এই বৈঠকে যোগ না দেওয়া নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন এক প্রবীণ কংগ্রেস নেতা। তিনি নাকি দাবি করেছেন, বিজেপি-বিরোধী আন্দোলনে অধীরবাবুর সেরকম আগ্রহ নেই, তাই তিনি রাহুল গান্ধীর বৈঠকে যোগ দেন নি। অপর এক কংগ্রেস সাংসদ নাকি দাবি করেছেন, অধীরবাবুর প্রদেশ সভাপতি থাকার সময়েই কংগ্রেস সবথেকে বেশি ভেঙেছে, এমনকি তাঁর নিজের জেলা মুর্শিদাবাদেও সংগঠন ধরে রাখতে ব্যর্থ তিনি। তাছাড়া অধীরবাবুর বিজেপি-যোগ মোটেই নতুন কিছু নয়!

এছাড়া, ওই সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, অধীরবাবুর বিরোধী বলে পরিচিত এক কংগ্রেস নেতার দাবি, অধীর চৌধুরীকে প্রদেশ সভাপতি পদ থেকে যে কোন মুহূর্তে অপসারিত করতে পারেন রাহুল গান্ধী, আর সেটা বুঝেই এখন থেকেই দায়সারা মনোভাব দেখাচ্ছেন অধীরবাবু। তবে ওই সংবাদমাধ্যমই প্রকাশ, অধীরবাবু নিজে বলেছেন, যে একটি মামলার কাজে তিনি ব্যস্ত থাকায় দিল্লি যেতে পারেননি।

তবে, ওই সংবাদমাধ্যমের দাবি, প্রথমে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে রাহুল গান্ধীর কিছুটা দূরত্ত্ব থাকলেও, এখন তৃণমূল নেত্রী সম্পর্কে অনেক নমনীয় তিনি। এমনকি এই মাসেই মমতা বান্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দিল্লিতে একান্তে বৈঠকে বসতে পারেন তিনি। যা রীতিমত অস্বস্তির হতে পারে তীব্র মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বিরোধী বলে পরিচিত অধীর চৌধুরীর। তাই সবমিলিয়ে ওই সংবাদমাধ্যমের প্রকাশিত খবর অনুযায়ী অধীর চৌধুরীর বিজেপি-যোগ নিয়ে জল্পনা বাড়ছে ক্রমশ।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!